রবিবার, ৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চামড়ার মূল্য কম নির্ধারণে ভারতে পাচারের আশঙ্কা

file8-300x200কোরবানির মওসুমে চামড়ার মূল্য কম নির্ধারণ করায় ভারতে চামড়া চলে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। পশুর চামড়ার দর আগের বছরের তুলনায় কম নির্ধারণ করায় ভারতের মারোয়াড়িদের সুযোগ করে দেয়া হচ্ছে। সারা বছর ধরেই উত্তরবঙ্গের কয়েকটি পয়েন্ট দিয়ে ভারতে চামড়া পাচার হচ্ছে। আর এবার গত বছরের তুলনায় প্রতি বর্গফুট কাঁচা চামড়ার দাম কম নির্ধারণের কারণে মওসুমি ব্যবসায়ীদের সহায়তায় এসব চামড়া ভারতে মারোয়াড়িদের হাতে সহজেই চলে যাবে বলে জানিয়েছেন নাটোরের চামড়ার আড়ত ব্যবসায়ীরা। আর রফতারিকারকেরা বলছেন, আন্তর্জাতিক বাজারে দরপতনের কারণে এবং অফ মওসুমে কোরবানির ঈদ হওয়ায় চামড়া রফতানি নিয়ে অনেকটা শঙ্কার মধ্যে রয়েছেন তারা। 
জানা যায়, বর্তমানে দেশের চামড়ার বাজার সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকার। এই কোরবানির ঈদের মওসুমি ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ৫০ শতাংশ বিনিয়োগ আসে। আমাদের স্থানীয় বাজারে চামড়ার ব্যবহার বাড়ছে। যার কারণে এখন দেশেই প্রায় ২৫-৩০ শতাংশ স্থানীয় চামড়ার ব্যবহার হচ্ছে। গড়ে উঠেছে অনেক শিল্প। দেশের চামড়া ব্যবসায় ঢাকার পোস্তার পরেই নাটোরের অবস্থান। নাটোরের চামড়া ব্যবসায়ীদের শতাধিক আড়তে প্রায় দেড় হাজার শ্রমিক কাজ করছে। নাটোরের আড়ত থেকে ঢাকার কালাম ট্যানারিজ, এপেক্স ট্যানারিজ, বুলুয়া ট্যানারিজ, বিএলসি ট্যানারিজ, সামিয়া ট্যানারিজ, রহমান লেদার, আজিক ট্যানারিজ, ঢাকা ট্যানারিজ এবং বে ট্যানারিজ নাটোর থেকে সবচেয়ে বেশি চামড়া কিনে থাকে। ছোট ছোট চামড়া ব্যবসায়ী আর ফড়িয়ারা বিভিন্ন এলাকা থেকে চামড়া কিনে নাটোরের আড়তে সরবরাহ করে। 
বাংলাদেশের চামড়ার ক্রেতা হচ্ছে ইতালি, স্পেন, দক্ষিণ কোরিয়া, হংকং, চায়না ও জাপান। দেশে সারা বছর যে চামড়া আসে তার ৪০ থেকে ৪৫ শতাংশ সংগ্রহ হয় শুধু কোরবানির ঈদের সময়। দেশে চামড়ার বাজার এখন সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকার। কোরবানির ঈদ থেকে প্রতি বছর ৪০ লাখ পিস চামড়া পাওয়া যায়। এবার ৮৫ থেকে ৯০ লাখ কোরবানির সম্ভাবনা। যার মধ্যে গরু ৬০-৬৫ লাখ পিস ও খাসি ২০-২৫ লাখ পিস। 
ব্যবসায়ীরা বলছেন, কোরবানির ঈদকে কেন্দ্র করে ভারতীয় মারোয়াড়ি ব্যবসায়ীরা বেশ তৎপর। এখানকার কোরবানির পশুর চামড়া তারা পাচার করে নিয়ে যাওয়ার জন্য বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে। এদের সাথে আমাদের দেশের এক শ্রেণীর ব্যবসায়ীরাও জড়িত। তারা ভারতীয় ব্যবসায়ীদের সাথে যোগসাজশে এই কাজগুলো করে থাকে। 
