বৃহস্পতিবার, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কোটি কোটি টাকার প্যাকেজ ডিল ॥ জামায়াত-বিএনপির সন্ত্রাসীরা যেভাবে জেলের বাইরে

এবার প্যাকেজ সন্ত্রাস। প্যাকেজ রয়েছে কোটি কোটি টাকার প্রলোভন হাতছানি। বিএনপি-জামায়াতের এই প্যাকেজ ডিল দিয়ে অতীতের সকল কুকর্ম, সন্ত্রাস ও জঙ্গী তৎপরতার নামে চালানো ধ্বংসযজ্ঞে ধরা পড়ে আসামি হয়েছিল তা থেকে বেরিয়ে আসা। এখান থেকে বেরিয়ে আসতে বা মুক্তি পেতে বাদী পক্ষ বা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের টাকা দিয়ে ঘায়েল করতে এই অঘোষিত প্যাকেজ নিয়ে মাঠে নামা আর তাই চাঁপাই নবাবগঞ্জ অঞ্চলের বৃহত সীমান্ত উপজেলা শিবগঞ্জে আবারও বড় ধরনের সহিংসতার আশঙ্কা করা হচ্ছে। শুধু অপেক্ষা মামলা থেকে অব্যাহতি পাওয়া বিএনপি-জামায়াত নিয়ন্ত্রিত এই উপজেলাটি সন্ত্রাসের জনপদ হিসেবে জেলায় পরিচিত। ২০১৩ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি যুদ্ধাপরাধী মামলায় সাঈদীর ফাঁসির রায় ঘোষণার দিন থেকেই হয়ে উঠে উত্তপ্ত। শুরু হওয়া সন্ত্রাস আর তা-বে জেলা থেকে বিছিন্ন হয়ে পড়ে শিবগঞ্জ। গান পাউডার ব্যবহার করে দেশের অন্যতম বৃহত্তম কানসাট পল্লীবিদ্যুত কেন্দ্রসহ সোনামসজিদ বন্দর সংলগ্ন অত্যাধুনিক পর্যটন কেন্দ্র যা উদ্বোধনের অপেক্ষায় ছিল পুড়িয়ে দেয়া হয়। নির্মমভাবে হত্যা করা হয় একেবারে নিরপরাধ পর্যটন কেন্দ্রে কর্তব্যরত এক তরুণ প্রকৌশলীকে। এছাড়াও স্বাধীনতার পক্ষের ব্যক্তিবর্গের বাড়িঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান লুটকরাসহ পুড়িয়ে দেয়া হয় বিভিন্ন অবকাঠামো। এই সময়ে সন্ত্রাসীদের প্রতিরোধ করতে শিবগঞ্জ পুলিশ, টিএনও ও জেলা প্রশাসন ব্যর্থ হয়। অনেকের অভিমত, প্রশাসন কৌশলে সস্ত্রাসীদের সহযোগিতা করে। পরবর্তীতে সরকার কঠোর অবস্থানে যাবার পর পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হলেও দীর্ঘ সময় ধরে বিএনপি জামায়াতের সন্ত্রাসে একেবারে ল-ভ- হয়ে যায় শিবগঞ্জসহ পার্শ্ববর্তী উপজেলার কয়েক হাজার পরিবারের স্বাভাবিক জীবন যাত্রা। এদের প্রায় সকলেই স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি। খুবই আওয়ামী লীগ অনুগত হবার কারণেই তারা বিএনপি-জামায়াতের প্রধান টার্গেট হয়ে পড়ে। শুরু হয়ে যায় চোরাগোপ্তা হামলা ও হাত-পায়ের রগ কেটে পঙ্গু করে দেয়া। পাশাপাশি নিরাপত্তার অভাব বোধ করায় আওয়ামী লীগের একাধিক ব্যক্তি ও পরিবার এলাকা ছেড়ে নিরাপদ দূরত্বে চলে যায়। যারা একেবারে অসহায় কোথাও যাবার সামর্থ্য নেই তারা পরবর্তীতে অর্থাৎ ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর এদের হামলার মুখে পড়ে নিহত অথবা পঙ্গু হয়ে আশ্রয়স্থল হয় ঢাকার পঙ্গু হাসপাতাল। বিশেষ করে ২০১৩ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি পরবর্তী ও ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে পরবর্তী নিহত কিংবা পঙ্গু হয়ে যাবার পর মামলা করেছিল, সেই সব মামলা নিষ্পত্তি কিংবা আপোসে বিএনপি-জামায়াত বর্তমানে কোটি কোটি টাকার অঘোষিত প্যাকেজ নিয়ে মাঠে নেমেছে। এই টাকার পরিমাণ কয়েকগুণ বেশি হতে পারে বলে বিভিন্ন সূত্র হতে জানা গেছে। মূলত অনেক আগে থেকেই শিবগঞ্জ আর্থিকভাবে খুবই সমৃদ্ধ উপজেলা। দেশের একমাত্র বৃহত্তম আমের বাজার এই উপজেলায় অবস্থিত। এ ছাড়াও সীমান্ত হবার কারণে দীর্ঘ সময় ধরে বড় মাপের চোরাকারবারি যারা সোনা, অস্ত্র ও মাদকের ব্যবসার সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে সম্পৃক্ত। এদের একেবারে নিভৃত বিচ্ছিন্ন পল্লী এলাকায় রয়েছে রিসোর্ট স্টাইলের বাসভবন ও বাড়িঘর। বিশেষ করে ১৯৯০ সালে এই উপজেলার মধ্যেই সোনামসজিদ স্থলবন্দরের যাত্রা শুরু হলে চোরাকারবারিরা আরও বেপরোয়া হয়ে ভোল পাল্টে রাতারাতি সিএন্ডএফ এজেন্ট নতুবা আমদানি