সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জৈব প্রক্রিয়ার মাধ্যমে গরুকে মোটাতাজা করলে গরুর মাংস ভালো হয়-ডাঃ মোঃ বজলুর রশীদ

Brahmanbaria Pic-04নিজস্ব প্রতিবেদক : জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ বজলুর রশীদ বলেছেন, আমরা খাদ্য ঘাটতির দেশ থেকে খাদ্য উদ্বৃতের দেশে পরিণত হয়েছি। তিনি বলেন, পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে দামি মাংস হচ্ছে গরুর মাংস। আমরা ভবিষ্যতে গরুর মাংস বিদেশে রপ্তানী করতে চাই।
তিনি গতকাল রবিবার বিকেলে সুহিলপুরের খলাপাড়ায় তিতাস ক্যাটল ফার্মের উদ্যোগে ইউরিয়া মোলাসেস স্ট্র (ইউএমএস) প্রযুক্তির মাধ্যমে গরু মোটাতাজাকরণ প্রকল্প বিষয়ক মাঠ দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ডঃ আশরাফুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মাঠ দিবসের আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডাঃ মোঃ বজলুর রশীদ আরো বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে দেশে প্রাণী সম্পদ, মৎস্য এবং কৃষিক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। এসব প্রকল্পে সরকার সহায়তা দিচ্ছেন। তিনি বলেন প্রযুক্তি ছাড়া উন্নতি করা যায়না।  মাঠ দিবস হচ্ছে কৃষকদের কাছে সরাসরি যাওয়ার মাধ্যম। তিনি বলেন, গরুকে জোর করে খাওয়ানোর দরকার নেই। তিনি বলেন, মোটাতাজাকরনের নামে গরুকে ট্যাবলেট খাওয়ালে গরুর কিডনী নষ্ট হয়ে যায়। সেই মোটা গরুর মাংস খেলে অনেক অসুখ বিসুখ হয়। তিনি বলেন, গরুকে ভাত খাওয়ানোর দরকার নেই, গরুর পেটে ভাত হজম হয়না, গরুর পেটে গ্যাস হয়। এত গরুর অসুখে ভুগে। তিনি বলেন, গরুর স্বাস্থ্য ভালো হলে সেই গরুর মাংস খেলে আমাদের স্বাস্থ্যও ভালো হবে। তিনি বলেন, জৈব প্রক্রিয়ার মাধ্যমে গরুকে মোটাতাজা করলে গরুর মাংস ভালো হয়। গরুর মাংসও বাড়ে। তাছাড়া গরুর গোবর দিয়ে বায়ু গ্যাস করে আমাদের জ্বালানী সমস্যারও সমাধান করা যায়। এতে খামারী গরু বিক্রি ও গ্যাস বিক্রি করে লাভবান হতে পারেন। তিনি বলেন, গরুর খামার করে নিজেরা লাভবান হওয়ার সাথে সাথে দেশের বেকার সমস্যাও অনেক লাঘব হবে।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান হাজী মোঃ মহসিন মিয়া, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট তাসলিমা সুলতানা খানম নিশাত।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা (ভেটেরেনারী সার্জন) মোঃ আজিজুল হক। বক্তব্য রাখেন খামারের মালিক উজ্জ্বল মিয়া, ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুল হক লিটন।
সভা পরিচালনা করেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কে.এম. বদরুল হক। সভায় উপজেলা গভন্যার্স প্রজেক্টের সমন্বয়কারী আবদুল্লাহ আল মুজাহিদ উপস্থিত ছিলেন।
সভাপতির বক্তব্যে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ডঃ আশরাফুল আলম বলেন, প্রাণী সম্পদের উন্নয়নে সরকার কাজ করছে। তিনি বলেন গরুর স্বাস্থ্য ভালো থাকলে এর মাংস খেলে আমাদের স্বাস্থ্যও ভালো থাকবে। তিনি বলেন, একজন খামারী একজন উদ্যোক্তা। তিনি বলেন, কেউ যদি গরুর খামার করতে চান তাহলে সরকার আপনাদেরকে সহযোগীতা করবে। তিনি বলেন, এই দেশ সোনার দেশ, বিদেশ যাওয়ার দরকার নেই। যে টাকা দিয়ে মানুষ বিদেশে যায় সেই টাকা দিয়ে দেশে খামার করলে অনেক বেশী লাভবান হওয়া যায়।