বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যেভাবে সামাল দেবেন বিয়ের খরচাপাতি

mrggg1লাইফস্টাইল ডেস্ক : বিয়ে পুরোপুরি একটি সামাজিক ব্যাপার। আর এই সামাজিকতা রক্ষা করতে যে অনুষ্ঠান করতে হয় তার পেছনে পকেট থেকে চলে যায় বিপুল পরিমাণের অর্থ। বিয়ের অনুষ্ঠান সত্যিকার অর্থেই অনেক খরচের ব্যাপার। গায়ে-হলুদ, বিয়ে, বৌ-ভাত ইত্যাদি অনুষ্ঠান এবং তার আনুসাঙ্গিক খরচাপাতি কি পরিমাণে হতে পারে তা যারা বিয়ের অনুষ্ঠান করেছেন তারা বেশ ভালো করেই জানেন। কিন্তু তারপরও সামাজিকতা রক্ষার জন্য বিয়ের অনুষ্ঠান করতেই হয়। তবে আগে থেকে বুদ্ধি খাটিয়ে চললে বিয়ের অনুষ্ঠানের খরচা একটু ভালো মতোই সামাল দিয়ে নেয়া যায়। জানতে চান কীভাবে?

প্রথমেই পরিকল্পনা করে ফেলুন
আগে থেকেই বিয়ের পরিকল্পনা করে ফেলুন। কীভাবে, কোন ধরণের ডেকোরেশন, কি কি জিনিস লাগবে, কি থাকা লাগবে ইত্যাদি সব ব্যাপারে পরিকল্পনা করে ফেলুন। এবং এ ব্যাপারে আনুমানিক বাজেটও নির্ধারণ করে ফেলুন যাতে করে খরচ জোগাড় করতে গেলে কতোটা লাগবে তা সম্পর্কে কিছুটা হলেও ধারণা থাকে। পরিকল্পনা করে নিয়ে সেভাবে এগিয়ে চলুন।

সঞ্চয় শুরু করুন হাতে সময় থাকতেই
বিয়ের খরচ অনেক বড় একটি ব্যাপার। হুট করে এতোটা খরচ একসাথে জোগাড় করা একার পক্ষে সম্ভব হয়ে উঠে না। তাই ভবিষ্যতের কথা, বিয়ের কথা ভেবে নিজেই একটু উদ্যোগী হয়ে সঞ্চয় করা শুরু করুন। পুরোটা পেরে না উঠলেও কিছুটা তো সঞ্চয় করতে পারবেন। পুরো খরচ তখন সামাল দিতে একটু হলেও সাহায্য পাবেন।

দু পরিবারের সাথে কথা বলে যাচাই করে নিন
আজকাল অনেক বিয়েতেই দু পরিবার একসাথে অনুষ্ঠান করে ফেলে। এইধরনের কাজ করবেন কিনা তা দুই পরিবার বসে আলাপ আলোচনা করে ঠিক করে নিন। এখানেও বিয়ের বাজেট সংক্রান্ত বিষয়াদি রয়েছে যা সামাল দিতে হলে আলোচনা করে বুঝে নেয়া অনেক জরুরী।

সঙ্গীর সাথে কথা বলে নিন এই ব্যাপারে
যদি পারিবারিক বিয়ে হয় তাহলে সঙ্গীর ইচ্ছা অনিচ্ছা এবং পছন্দ অপছন্দের বিষয়গুলো এবং আশা-আকাঙ্ক্ষার ব্যাপারগুলো সম্পর্কে কথা বলে জেনে নিন। এতে করে বিয়ের বাজেট ধারণা করতে সুবিধা হবে। এছাড়াও যদি প্রেমের বিয়ে হয় অনেক সময় দুজনের মিলিত প্রচেষ্টায় অনেক কিছুই করা সম্ভব। তাই আগে থেকেই দুজনে কথা বলে নিন খরচের ব্যাপারে। একটুও লজ্জাবোধ রাখবেন না।

পারিবারিক সহযোগিতা
বিয়ের ব্যাপারটি যেমন পারিবারিক এর খরচখরচার বিষয়টিও পরিবারের মিলিত উদ্যোগেই নেয়া হয় মূলত। পরিবারের বড়দের নানা সাহায্য সহযোগিতার মাধ্যমেই বেশ ভালো করে সামলে নেয়া যায় বিয়ের এই বিশাল খরচ।

বিয়ের জন্য লোণ
আজকাল ব্যাংকে বিয়ের জন্য বিশেষ লোণের ব্যবস্থা রয়েছে। যদি প্রয়োজন মনে করে তাহলে বিয়ের খরচ সামাল দিয়ে ব্যাংক লোণ নিতে পারেন। অথবা অনেক অফিস থেকেও নিজের বেতনের উপরে লোণ নেয়া যায় সে দিকটিও ভেবে দেখতে পারেন।

এ জাতীয় আরও খবর