মাঠপর্যায়ের নাটোরের চামড়া ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান জানান, ঢাকা থেকে যে দর ঠিক করা হয় শেষ পর্যন্ত সে দামে চামড়া বিক্রি করা যায় না। কারণ কাঁচা চামড়ার প্রক্রিয়াকরণ একটা খরচ আছে। তিনি বলেন, টাকা ও আমদানির ওপর নির্ভর করছে এখানকার বাজার। এটা বাংলাদেশের প্রধান কাঁচা চামড়ার আড়ত। ঈদ মওসুম বাদে সারা বছর গরুর চামড়া মান ভেদে বিক্রি হয়েছে ৬০ থেকে ১২০ টাকা প্রতি বর্গফুট। আর এখন ঢাকা থেকে যা নির্ধারণ করেছে তাতে বিক্রি করা সম্ভব না। 
মিজান বলেন, উত্তরবঙ্গের নীলফামারী, ঠাকুরগাঁও সীমান্ত দিয়েই সারা বছর চামড়া বেশি পাচার হয়ে থাকে। বাংলাদেশের কোরবানির পশুর চামড়া অনেক বেশি মানসম্পন্ন। তাই ভারতীয় ব্যবসায়ীরা এই চামড়াগুলো কেনার জন্য কৌশল খুঁজে। আর তারা আমাদের ঈদ মওসুমের ব্যবসায়ীদের ব্যবহার করে থাকে। কিন্তু প্রকৃত ব্যবসায়ীরা কিছুটা দরকষাকষি করে হলেও নিজের দেশেই রেখে দেয়। তবে ছাগলের চামড়ার দর কম থাকায় এই চামড়াগুলো ভারতেই চলে যায়। গত বছর এসব ৭০-৭৫ টাকা দর ছিল। এখন তা ৪০-৪২ টাকা। ফলে কেউ লোকসান দিয়ে ব্যবসায় করতে চাইবে না। 
বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের শাহিন আহমেদ জানান, আন্তর্জাতিক বাজারে চামড়ার দর কমেছে। তাই এবার আমাদের কম দামেই চামড়া কিনতে হবে। অনেক বিদেশী ক্রেতা গত পাঁচ-ছয় মাস বাংলাদেশ থেকে চামড়া কেনা বন্ধ করে দিয়েছে। আর বিশেষ করে এবার কোরবানির ঈদ হচ্ছে অফ মওসুমে। যার কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে চামড়া বিক্রি করা কঠিন হয়ে যাবে। তিনি বলেন, সামনে সামার চলে আসছে। ডিসেম্বরে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলো এবং আমেরিকায় চামড়া কেনা বন্ধ থাকবে। যার কারণেই আমরা এবার ঢাকার বাইরে গত বছরের তুলনায় প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া ৬০-৬৫ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছি।

এ জাতীয় আরও খবর

বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে হত্যা মামলার আসামিকে কুপিয়ে খুন

সরকারের উন্নয়নের ফানুস ফুটো হয়ে যাচ্ছে: সাকি

কিয়ারা আপনার প্যান্ট কোথায়, প্রশ্ন নেটিজেনদের

হাঁটুর অস্ত্রোপচারের পর দোয়া চাইলেন শোয়েব আখতার

চীন সীমান্তে সামরিক মহড়া চালাবে যুক্তরাষ্ট্র-ভারত

শিল্পাঞ্চলে আলাদা সাপ্তাহিক ছুটির ভাবনা

সরকার নিরুপায় হয়ে জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে : কাদের

মিরাজের শিকারে জিম্বাবুয়ের তৃতীয় উইকেট

পুলিশের গাড়িতে বাসের ধাক্কা, কনস্টেবলের প্রাণ গেল

দারুণ ফিফটির পর তামিমের বিদায়

‘যাত্রী প্রতিনিধি ছাড়াই বাস ভাড়া নির্ধারণ করা হয়’

বাংলাদেশের ৯৯ শতাংশ পণ্যের শুল্কমুক্ত সুবিধা দেবে চীন