বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চাতাল শ্রমিকদের দুঃখকথা ‘ইডা কোন দরনের বিছার’

ssssssssমাহবুব খান বাবুল, সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) থেকে : বন্দি জীবন ওদের। এখানেই থাকা, এখানেই কাজ। দিন রাত হাড়ভাঙ্গা খাটুনি। তারপরও খেয়ে না খেয়ে সময় পার করতে হচ্ছে তাদের। সরাইল ও আশুগঞ্জ উপজেলায় অবস্থিত হাজারেরও উপরে চাতাল শ্রমিকদের করুন কাহিনী সবার মুখে মুখে। ধান শুকাতে গিয়ে চাতাল নারী শ্রমিকদের পা কাল হয়ে গেছে। রোদে পুড়ে সুন্দর মুখের অবয়বও বদলে গেছে। এতেও তাদের কোন ক্ষোভ কিংবা আক্ষেপ নেই। তাদের আক্ষেপ একই পরিমান কাজ করে পুরুষ শ্রমিকরা যেখানে দিনে ২০০ টাকা পায়, সেখানে তারা কেন ৫০ টাকা পাবে? এর প্রতিবাদও করতে পারেন না তারা। কারণ প্রতিবাদ করলে যাও পাচ্ছেন তাও পাবেন না। বরং অভাবের সংসারে যে ৫০ টাকা পেতেন তাও বন্ধ হয়ে যাবে? ফলে মানবেতন জীবনকেই তারা বেছে নিয়েছেন। ফজরের আজান থেকে শুরু হয় তাদের কাজ। চলে গভীর রাত পর্যন্ত। ফাকে খাওয়া দাওয়ার সময় পান কিঞ্চিৎ। কিন্তু ঘুমানোর জন্য ঘড়ি বাধা ৫ ঘণ্টা। কথা হয় এক নারী শ্রমিকের সঙ্গে। তার নাম মর্জিনা। তিনি বলেন, দুখের কতা কইলে কিতা অইব। আমরার দুখ কি আপনেরা ঘুচাইয়া দিতা ফারব্ইান। আমরা শইল থেইক্যা ঘাম জরাইয়া চাতাল চালু রাহি। আর তাইনেরা ট্যাহা পয়সা নিয়া মুজ করে। ফারলে এইডা বন্ধ করইন। বেডারা ফাইব ২শ ট্যাহা আর আমরা ফামু ৩০ ট্যাহা। ইডা কোন দরনের বিছার কইনছেন। সত্যিই চাতাল কন্যা মর্জিনাদের জীবন যুদ্ধ অবিরাম চলছে। কিন্তু তাতে তৃপ্তি নেই। নেই হাসি। আছে শুধু বেদনা। অধিকার বঞ্চিত হয়েও তারা মুখে কুলুপ এটে থাকেন। দুই ঈদ ছাড়া তাদের ভাগ্যে কোন ছুটি জুটে না। নারী দিবস কি সেটাও তারা বুঝেন না। ওই দিনে এখানকার নারীদের খোঁজও কেউ নেয় না। ঝাঁড়ু পাটনা বিন্দা আর মাথার বস্তা এখন তাদের নিত্যসঙ্গী। শেষ রাতে ঘুম থেকে জেগেই শুরু হয় কাজ। এতটুকু বিশ্রাম নেই তাদের। তারপরও আছে বঞ্চনা হুমকি ধমকি ও গালমন্দ। গতকাল ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের দুই পাশের এম আর রাইস মিল সহ কয়েকটি চাতালে সরজমিন গিয়ে দেখা যায়, নারী পুরুষ ও শিশুরা কাজ করছে। শ্রমিকদের জন্য রয়েছে ৮ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৭ ফুট প্রস্থের কক্ষ। যেখানে পরিবার নিয়ে তারা গাদাাগাদি করে থাকেন। একই কক্ষে রাখেন আসবাব পত্র ও খাবার। শ্রমিকদের কথা, শেষ রাত থেকে শুরু করে পরের রাত দশটা পর্যন্ত চলে ধান ভেজানো ভাপানো শুকানো চাল তৈরী ও বস্তা জাত করার কাজ। নারী পুরুষ উভয়ে মিলে সমান কাজ করলেও মজুরিতে রয়েছে চরম বৈষম্য। তবে প্রাপ্য মজুরি নিয়ে পুরুষ শ্রমিকরা ক্ষুব্ধ। একটি চাতালে গেলে কিশোরগঞ্জের সৈয়দ মিয়া (৪৩), ময়মনসিংহের শফিকুল ইসলাম (৪৫) ও সরাইলের রাসেল মিয়া (২৫) প্রতিবেদকের সামনে আসেন। তবে প্রত্যেকেই ছিলেন, ভয়ে কাতর। তাদের ভাষ্য মিল মালিক আর সর্দার জানতে পারলে আমারার অবস্থা খারাপ অইব। তারা