সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঝুঁকির মুখে বিএনপি

20130127-192317_69035আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ফের রাজনৈতিক ঝুঁকির মুখে পড়েছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি। হঠাৎ করেই দলের যুগ্ম-মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদসহ কয়েকজন নেতার অন্তর্ধান হওয়ায় দলটির সর্বস্তরের নেতা-কর্মীদের মধ্যে নতুন করে ‘গুম আতঙ্ক’ বিরাজ করছে। ভয়ভীতি ছড়িয়ে পড়েছে তৃণমূলেও। এ কারণে চলমান হরতাল-অবরোধ কর্মসূচিও গতি হারাচ্ছে। বিশেষ করে সালাহউদ্দিনের ‘নিখোঁজে’ দলের মধ্যম সারির নেতাদের মধ্যে আতঙ্কের মাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছে। এর আগে যারা ইন্টারনেট যোগাযোগ মাধ্যম ভাইবারসহ বিভিন্ন উপায়ে নেতা-কর্মীদের মধ্যে কথা বলে আন্দোলনের দিকনির্দেশনা দিতেন, এখন তারাও আন্দোলন থেকে নিজেদের সরিয়ে রেখেছেন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গেও দলের সিনিয়র নেতাদের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন প্রায়। এ অবস্থায় সরকারবিরোধী আন্দোলনের ভবিষ্যৎ নিয়েও দুশ্চিন্তায় বিএনপির নীতিনির্ধারকরা। দলীয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা এম হাফিজ উদ্দিন খান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিনের মতো একজন নেতা নিখোঁজে স্বাভাবিকভাবেই জনজীবনে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। এটা সবার জন্যই দুশ্চিন্তার ব্যাপার। তবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দায়িত্ব হচ্ছে ওই নেতাকে খুঁজে বের করা। তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ থাকলে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পারে। কিন্তু কোনোভাবেই গুম হওয়া সমর্থনযোগ্য নয়। তাছাড়া কোনো ব্যক্তি নিজে থেকেই হারিয়ে যেতে পারেন না। এ বিষয়ে সরকারকেও সঠিক দায়িত্ব পালন করতে হবে।’ সূত্রে জানা যায়, হরতাল-অবরোধে ঢাকায় সভা-সমাবেশ না হলেও এর আগে তৃণমূল পর্যায়ে ব্যাপক শোডাউন করত স্থানীয় নেতা-কর্মীরা। সালাহউদ্দিন নিখোঁজের পর এক সপ্তাহ ধরে মাঠ পর্যায়েও তেমন সাড়া মিলছে না। এর কারণ হিসেবে তৃণমূলের এক নেতা বলেন, হঠাৎ করেই গুম-খুনসহ রাজনৈতিক হয়রানির কারণে মাঠ পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা এ মুহূর্তে আর ঝুঁকি নিতে চান না। এমনিতেই দীর্ঘদিন ধরে হামলা-মামলায় জর্জরিত তৃণমূল বিএনপি। এর মধ্যে ফের গুম আতঙ্কে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে। তবে চলমান রাজনৈতিক অচলাবস্থা নিরসন হলে মাঠ পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা আবারও জেগে উঠবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন ওই নেতা।   বিএনপির সিনিয়র নেতারা অবশ্য জানান, সরকার আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে নিতে বিএনপি নেতা-কর্মীদের মধ্যে ভয়ভীতি ছড়িয়ে দিচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে সালাহউদ্দিন আহমেদ, ছাত্রনেতা আনিসুর রহমান তালুকদার খোকনসহ বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের বেশ কয়েকজন নেতাকে তুলে নিয়ে গেছে। কিন্তু এভাবে গুম, খুন, অপহরণ কিংবা জুলুম-নির্যাতনের পথ বেছে নিয়ে কেউই ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করতে পারেনি। আওয়ামী লীগও পারবে না।জানা গেছে, কারাগারের বাইরে থাকা বিএনপির প্রায় সব কেন্দ্রীয় নেতাই আত্মগোপনে। তবে সালাহউদ্দিন নিখোঁজের পর আড়ালে থেকেও তারা আরও সতর্ক। বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয় কিংবা কারও সঙ্গেই যোগাযোগ করছেন না তারা। অবশ্য নেতা-কর্মীদের গুম ও গ্রেফতার এড়িয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন বিএনপিপ্রধান। একই সঙ্গে এ নিয়ে সব পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের দিকনির্দেশনাও দিয়েছেন। দলের যেসব নেতা-কর্মীকে পুলিশ, ডিবি বা র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাচ্ছে, তাদের পরিবার যাতে দ্রুত দলের কেন্দ্রীয় নেতা, আইনজীবী, সাংবাদিক