সোমবার, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যুক্তরাষ্ট্রে বিপন্ন কচ্ছপ বাঁচাতে তোড়জোড়

3bb26e7ead5fc447285cac850e3cdaba-KOCHOP-UDDARআন্তর্জাতিক ডেস্ক :যুক্তরাষ্ট্রে তীরে উঠে আসা বিপন্ন কচ্ছপ রক্ষায় তোড়জোড় শুরু হয়েছে। উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় কয়েকটি সাগরতীরবর্তী এলাকায় পানি ছেড়ে ডাঙার দিকে যাচ্ছে কচ্ছপ। এ নিয়ে উদ্বিগ্ন প্রাণী রক্ষায় উৎসাহী মানুষ। স্বেচ্ছাসেবী থেকে শুরু করে বিমানচালকেরাও বিপন্ন কচ্ছপ উদ্ধার ও পুনর্বাসনের কাজ করছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় সমুদ্রতীর ও কেপ কোড বে এলাকায় ছয় প্রজাতির কচ্ছপের দেখা মেলে। এবার শীতের শুরুতেই কচ্ছপগুলো জলাশয় ছেড়ে ডাঙার দিকে চলে যাচ্ছে। প্রতিবছর শীতের এ সময় কচ্ছপেরা যে যার মতো সাগরতীরে উঠে আসে। কিন্তু এবারে দলবেঁধে আসছে। সাগরের পানিতে হিমের মাত্রা বেড়ে গেলে কচ্ছপের জীবন ধারণ কঠিন হয়ে পড়ে। মৌসুমের এ সময়ে উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সমুদ্র এলাকা থেকে কচ্ছপ ভাসতে ভাসতেই ফ্লোরিডার উষ্ণ জলে চলে যায়। কিন্তু এ বছর ঘটেছে ব্যতিক্রম। গত এক মাসে এক হাজারেরও বেশি কচ্ছপকে ডাঙা থেকে উদ্ধার করা হয়।

সম্প্রতি দ্য নিউইয়র্ক টাইমস-এর এক প্রতিবেদনে একসঙ্গে এত কচ্ছপের ডাঙায় উঠে আসার ঘটনাকে অস্বাভাবিক বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

ম্যাসাচুসেটস রাজ্যের কেপ কোড বে এলাকায় বিপন্ন কচ্ছপ উদ্ধারে ব্যাপক কর্মযজ্ঞ শুরু হয়েছে। সেনডি নেকিবচের উদ্যান ব্যবস্থাপক নিনা কোলম্যান জানিয়েছেন, ডাঙার দিকে চলে যাওয়া কচ্ছপের বেশির ভাগই দুই থেকে তিন বছর বয়সের। ভিন্ন ছয়টি প্রজাতির এসব কচ্ছপ সমুদ্রপথে উষ্ণ জলরাশিতে যাওয়ার আগেই কেপ কোড বে এলাকায় আটকা পড়েছে বলে তাঁরা আশঙ্কা করছেন। ঠিক কী কারণে এমনটা ঘটেছে, তা কেউ বলতে পারছে না। এক মাস ধরে ১৫০ জন স্বেচ্ছাসেবী এসব কচ্ছপ উদ্ধারের জন্য দিনে ১২ থেকে ১৬ ঘণ্টা কাজ করছেন। বিপন্ন প্রাণী সংরক্ষণ আন্দোলনের সংগঠক বব প্রেসকট জানান, উদ্ধার করা কচ্ছপের সংখ্যা হাজার পার হয়েছে। তবে ঠিক কয়টি কচ্ছপ ডাঙায় এসে মারা গেছে, তার কোনো হিসাব নেই। 

কচ্ছপ উদ্ধার করে তাদের অভয়ারণ্যে েছড়ে দেওয়া হয়। এই প্রক্রিয়া বেশ জটিল ও সময়সাপেক্ষ। উদ্ধারকারীরা জানিয়েছেন, ডাঙায় পাওয়া কচ্ছপ জীবিত না মৃত, তা প্রথমেই টের পাওয়া যায় না। ঠান্ডায় মরার মতো পড়ে থাকা কচ্ছপ উদ্ধার করেই পশু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে এক্স-রে করাসহ যাবতীয় পরীক্ষার পর কচ্ছপের সেবা শুরু হয়। এ জন্য প্রতিদিন কচ্ছপের শরীরের তাপমাত্রা পাঁচ ডিগ্রি ফারেনহাইট করে বাড়ানো হয়। ঠান্ডায় বা ডাঙায় আসার কারণে কচ্ছপের শরীরÿক্ষতিগ্রস্ত হলে প্রয়োজনীয় ওষুধ দেওয়া হয়। পরে অগভীর সুইমিংপুলে ছেড়ে দিয়ে কচ্ছপ সাঁতারাতে পারে কি না, তা দেখা হয়। 

প্রাণী বিভাগের একুয়ারিয়ামে রেখে উদ্ধার করা কচ্ছপ বিমানে করে ফ্লোরিডায় পাঠানোর ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। স্বেচ্ছাসেবকেরা সুপারমার্কেট থেকে বাক্স সংগ্রহ করে আনছেন। একটি একটি করে বাক্স ভর্তি করে বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। বাক্সভর্তি কচ্ছপ দেওয়া হচ্ছে ফ্লোরিডাগামী যাত্রীবাহী এয়ারলাইনসের বিমানচালকের কাছে। ফ্লোরিডা বিমানবন্দর থেকে স্বেচ্ছাসেবকেরা সেই কচ্ছপগুলো সেখানকার সমুদ্রের উষ্ণ পানিতে ছেড়ে দিচ্ছেন। তবে একুয়ারিয়াম ​েজাগাড় করা ও কচ্ছপ নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন স্বেচ্ছাসেবকেরা। 

ওরাগন স্টেট ইউনিভার্সিটির প্রাণিবিদ্যা বিশেষজ্ঞ সেলিনা হ্যাপেল বলেছেন, সুমদ্রের পানির তাপমাত্রার দ্রুত পরিবর্তন কিংবা সমুদ্র স্রোতের পরিবর্তনের কারণে কচ্ছপের জীবন বিপন্ন হতে পারে।

চল্লিশের দশকে মেক্সিকো ও টেক্সাসের সমুদ্র উপকূলে ৮০ হাজার কচ্ছপের গর্ত ছিল। আশির দশকে এ সংখ্যা হাজারের নিচে নেমে আসার পর যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে কচ্ছপ সংরক্ষণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। ২০১২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের উপকূলীয় এলাকায় সাড়ে ১১ হাজার কচ্ছপের গর্ত শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রাণীপ্রেমিক স্বেচ্ছাসেবীরা শুধু কচ্ছপ সংরক্ষণের জন্য উপকূলীয় এলাকায় কাজ করে যাচ্ছেন।