হুনলে লাথি দিয়া বাইর কইরা দিব। ফেরত দিতে অইব এক কালীন ট্যাহাও। তারা বলেন, আমডা হুবই কষ্টে আছি। কাম করি ২৪ ঘন্টাই। টেহার বেলা নাই। পানিতে চুবানো থেইক্কা ধান হুকানো পর্যন্ত আমডারে ডেলি ২’শ ট্যাহা দেয়। রাইতে আবার গাড়ি থাইক্কা ধানের বস্তা লামান লাগে। নাইলে হাজিরা থাইক্কা ৫০ ট্যাহা কাইট্টা রাহে। ধান চালের বস্তাা গাড়িত উডানি নামানি বাবদ দেয় ৫ ট্যাহা। ৫ ট্যাহা থেইক্কা আবার ২ ট্যাহা  ৭০ পয়সা দিয়া দিতে অই সর্দার ও নারী কামলাদের। বাগে পাই ২ ট্যাহা ৩০ পয়সা। ঢরে শরীল বালা না থাকলে ও যাই। এই টেহা দিয়া অই আমডার খাওন কাপড় তেল পানি ডাক্তর দেখানি সব করন লাগে। এর পর আমডা মইরা গেলেও মালিক ফিরা চায় না। বছরে দুই ঈদের দিন ছাড়া আর কোন বন্ধ নাই। কামে আইতে একটু দেরি অইলে হুনতে অয় হুমকি ধমকি। এইডা মানুষের জীবন না। এক কালীন টেহা নিয়া বিপদে পইড়া গেছি। অহন টেহা দিয়া যাইতে অইব। নিজেরাই তো বাচতাম পারতাছি না। বাইচ্চাদের পড়ামু কেমনে? ময়মনসিংহের আকলিমা বেগম (৩০) ও কিশোরগঞ্জের মনোয়ারা বেগম (৪৫) কে মজুরির কথা জিজ্ঞেস করতেই কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। তারা বলেন, দিন রাইত নাই কাম করি। কিন্তু কাম মত ট্যাহা পাই না। বেডাইনরে সারা দিনে ২’শ টেহা দিলে আমডা কম পাইতাম কিয়ের লাই¹া? বেডাইন মাইনষের মতো একই কাজ করি, মজুরি পাই মাত্র ৫০ ট্যাহা। কারো কারো দেয় ৩০ ট্যাহা। আবার সর্দাররে ভাগ দেওন লাগে। আমগোর পক্ষে খাড়াইয়া কেউ এই কতাডা কয় না। এক জাগাতে দুই নিয়ম থাকত পারে না। এইডার একটা কুছতা করন দরহার। ছোড জাগা। ৪-৫ বাইচ্চা স্বামী সহ হুব কষ্টে গিজাগিজি কইরা থাহি। একাধিক নারী পুরুষ চাতাল শ্রমিকদের কথা আমাদের এক কালীন কিছু দিয়ে বন্দি করা হয়েছে। হাড় ভাঙ্গা পরিশ্রম করে শ্রমিকরা। আর নানা কৌশলে শ্রমিকের টাকা মেরে খাচ্ছেন সর্দার ও মালিক পক্ষ। কাজের তুলনায় মজুরি কম। চাতালে নেই চিকিৎসা। আসে না পরিবার পরিকল্পনার কোন কর্মী। চরম দূরাবস্থা পয়:নিস্কাশন স্যানিটেশন ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার। সর্দার আবদুর রহমান (৫১) নারী ও পুরুষের মজুরি বৈষম্যের কথা স্বীকার করে বলেন, বিশ বছর ধরে এ লাইনে আছি। এখানে আমার সামান্য লাভ হয়। সত্য কথা বললে আমার চাকুরি থাকবে না। ১৭ লাখ টাকা শ্রমিকদের অগ্রিম দিয়েছি। কেউ পালিয়ে গেলে জরিমানা আমাকে বহন করতে হবে। মিতালী সমাজ কল্যাণ সমিতির সম্পাদক শেখ মোঃ দেলোয়ার হোসেন জীবন বলেন, এখানকার শ্রমিকরা বেঁচে আছে অধিকার বঞ্চিত হয়ে। চরম বৈষম্যমূলক মজুরি তাও আবার নগন্য। এদের কোনও স্বপ্ন নেই, সাধ নেই। এরা জানেন না নারী দিবস কি? নারী অধিকার কি? এম আর রাইস মিলের মালিক হাজী মো. মাহাবুবুর রহমান নারী ও পুরুষ শ্রমিকের মজুরি বৈষম্যের কথা স্বীকার করে বলেন, পুরুষের চেয়ে নারীরা কম কাজ করে। অন্যান্য মিলের সাথে মিল রেখেই শ্রমিকদের মজুরি দেওয়া হয়। দুই ঈদ ছাড়াও তাদেরকে ছুটি দেয়া হয়। তবে ছুটির দিনের মজুরি পায় না।
 

 

এ জাতীয় আরও খবর