অথবা বিএনপির গুলশান কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন সে বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম জিয়া। সালাহউদ্দিন আহমেদের স্ত্রী হাসিনা আহমেদের অভিযোগ, তার স্বামীকে ১০ মার্চ রাতে উত্তরার একটি বাসা থেকে ডিবি পরিচয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তুলে নিয়ে গেছে। অবশ্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী শুরু থেকেই এ দাবি অস্বীকার করে আসছে। এ নিয়ে সালাহউদ্দিনের স্ত্রী গুলশান ও উত্তরা থানায় জিডি করতে গেলেও তা নেয়নি পুলিশ। পরে বাধ্য হয়ে তিনি গত বৃহস্পতিবার হাইকোর্টে একটি রিট করেন। এ নিয়ে সালাহউদ্দিনের পরিবারের পাশাপাশি উৎকণ্ঠায় বিএনপির সর্বস্তরের নেতা-কর্মীরা। ছাত্রদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আনিসুর রহমান তালুকদার খোকনের স্ত্রী ইশরাত আজমেরী আঁখি অভিযোগ করেন, ৬ মার্চ সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা রাজধানীর শুক্রাবাদ এলাকা থেকে তার স্বামীকে আটক করে। পরের দিন ৭ মার্চ তিনি আদাবর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। কিন্তু আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, তারা খোকনকে আটক করেনি। র‌্যাবের পক্ষ থেকেও একই কথা বলা হয়েছে।গত ১৮ ফেব্রুয়ারি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের ভাগ্নে মাজেদুর রশীদ নিখোঁজ হন। তার স্ত্রী আম্বিয়া খাতুন বীথি জানিয়েছেন, ফকিরাপুলের ১৭৮ নম্বর বাসা থেকে বের হওয়ার পর তাকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। ওই ব্যবসায়ী অপহরণের শিকার হয়েছেন দাবি করে পল্টন মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন তিনি। এখনো তার কোনো হদিস মেলেনি। একইভাবে গত কয়েক দিনে ছাত্রদলের আরও বেশ কয়েকজন নেতার নিখোঁজের খবর পাওয়া গেছে।  এ প্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন নিখোঁজের পর স্বাভাবিকভাবেই নেতা-কর্মীদের মধ্যে কিছুটা উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। আন্দোলনেও এর একটা প্রভাব তো পড়বেই। তবে এভাবে গুম, খুন কিংবা হয়রানি করে কেউ ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করতে পারে না।’হতাশা বাড়ছে তৃণমূলে : সরকারবিরোধী আন্দোলনে সফলতার কোনো আভাস না পাওয়ায় ক্ষোভ ও হতাশা বাড়ছে তৃণমূলে। বিশেষ করে আন্দোলনে কেন্দ্রীয় নেতাদের ভূমিকায় তারা খুবই হতাশ। চলমান আন্দোলনে বিএনপির গুলশান কার্যালয়ের ভূমিকায়ও ক্ষুব্ধ মাঠের নেতা-কর্মীরা। তাদের অভিযোগ, সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে দুই মাস পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সংবাদ সম্মেলনেও কোনো আশার আলো নেই। তাছাড়া আন্দোলনের ভবিষ্যৎ নিয়েও কোনো দিকনির্দেশনা ছিল না। বাংলাদেশের ইতিহাসে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা আন্দোলনের এ পর্যায়ে সংবাদ সম্মেলনে খালেদা জিয়ার গতানুগতিক বক্তব্যে গুলশান কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের দোষারোপ করছেন তৃণমূল বিএনপির নেতা-কর্মীরা। এ প্রসঙ্গে গুলশান কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, সংবাদ সম্মেলনের ড্রাফট তারা করেননি। এটা বাইরে থেকে এসেছে। তাই এ নিয়ে তাদের দোষারোপ করা ঠিক হবে না।

এ জাতীয় আরও খবর

৫-১২ বছর বয়সীরা পাবে ফাইজারের টিকা

রাশিয়ার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ লড়াইয়ের ঘোষণা জি-সেভেন নেতাদের

পিকআপে পদ্মা সেতু পার হচ্ছে মোটরসাইকেল

অবসর নিয়ে ভাবছেন ইংল্যান্ডের অধিনায়ক মরগান

হাতিয়ায় শ্বশুরবাড়ি থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

‘পদ্মা সেতু আমাদের অহংকার’

টাঙ্গাইলে হত্যা মামলায় ৪ জনের যাবজ্জীবন

শারীরিক সম্পর্কে স্বামীর অনীহা, অভিযোগ নিয়ে থানায় গেলেন নারী

নাট-বল্টু খোলার মামলা তদন্ত করবে সিআইডি

মোবাইলে এক মেয়ের সঙ্গে কথা বলতেন ইমরান, ঝগড়াও হতো!

ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ নিষেধ শিক্ষকের

ঢাবির ‘খ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