শনিবার, ২০শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সার্কিট হাউজ ব্যবহারের অনুমতি মিলে ৪ দিন পর, পাকশাক করা নিষেদ

circit housআমিরজাদা চৌধুরী: বিএনপি চেয়ারপারসন ও ২০ দলীয় জোট নেত্রী সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ব্রাহ্মণবাড়িয়া সফরকালে জেলা প্রশাসনের অসহযোগিতা ছিলো। এই অভিযোগ মিলেছে জেলা বিএনপি’র নেতাদের কাছ থেকে। তারা বলেন নেত্রী আসার আগে এনিয়ে তারা মুখ খুলতে চাননি। নিরবে সহ্য করেছেন। জেলা বিএনপি নেতাদের অভিযোগ, সার্কিট হাউজ ব্যবহারের অনুমতি পেতে তাদের বেগ পেতে হয়েছে। ২/৩ দিন চেষ্টার পর সার্কিট হাউজ ব্যবহারের অনুমতি মিললেও চাহিদা মতো কক্ষ দেয়া হয়নি। তবে অতিথি আপ্যায়নে সার্কিট হাউজে পাকশাকে ছিলো নিষেদাজ্ঞা। উল্লেখ্য,মঙ্গলবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া সফরকালে কিছু সময়ের জন্যে খালেদা জিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া সার্কিট হাউজে উঠেন। তিনি এখানে মধ্যহ্নভোজ সারেন। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং ২০ দলীয় জোটের কেন্দ্রীয় নেতারা তার সফরসঙ্গী ছিলেন। পর্যাপ্ত রুম না পাওয়ায় তাদের দূর্ভোগ পোহাতে হয়। জেলা বিএনপি নেতারা এই অভিযোগ করে জানান, প্রথমে জেলা প্রশাসন সার্কিট হাউজ ব্যবহার করতে দেবেনা বলে দৃঢ় অবস্থানে ছিলো। পরে শুধু খালেদা জিয়ার জন্যে একটি কক্ষ বরাদ্দ দিতে সম্মত হয় । তার সফরসঙ্গী কেন্দ্রীয় নেতাদের জন্যে কোন কক্ষ বরাদ্দ দিতে চাচ্ছিলেন না তারা। জেলা বিএনপি নেতারা এনিয়ে চাপ সৃষ্টি করলে কয়েকটি কক্ষ বরাদ্দ দেয় প্রশাসন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর বিএনপি’র সভাপতি এডভোকেট শফিকুল ইসলাম জানান, দলের চেয়ারপারসন আসবেন বলে তারা সার্কিট হাউজ বরাদ্দ পেতে ১৮ ই সেপ্টেম্বর প্রথম জেলা প্রশাসক ড: মুহম্মদ মোশাররফ হোসেনের  সঙ্গে যোগাযোগ করেন। সার্কিট হাউজ ব্যবহারের অনুমতি পান তারা ২১ শে সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায়। ১৮ তারিখের পর থেকে প্রতিদিন জেলা বিএনপি’র ১০/১২ জন করে নেতা জেলা প্রশাসকের সঙ্গে স্বাক্ষাত করেন। তখন তাদেরকে বলা হয় বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসন বিভাগীয় কমিশনারের সঙ্গে যোগাযোগ করছে। সেখান থেকে রিপ্লাই না আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। পরে কক্ষ বরাদ্দ দেয়া হয়। কিন্তু  আমাদের চাহিদামতো কক্ষ পাইনি। তবে নেত্রীর ব্যবহারের জন্যে ডায়েনিং স্পেসসহ যে কক্ষটি চেয়েছিলাম সেটি আমাদেরকে দেয়া হয়েছে। তিনি আরো জানান, কক্ষ বরাদ্দ দেয়া হলেও সার্কিট হাউজে খাবার পাকশাক না করার জন্যে নিষেদ করা হয়। বিএনপি চেয়ারপারসনসসহ আরো কয়েকজনের খাবার রান্না করে আনা হয় জেলা বিএনপি’র অন্যতম নেতা ইঞ্জিনিয়ার খালেদ হোসেন মাহবুব শ্যামলের বাসা থেকে। বাকী আরো প্রায় একশো অতিথির খাবার রান্না করা হয় অন্যত্র। শফিকুল ইসলাম বলেন আমরা চেয়েছিলাম সার্কিট হাউজের বাবুর্চি দিয়ে পাকশাক করাতে। কিন্তু অনুমতি না থাকায় সম্ভব হয়নি। তবে বাইরে থেকে রান্নাবান্না করে আনা খাবার পরিবেশনে তাদের আপত্তি নেই বলে আমাদেরকে জানানো হয়। তিনি আরো বলেন বিষয়টি নিয়ে নেত্রী আসার আগে আমরা মুখ খুলতে চাইনি। সব সহ্য করে নিয়েছি। সব মিলিয়ে নেত্রীর সফরসঙ্গী হয়ে আসা একশো অতিথিকে সার্কিট হাউজে আপ্যায়ন করা হয় বলে জানান তিনি। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসনের নেজারত ডেপুটি কালেকটর (এনডিসি)সাব্বির আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন সার্কিট হাউজ ব্যবহারের অনুমতি দেয়া হচ্ছিলনা এরকম কথা আমি শুনিনি। আর খাবার দাবারের ব্যবস্থা উনারা চাননি। নিজেরা রান্নাবান্না করে নিয়ে এসেছেন। তিনি দুটি রুম বরাদ্দ দেয়ার কথা জানান। বলেন সার্কিট হাউজে তার স্বল্প সময়ের জন্যে ছিলেন। ঐ সময় ফ্রেশ হয়েছেন।