শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কার্বন নির্গমন বৃদ্ধির হার গত বছর থমকে ছিল

a1f0826573bfc362333360f3b60960db-13আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বৈশ্বিক কার্বন নির্গমন বৃদ্ধির হার গত বছর থেমে ছিল। ফ্রান্সভিত্তিক আন্তর্জাতিক জ্বালানি সংস্থা (আইইএ) এ তথ্য জানিয়েছে। সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়, বড় ধরনের কোনো অর্থনৈতিক সংকট ছাড়াই কার্বন-ডাই-অক্সাইড নির্গমন বৃদ্ধির হার গত ৪০ বছরের মধ্যে ২০১৪ সালে প্রথমবার স্থিতিশীল ছিল।

আইইএর তথ্য অনুযায়ী, ২০১৪ সালে বৈশ্বিক কার্বন নির্গমন ছিল ৩২ গিগাটন, যা এর আগের বছরের সমান। তবে ব্যাপারটা ‘উৎসাহব্যঞ্জক’ হলেও তা নিয়ে ‘খুশি হওয়ার সময় হয়নি’ বলে সতর্ক করা হয়েছে। আইইএর প্রধান অর্থনীতিবিদ ফাতিহ বিরল বলেন, ব্যাপারটা একই সঙ্গে স্বাগত জানানোর মতো এবং গুরুত্বপূর্ণ। এটি প্যারিসে আগামী ডিসেম্বরে বিশ্ব জলবায়ু চুক্তির লক্ষ্যে সমঝোতা আলোচনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। কারণ, এই প্রথমবার স্পষ্ট হয়েছে যে গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন হ্রাসের বিষয়টি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির জন্য বাধা নয়।

আইইএর নির্বাহী পরিচালক মারিয়া ফন ডার হোয়েভেন বলেন, এই ইতিবাচক সংবাদকে অজুহাত হিসেবে দেখিয়ে কার্বন নির্গমন রোধে নতুন নতুন উদ্যোগ বন্ধ করার সুযোগ নেই।

নির্গমনের হার বৃদ্ধির গতি ধীর হওয়ার কারণ হিসেবে বিভিন্ন দেশে জ্বালানি বা তেল পোড়ানোর ধরন পরিবর্তনের ব্যাপারটিকে চিহ্নিত করেছেন বিশ্লেষকেরা। যেমন চীনসহ অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন সংস্থার (ওইসিডি) সদস্যদেশগুলো জ্বালানি ব্যবহারে পরিবর্তন এনেছে।

যুক্তরাজ্যের ইস্ট অ্যাংলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের টিন্ডাল সেন্টার ফর ক্লাইমেট চেঞ্জের অধ্যাপক করিন ল্য কুয়ের বলেন, চীনে জ্বালানি হিসেবে কয়লার ব্যবহার গত বছর উল্লেখযোগ্য হারে কমেছে। পরিবেশদূষণ রোধে দেশটির প্রচেষ্টার ফলে এমনটা হয়েছে। দেশটিতে অধিকতর কার্যকর এবং নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বেড়েছে। এতে বৈশ্বিক কার্বন নির্গমন বৃদ্ধিতে প্রভাব পড়েছে। অন্যান্য দেশেও নির্গমন বৃদ্ধি প্রতিরোধের উদ্যোগ নেওয়ার ফলেও পরিস্থিতির ইতিবাচক পরিবর্তন হয়েছে। কিন্তু আবহাওয়া এবং তেল, গ্যাস ও কয়লার আপেক্ষিক মূল্যের মতো অন্যান্য কিছু বিষয়ও এলোমেলোভাবে প্রভাব বিস্তার করছে।

আইইএ ৪০ বছর ধরে বিশ্বব্যাপী কার্বন নির্গমনের তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছে। এর আগে মাত্র তিনবার বার্ষিক নির্গমন বৃদ্ধির হার কমেছিল অথবা স্থির হয়েছিল। তবে সেসব ক্ষেত্রে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দার প্রভাব ছিল। ১৯৮০-এর দশকে মার্কিন মন্দা, সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর ১৯৯২ সালে এবং ২০০৯ সালে বিশ্বজুড়ে অর্থনৈতিক সংকটের সময় এসব পরিবর্তন চিহ্নিত করা হয়।

আইইএর পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদনটি আগামী জুন মাসে প্রকাশ করা হবে। জলবায়ু নিয়ে সমঝোতার লক্ষ্যে প্যারিসে জাতিসংঘের উদ্যোগে আগামী ডিসেম্বরে একটি আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। এতে একটি চুক্তির ব্যাপারে মতৈক্য হলে তা ২০২০ সাল থেকে কার্যকর হবে। চুক্তির লক্ষ্য হবে জলবায়ুর বিপজ্জনক পরিবর্তন এড়ানোর জন্য পৃথিবীর উপরিতলের তাপমাত্রা বৃদ্ধির সীমা প্রাক-শিল্পযুগের তুলনায় দুই ডিগ্রি সেলসিয়াসে সীমিত রাখা। যুক্তরাজ্যের জ্বালানি ও জলবায়ুমন্ত্রী এড ড্যাভি বলেন, বর্তমান তথ্য-উপাত্ত অনুযায়ী ওই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা সম্ভব বলে মনে হচ্ছে। তবে কার্বন নির্গমন বৃদ্ধি স্থির রাখতে পারলেই খুশি হলে চলবে না। এই হার নাটকীয়ভাবে কমিয়ে আনা প্রয়োজন। নতুন বৈশ্বিক জলবায়ু চুক্তি সম্পাদন করাটা আসলেই অত্যাবশ্যক। বিষয়টির গুরুত্ব নিয়ে আগামী দিনগুলোতে আলোচনা-সমালোচনার সুযোগ রয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর