শনিবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

লক্ষ্মী আমার বিপদ!

50724_fn1ডেস্ক রির্পোট:আমি যে একজন ‘লক্ষ্মী’ মানুষ তা কালাম আমাকে জানায় প্রথম। কালাম আমাদের মোড়ের ‘চলুন খাই’ রেস্তোরাঁর মালিক কাম ম্যানেজার। ওখানে প্রায় আড্ডা মারি আমরা বন্ধুরা। এক বিকালে কালামকে বললাম, ‘আমি যদি এখন ক্যাশে বসি, ১ ঘণ্টায় ৩ হাজার টাকা বিক্রি হবে।’ কালাম বলে, ‘অসম্ভব। বাজি।’ আমি বললাম, ‘বাজি। কি বাজি বলো।’ কালাম বললো, ‘বিক্রি হইলে আপনার জন্য ১ হাফ কাচ্চি ঠা-া বোরহানিসহ ফ্রি। আর না হইলে?’ আমি বললাম, ‘না হলে ২০০ টাকা তোমার।’ কালাম সরে এসে ওর ক্যাশ টেবিলের পাশের চেয়ারে বসলো। আমি বসলাম ওর চেয়ারে। ফুটবল রেফারির মতো ঘড়ি দেখে বললো, ‘শুরু।’ শুরু করলাম পাক্কা রেস্টুরেন্ট ম্যানেজারদের মতো কাস্টমারদের কাছ থেকে বিল নেয়া। এক ঘণ্টা শেষ হলো। বিক্রি হয়েছে ৩ হাজার ৫৩ টাকা। আমার দিকে বোকার মতো ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে হেসে দিলো কালাম। বলে, ‘আপনি একজন লক্ষ্মী মানুষ। বোয়ালের মধ্যে কালি বোয়াল যেমন, মানুষের মইধ্যে লক্ষ্মী মানুষ তেমন। সহজে দেখা মিলে না। আমার ১৫ বছরের এই দোকানে এই বিকাল সময়ে সর্বোচ্চ বিক্রি হইসে ৭৩০ টাকা। গত বছর। বসেন। কাচ্চির পাতিল আসতেছে। খেয়ে যাবেন।’ প্রথমে লক্ষ্মীত্বের বিষয়টি বিশ্বাস করিনি। বিশ্বাস করেছি ৭ দিন পর।  নিউ মার্কেটে এক রেডিমেড ড্রেসের দোকানে ঢুকেছি। সেলসম্যান ২ জন কাউন্টারে মাথা রেখে ঘুমাচ্ছে, ১ জন মোবাইলে গেম খেলছে। কাস্টমার তো দূরে, কাকপক্ষীও নেই। একটি ঝোলানো ড্রেস দেখিয়ে বললাম- ‘দেখানো যাবে?’ আলস্য ভরে হাই তুলে মোবাইল প্লেয়ার বলে, ‘দেখানো যাইবো না ক্যানো? দেখাইতেই তো বসছি।’ বলে দাঁড়িয়ে ড্রেসটা পাড়তে যাবে, হুড়মুড় করে ২ মহিলা, ৩ শিশু, ৪ পুরুষ, ৩ তরুণী একসঙ্গে দোকানে ঢুকে। একজন মহিলা আর দুইজন পুরুষ আমার পছন্দের ড্রেসটা নিয়ে কাড়াকাড়ি- নাড়াচাড়া শুরু করে। ঘুমন্ত সেলসম্যানরা ব্যস্ত হয়ে পড়ে। প্রাণ চঞ্চল হয়ে ওঠে মৃত দোকানটা। কাস্টমারদের ধাক্কায় ছিটকে দূরে গিয়ে হ্যাবলার মতো তাকিয়ে থাকি লক্ষ্মী আমি। সোবহানবাগের কবিরের ‘তেহারি ঘর’টা ঢাকার বিখ্যাত। আমি প্রায়ই যাই। আজও গেলাম। ঢুকে দেখি বসার জায়গা নেই। মানুষ গিজ গিজ করছে। দাঁড়িয়ে আছে অনেকে। কবির সম্মানের সঙ্গে বলে ওর পাশের টুলে বসে খেতে, যদি কিছু মনে না করি। আমি বসলাম। আর বিষয়টা ওকে জানালাম যে, ইদানীং লক্ষ্মী আমার ওপর ভর করেছে। মাথা নিচু করে কিছুক্ষণ ভাবলো সে। আমাকে সম্মান করে। কথাটা ফেলতেও পারছে না। তার কয়েকদিন পর। সন্ধ্যায় গিয়েছি কবিরের তেহারির দোকানে। ফাঁকা দোকান। এক জোড়া ছেলেমেয়ে শুধু কাঁটা চামচ দিয়ে তেহারি নাড়ছে আর চোখে চোখ রেখে হাসছে। একটি ফাঁকা টেবিলে বসলাম। অর্ডারই দিতে পারিনি, হুড়মুড় করে ডজন তিনেক কাস্টমার ঢুকলো। মনে হলো, দু’তিনটে কনফারেন্স সেরে লোকজন খেতে এসেছে। জায়গা নেই দোকানে। একজন তরুণী আমার গা ঘেঁষে আমার চেয়ারের অর্ধেক জুড়ে বসে পড়ে বলে, ‘বসি?’ আমি একটু সরে দেয়ালে নিজের গা চেপে ধরে বলি, ‘বসেন।’ দোকান ভরে গেছে। মানুষ পার্সেল নিচ্ছে একের পর এক। বিল দেয়ার সময় কবির খুব সিরিয়াস ভঙ্গিমায় কানে কানে বলে, ‘ভাইয়া। লক্ষ্মীর বিষয়টা আমিও টের পাইছি।’ বিপদে পড়লাম লক্ষ্মীকে নিয়ে। বন্ধু মারুফ আর আমি যাচ্ছি মারুফের গাড়িতে চড়ে। গ্যাস নিতে হবে। সিএনজি পাম্প সামনে। একেবারে খালি। গাড়ি রাস্তার জ্যামে আছে। সামনের ৮-১০টা গাড়ি চলে গেলেই বাঁয়ে মোড় নিয়ে ঢুকে যাবো খালি পাম্পে। কিন্তু আমার লক্ষ্মী তা হতে দিলো না। ১০টি গাড়ির সবগুলোই সোজা না গিয়ে লাইন ধরে বাঁয়ে পাম্পে ঢুকলো। ড্যাশ বোর্ডে মাথা রাখলাম লক্ষ্মী আমি।


