শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হিসাবের যত গরমিল

untitled-19_92712ডেস্ক রিপোর্ট : সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতি বছর কত মানুষ প্রাণ হারান তার সঠিক তথ্য নেই কারও কাছেই। সরকারি হিসাবে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতি বছর নিহতের সংখ্যা এখন দুই হাজারের নিচে। পুলিশের হিসাবে সংখ্যাটি প্রায় ৪ হাজার। বিশ্বব্যাংকের হিসাবে ১২ হাজার আর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) হিসাবে বছরে এই সংখ্যা ১৭ হাজার।
কোন সংখ্যাটি সঠিক? সরকারি হিসাবে বছর বছর কমছে হতাহতের সংখ্যা। কিন্তু যে সংস্থাটি সড়ক দুর্ঘটনা ও নিহতের সরকারি সংখ্যা প্রকাশ করে, তারা নিজেরাই এ তথ্য বিশ্বাস করে না। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউট (এআরআই) সড়ক দুর্ঘটনার প্রতিবেদন প্রকাশ করে। তাদের হিসাবে ২০০৮ সাল থেকে কমছে দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা। ২০১৩ সালে মৃতের সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৯০০তে।
এআরআইর পরিচালক অধ্যাপক ড. তানভীর হাসান নিজেই বলেন, ‘যে সংখ্যা প্রতিবেদনে আছে মৃতের প্রকৃত সংখ্যা তার চেয়ে বেশি। ২০০৮ সাল থেকে প্রতি বছর দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা কমছে। কিন্তু সাত বছরে আমরা এমন কী করতে পেরেছি যে দুর্ঘটনা কমে গেছে’থ পাল্টা প্রশ্ন তার। তিনি বলেন, ‘আমাদের ধারণা সড়ক দুর্ঘটনায় বছরে মৃতের সংখ্যা পাঁচ হাজারের কাছাকাছি।’
সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, গত ১২ অক্টোবর রোববার একদিনে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় ৩২ জনের। ১৩ অক্টোবর সংখ্যাটি ২১। গতকাল শুক্রবার ছুটির দিনে ছয় জেলায় মৃত্যু হয় ১২ জনের। সংবাদপত্রে প্রকাশ হয় না বা মামলা হয় না এমন মৃত্যু তালিকায় আসে না বলে স্বীকার করেন ড. তানভীর হাসান। গ্রামীণ এলাকার অনেক মৃত্যুই তালিকাভুক্ত হয় না। নানা তথ্য-উপাত্ত দিয়ে বলা যায় প্রতিদিন গড়ে ১৫ থেকে ১৬ জনের প্রাণ যায় দুর্ঘটনায়। সেই হিসাবে বছরে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার।
পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের হিসাবে, গত ১৫ বছরে দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় ৭০ হাজার মামলা হয়েছে। এসব দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা প্রায় ৫৫ হাজার। অর্থাৎ বছরে প্রায় ৪ হাজার। বিশ্বব্যাংকের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশে প্রতি বছর সড়কে মৃত্যু হয় ১২ হাজার মানুষের। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) প্রকাশিত সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, ২০১২ সালে বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ১৭ হাজার ২৮৯ জনের। বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ১৪তম। সবচেয়ে বেশি চীনে। দেশটিতে বছরে ২ লাখ ৪৫ হাজার মানুষ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন। হুর হিসাবে বাংলাদেশে প্রতি বছর ১০ হাজার যান্ত্রিক যানবাহনের ১০৬টি ছোট-বড় দুর্ঘটনার শিকার হয়। হুর এ সংখ্যাকে অতিরঞ্জিত বলে অভিযোগ করেছে এআরআই। সংস্থাটির পরিচালক বলেন, ‘হু কিসের ভিত্তিতে এ প্রতিবেদন করেছে তা আমাদের জানা নেই। এই সংখ্যা অবশ্যই সঠিক নয়। বাংলাদেশে অধিকাংশ দুর্ঘটনার বিপরীতে মামলা হয় না। অনেক ক্ষেত্রে প্রাণহানি হলে তবে মামলা হয়। এখন একে আমরা তালিকাভুক্ত করি। দেশীয় প্রতিষ্ঠান হিসেবে এআরআই যদি তথ্য না পায় তাহলে হু কীভাবে পায়।’
গত পাঁচ বছরে যানবাহনের সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। চলতি বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশে নিবন্ধিত মোটর যানের সংখ্যা ২১ লাখ ৫ হাজার ১৪০টি। এআরআইর তথ্য অনুযায়ী, দেশের ৭০ ভাগ যাত্রী মহাসড়ক ব্যবহার করেন। ৩৭ ভাগ দুর্ঘটনা ঘটে মহাসড়কগুলোতে, ১২ ভাগ আঞ্চলিক সড়কগুলোতে, ১৫ ভাগ ফিডার সড়কে।
বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাক ও পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টারের (পিপিআরসি) প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, দুর্ঘটনার ২৮ ভাগ ঘটছে মহাসড়কে গড়ে ওঠা বাজারে, ১৮ শতাংশ সড়কের মোড়ে। প্রতিবেদনে দুর্ঘটনার জন্য বেপরোয়া গাড়ি চালানো ব্যক্তিদের শাস্তি না হওয়া, ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন, ট্রাফিক ব্যবস্থার দুর্বলতাসহ ৯ কারণকে এ জন্য দায়ী করা হয়। পিপিআরসির চেয়ারপারসন ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, নিহতের সরকারি সংখ্যা বিশ্বাসযোগ্য নয়। বাংলাদেশের সড়ক এখন মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে। পিপিআরসির চিহ্নিত ২০৯টি ব্ল্যাকস্পট দূর করার তাগিদ দেন তিনি।
এআরআইর পরিসংখ্যান অনুযায়ী, সড়ক দুর্ঘটনার ঘটনায় দেশের বিভিন্ন থানায় গড়ে প্রতিদিন ১৫টি করে মামলা হয়। এর বাইরে অনেক দুর্ঘটনা ঘটলেও ভুক্তভোগীরা ঝামেলা এড়াতে মামলা করেন না। এআরআই তাদের গবেষণায় দুর্ঘটনার জন্য ১৭টি কারণ চিহ্নিত করেছে। এর মধ্যে অন্যতম কারণগুলো হলোথ রাস্তার ব্ল্যাকস্পট বা ত্রুটি, অদক্ষ চালক, সড়কের তুলনায় গাড়ির সংখ্যা বেশি, বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানো, রাস্তার জ্যামিতিক ত্রুটি, নেশাগ্রস্ত হয়ে গাড়ি চালানো, পথচারী ও যাত্রীদের অসাবধানতা।
মহাসড়কে শতকরা ৭৬ ভাগ দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে মুখোমুখি সংঘর্ষের কারণে দুর্ঘটনা ঘটে। রাস্তায় ডিভাইডার না থাকার কারণেই বিপরীতমুখী যানবাহনের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। সড়ক দুর্ঘটনার আরেক কারণ রেলের অরক্ষিত লেভেলক্রসিং। দেশের আড়াই হাজার লেভেলক্রসিংয়ের মাত্র ৩৮৭টিতে লাইনম্যান রয়েছে।