শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ওয়েবসাইটে জেএমবি’র হত্যার নির্দেশনা

6784_1_87974-copy-300x169ক্যাম্পাস প্রতবিদেক:মনিপুর হাই স্কুল ও কলেজের দুই শিক্ষককে হত্যায় সিøপার সেলের সদস্যদের গোপন আইপি ঠিকানাসহ একটি ওয়েবসাইট থেকে এই নির্দেশ দেয়া হয়।
এই ওয়েবসাইটে প্রবেশের জন্য ‘সিøপার সেলের’ সদস্যরা প্রত্যেকে ভিন্ন ভিন্ন পাসওয়ার্ডও ব্যবহার করে থাকে। কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ ও নির্দিষ্ট ব্যক্তিকে হত্যার নির্দেশের ক্ষেত্রে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি)-এর নেতারা গোপন আইপি (ইন্টারনেট প্রোটকল) ঠিকানা ব্যবহার করছে। ওই সেলের সদস্যরা কোনও নির্দিষ্ট লক্ষ্যে হামলার নির্দেশ পাওয়ার আগ পর্যন্ত লুকিয়ে থাকে। পুরো প্রক্রিয়াটিই তারা নির্বিঘেœ চালিয়ে যাচ্ছে আইনশৃংখলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে।
গত বুধবার জেএমবি সদস্য খোরশেদ আলম রুবেলকে জিজ্ঞাসাবাদে গোয়েন্দাদের কাছে এমন তথ্য উঠে এসেছে। রুবেল তিন দিনের রিমান্ডে রয়েছেন।
পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)-এর সূত্র বলছে, শুধু সংগঠনটির অল্প কয়েকজন সদস্যই এই নির্দিষ্ট আইপি এবং এর পাসওয়ার্ড দিয়ে ওই সার্ভারে প্রবেশ করে সেখানে জ্যেষ্ঠ নেতাদের আপলোড করা নির্দেশাবলী পড়তে পারে। রুবেলকে গ্রেফতারের পরপরই ওই ওয়েবসাইট বন্ধ পাওয়া গেছে। ডিবি কর্মকর্তারা দাবি করছেন, দ্রুত তারা এই সন্দেহভাজন জ্যেষ্ঠ জেএমবি নেতাদের একটি তালিকা করতে সক্ষম হবেন, যারা আড়ালে থেকেই স্লিপার সেলকে বিভিন্ন নির্দেশ দিয়ে যাচ্ছেন। এসব গোপন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে জেএমবি নেতারা তাদের কর্মীদের বিভিন্ন চোরাগোপ্তা হামলার নির্দেশের পাশাপাশি নিজেদের পরিচয় গোপন করে। এতে করে তারা নিজেদের এবং মাঠপর্যায়ের কর্মীদের মধ্যে এক ধরনের নিরাপদ দূরত্ব তৈরি করে। পুলিশ যার নাম দিয়ে ‘কাট আউট পদ্ধতি‘।
ডিবি পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম জানান, আন্তর্জাতিক বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনের অনুসরণে জেএমবি এই স্লিপার সেল গঠন করেছে। এর মাধ্যমে তারা রাষ্ট্রের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গের ওপর চোরাগোপ্তা হামলার ফন্দি আঁটছে। পুলিশ তাদের এই কৌশল সম্পর্কে সচেতন আছে। তাদের এই অপচেষ্টা নস্যাতের জন্য যথাযথ পদক্ষেপও নেওয়া হয়েছে।
ডিবি পুলিশের অতিরিক্ত ডেপুটি কমিশনার (উত্তর) মাহফুজুল ইসলাম বলেন, “গ্রেফতারকৃত রুবেলের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পুলিশ এরইমধ্যে বিভিন্ন যায়গায় অভিযান শুরু করেছে। শুক্রবার সকালে রুবেল আমাদের রাজধানীর দক্ষিণখান এলাকার এক প্রত্যন্ত অঞ্চলে নিয়ে গিয়েছিল। সেখানে এক মাস আগে সে এবং দুই জেএমবি নেতা তিনটি রুম ভাড়া করে থাকতো।” পুলিশ ওই স্থানে গিয়ে সেই রুম ফাঁকা দেখতে পায় বলে জানান তিনি।  তিনি আরও জানান, ওই বাড়ির মালিক রুম ভাড়া দেওয়ার সময় ভাড়াটিয়াদের কোনও তথ্য জানেননি। রুবেলের তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ আরও বেশ কিছু জায়গায় অভিযান চালাবে বলেও জানান তিনি।
উল্লেখ্য, গত বুধবার মিরপুর ফ্লাইওভারের কাছে একটি সিএনজি অটোরিক্সা থেকে জেএমবি রুবেলকে গ্রেফতার করে। ফ্লাইওভারের কাছে একটি চেকপোস্ট অতিক্রম করার সময় পুলিশ রুবেলের ব্যবহƒত সিএনজি অটোরিক্সাটিকে থামতে বলে। কিন্তু এসময় অটোরিক্সাটির ভেতর থেকে রুবেলসহ আরো কয়েকজন জেএমবি সদস্য অতর্কিতভাবে পুলিশের ওপর গুলি চালায়। এতে এক পুলিশ সদস্যসহ একজন পথচারী আহত হন। পুলিশও তাদের দিকে পাল্টা গুলি চালালে রুবেল আহত হন। এসময় অন্যরা রুবেলকে ফেলে পালিয়ে যায়।