একটি সিএনজি খুঁজছি। পেয়ে গেলাম। ওই তো সামনে। খালি। ড্রাইভার পায়ের ওপর পা তুলে সিগ্রেট ফুঁকছে আর মোবাইল ফোনে আকাশের দিকে তাকিয়ে রোমান্টিক মুডে কার সঙ্গে যেন কথা বলছে। কাছাকাছি হয়েছি মাত্র, ১০-১২ জন যাত্রী কোথা থেকে যেন কম্যান্ডো স্টাইলে এসে ঘিরে ধরলো সিএনজি স্কুটারটিকে। ওদেরকে সরিয়ে ঢুকতে যাবো, ড্রাইভার দরজা খুলে দিলো। দু’জনকে নিয়ে সিএনজি হাওয়া। মুখে আঙুল দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকি লক্ষ্মী আমি।


স্বর্ণার সঙ্গে নতুন একটু ইটিশ-পাটিশ সম্পর্ক হয়েছে আমার। বোকা টাইপ। কাল আমেরিকা যাবে। ইটিশ-পাটিশ মানে ভাল লাগালাগি। স্বর্ণা মহাখুশি। জীবনে নাকি কোন ছেলে ওকে এত ভাল লাগার কথা বলেনি। ৭ দিন হয়েছে মাত্র। স্বর্ণা মাথায় বাজ পড়ার মতো খবর দেয়। ওর বাসায় নাকি হঠাৎ ওর জন্য একের পর এক বিয়ের প্রস্তাব আসতে শুরু করেছে। মাসখানেক হলো। স্বর্ণা আমাকে ওর প্রিয় থাই রেস্টুরেন্টটায় ডাকে। চমৎকার সেজেছে। দু’জন বসে মেন্যু দেখে খাবারের অর্ডার দেই। আর তার পরপরই স্বর্ণা ভয়াবহ কথাটি বলে। আমার ওকে ভাললাগার পর থেকেই নাকি মৌমাছির মতো ঝাঁকে ঝাঁকে প্রস্তাব আসতে থাকে ওর জন্য। গত সপ্তাহে একটি ছেলেকে বাসার সবার পছন্দ হয়েছে। ছেলে ইঞ্জিনিয়ার। টরেন্টো থাকে। এটিতে রাজি না হলে নাকি স্বর্ণাকে বাসা থেকে বের করে দিতো। দিতো মানে? হ্যাঁ স্বর্ণা রাজি হয়ে গেছে। লক্ষ্মী আমি ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকি। ওয়েটারকে ডাক দিয়ে বিল দিতে বলি। ওয়েটার বলে-‘এখনও তো খাবারই দেইনি স্যার।’ আমি বললাম, ‘অসুবিধে নেই। যা অর্ডার দেয়া হয়েছে তার বিল নিয়ে এসো। বিল দিয়ে যাই, খাবার ম্যাডামকে সার্ভ করবে।’ স্বর্ণা বলে, ‘তুমি?’ আমি বলি, ‘আমার যথেষ্ট হয়েছে, খাবার এলে খেয়ে নিও।’ মনে মনে নিজেকে বলি- আর লক্ষ্মী হওয়া যাবে না, এবার থেকে অলক্ষ্মী হয়ে দেখতে হবে!

এ জাতীয় আরও খবর

ক্যানসার আক্রান্ত অভিনেত্রীর পাশে ফারহান

যুক্তরাষ্ট্রে ঈদ উদযাপনে গোলাগুলি, আহত ৩

ফিলিস্তিন রাষ্ট্রকে স্বীকৃতি দিতে প্রস্তুত স্পেন

গোর-এ-শহীদ ময়দানে ৬ লাখ মুসল্লির ঈদের নামাজ আদায়

একদিনে শীর্ষস্থান হারালেন মুস্তাফিজ

মায়ের জমানো টাকা ও গাড়ি বেচে সিনেমা, হল না পেয়ে কাঁদলেন নায়ক

অপরাজনীতি যেন চিরতরে দূর হয়, প্রার্থনা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

পরিবারের মুখে হাসি ফোটাতে আড়ালেই থাকে তাদের কষ্ট

শুধু বিএনপি নয়, পুরো দেশ দুঃসময় পার করছে : মির্জা ফখরুল

ঈদের আনন্দ থেকে কেউ যেন বঞ্চিত না হয় : রাষ্ট্রপতি

রোজায় এক হাজার ইফতার পার্টি করেছে বিএনপি : প্রধানমন্ত্রী

মিরপুর চিড়িয়াখানায় হাতির আঘাতে কিশোরের মৃত্যু