বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সদর উপজেলার বুধল ইউপির থেকে ভুয়া গোয়েন্দা পুলিশ আটক

Voa-DV-1-206x300Voa-DV-2-212x300প্রতিনিধি : গোয়েন্দা পুলিশের(ডিবি) পরিচয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার বুধল ইউনিয়নের জংগলীসার গ্রাম থেকে এক ব্যাক্তিকে অপহরন করে নেয়ার চেষ্টা হয়েছে। তাতে ব্যর্থ হয়ে মোখলেছুর রহমান নামে ঐ ব্যাক্তিকে মারধোর করা হয়। পরে এলাকাবাসী গোয়েন্দা পুলিশ পরিচয়দানকারী অপহরনকারীদের আটক করলে ভুয়া গোয়েন্দা পুলিশের সাঙ্গপাঙ্গরা ধারালো অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে  গ্রামবাসীর ওপর হামলা চালায়। এতে আহত হয় ৯ জন ।

গত ৭ অক্টোবরের এ ঘটনায় মোখলেছুর রহমান ৪১জনকে আসামী করে পরদিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় একটি মামলা দেন। মামলার এজাহারে বলা হয় জংগলীসার বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বিষয়ে আসামীদের সঙ্গে মোখলেছুর রহমান ও গ্রামের অন্যান্য লোকজনের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এনিয়ে একাধিক মামলা মোকদ্দমা হয় আসামীদের বিরুদ্ধে। এরমধ্যে দুটি মামলায় আসামীরা হাজতবাস করে। সম্প্রতি জামিনে বেড়িয়ে গ্রামে এসে তারা বলতে থাকে আরেকবার আদালতে হাজিরার পূর্বে ১/২ জনের লাশ ফেলে গুম করবে।

এরপরই গত ৭ ই অক্টোবর দুপুরে ৩ যুবক বুধল বাজারের তাজু মিয়ার দোকানে গিয়ে নিজেদের ডিবি পুলিশ  পরিচয় দিয়ে মোখলেছুর রহমানের খোজ করে। তাজু মিয়ার কাছ থেকে মোখলেছ মফিজের চায়ের দোকানে আছে জানতে পেরে সেখানে এসে ঐ ৩ যুবক মোখলেছুর রহমানকে তাদের সঙ্গে ডিবি অফিসে যেতে বলে। তাদের কথাবার্তায় সন্দেহ হয় মোখলেছের। মোখলেছ তাদেরকে জানায় সে ডিবি ও থানার পুলিশ কর্মকর্তাদের সবাইকে চিনে। মডেল থানার ওসির সঙ্গে কথা বলে সে কি করবে তা জানাবে-এই কথা বলার পর ঐ ৩ যুবক তার ওপর চড়াও হয়। মারধোর করে তাকে। পরে এলাকার লোকজন তাদের আটক করে। ইউপি চেয়ারম্যান এলাকায় না থাকায় সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি তৈয়বুর রহমানকে খবর দিয়ে সেখানে এনে যুবকদের তার নিকট সোপর্দ করা হয়। তৈয়বুর রহমান তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে থাকলে আটক যুবকরা একেক বার একেক রকম তথ্য দিতে থাকে। তাদের বাড়ি কখনো ব্রাহ্মণবাড়িয়া,কখনো আশুগঞ্জ,কখনোবা ভৈরব বলে জানায়। এরই মধ্যে এক যুবক পালিয়ে যায়। এই অবস্থায় বাকী দু-যুবককে পুলিশে দিতে থানায় খবর দেয়া হলে তাদের আত্বীয় মামলার আসামীরা তাদেরকে ছাড়িয়ে নিতে সেখানে এসে অতর্কিতে হামলা চালায়। এসময় দা দিয়ে কুপিয়ে বিল্লাল মিয়া,আলী আহম্মদ,কবির মিয়া,সুবুর মিয়া,শরীফ মিয়া,সাকিব আহম্মদ,জাকির হোসেন,ছাদির হোসেন,সাব্বির মিয়া নামের ৯ জনকে আহত করে। তাদেরকে জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। হামলার সময় মফিজের চায়ের দোকান থেকে ২০ হাজার টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় মোখলেছুর রহমান বাদী হয়ে পরদিন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় মমিন মিয়াকে প্রধান আসামী করে ৪১ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দেন। মামলার অন্যান্য আসামীরা হচ্ছেন গিয়াস উদ্দিন,জালাল উদ্দিন,মন মিয়া, ফেরদৌস, আসাদ মিয়া, শাহআলম,নুর আলম,জুলহাস,মহিন উদ্দিন,হাবিব মিয়া,বাদল মিয়া,আবুল খায়ের,আনোয়ার হোসেন,হামিদ মিয়া,উজ্জল মিয়া,জামাল মিয়া,ফিরোজ মিয়া,হেলাল মিয়া,মন মিয়া,শাহেদ মিয়া। পুলিশ জালাল নামে এ মামলার এক আসামীকে গ্রেফতার করেছে।