রফতানিকারক বনে গিয়ে পুরো চেরাচালান ব্যবসাটাকে নিয়ে যায় বন্দরে। বৈধ পণ্যের আড়ালে কোটি কোটি টাকার অবৈধ পণ্য এনে তারা রাতারাতি টাকার পাহাড় গড়ে তোলে। এই সব নব্য অঢেল টাকার মালিক চোরাকারবারি ও অর্থশালী আমবাগান মালিকদের অধিকাংশ কোন না কোনভাবে স্বাধীনতাবিরোধী, মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষের শক্তির সঙ্গে হাত মিলিয়ে রাজনৈতিক নেতা বনে গিয়ে সেইসব দলকে অঢেল অর্থের যোগান দিয়ে যাচ্ছে। পাশাপাশি যোগ্য নেতৃত্ব ও অর্থের অভাবে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা পক্ষের দলগুলো অনেকটাই দুর্বল হয়ে পড়েছে। ফলে পুরো শিবগঞ্জ অঞ্চলে বিএনপি ও জামায়াত তাদের আধিপত্য বিস্তার করে নানান প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলে কর্মীদের পুনর্বাসন করে রেখেছে। গড়ে উঠেছে জামায়াত-বিএনপির দুর্ভেদ্য দুর্গ। এই দুর্গ হতেই এখন তাদের অপকর্মের মামলাগুলো ধামাচাপা ও আপোসে নিয়ে আনতে মোটা অঙ্কের অর্থটোপ ফেলেছে। ইতোমধ্যে এই টোপ গিলতেও শুরু করেছে বাদীপক্ষের লোকজন। সম্প্রতি আওয়ামী লীগ নেত্রী ও মোবারকপুর ইউনিয়ন পরিষদের ওয়ার্ড সদস্য নূরজাহান বেগমের হাত-পায়ের রগ কর্তন মামলায় আসামিদের জামিন মঞ্জুর হবার ঘটনায় তোলপাড় পড়ে যায় সকল মহলে। পিপি এ্যাডভোকেট জোবদুল হক জনকণ্ঠকে জানান, আদালতে বাদী নূরজাহান বেগম ও তার মা মারিজা বেগম হাজির হয়ে আসামিদের জামিনে তাদের কোন আপত্তি নেই বলায় আদালত বাধ্য হয়ে আইনের আওতায় আটকিয়ে রাখার কোন বিকল্প খুঁজে না পেয়ে জামিন মঞ্জুর করেন। এই মামলার প্রধান আসামি বিএনপির প্রভাবশালী নেতা মোবারকপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তৌহিদুর রহমান মিঞা, এছাড়াও মূল পরিকল্পনাকারী নাহিদসহ ১৪ জন আসামি আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন প্রার্থনা করলে জামিন হয়ে যায়। গত ২২ জানুয়ারি শিবগঞ্জ উপজেলার কলাবাড়ি নামক স্থানে প্রকাশ্যে দুর্বৃত্তরা ধারালো অস্ত্র ব্যবহার করে নূরজাহান বেগমের হাত পায়ের রগ ও স্তন কেটে দিলে দ্রুত তাকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে পাঠানো হয়। প্রধানমন্ত্রীসহ আওয়ামী লীগের একাধিক মন্ত্রিপরিষদ সদস্য নূরজাহানকে সুস্থ করতে সব ধরনের সাহায্য সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে আসেন। কয়েক মাস মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে নূরজাহান সুস্থ হয়ে ফিরে এলে শুরু হয় সমঝোতা তৎপরতা। পুলিশের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, মোটা অঙ্কের টাকা লেনদেনের মাধ্যমে (২০ লাখ) নূরজাহানের সঙ্গে আসামিপক্ষের (বিএনপি নেতা) সমঝোতা হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা পুলিশের একজন কর্মকর্তা জানান, ইতোপূর্বে বেশ কয়েকবার বাদী পক্ষ মামলার ফাইনাল রিপোর্ট দেয়ার জন্য পুলিশকে অনুরোধ করে। তবে টাকা লেনদেনের বিষয়টি সরাসরি স্বীকার না করলেও নূরজাহান জানান, আসামি পক্ষের সঙ্গে তাদের সমঝোতা হয়েছে। কিসের বিনিময়ে, কিভাবে? বিরত থাকেন মন্তব্য করতে নূরজাহান। তবে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের একাধিক আওয়ামী লীগ নেতা বিএনপি-জামায়াতের টাকা লেনদেনের খবরের সত্যতা নিয়ে কোন ধরনের দ্বিমত প্রকাশ না করে বিস্ময় প্রকাশ করে বলেছেন, এই ঘটনার মধ্য দিয়ে বিএনপি-জামায়াত সন্ত্রাস করার উৎসাহ পাবে ও বেপরোয়া হয়ে উঠবে। পাশাপাশি তৃণনমূল থেকে শুরু করে উপজেলা পর্যায়ের আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীরা তাদের নিরাপত্তা নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, এই এলাকায় আরও বড় ধরনের সহিংসতা শুরু হলে আশ্চর্য হবার কিছু থাকবে না। পুলিশ ও গোয়েন্দা সূত্রের ধারণা অনুযায়ী এই অঞ্চলের জঙ্গীরা যোগাযোগ আরও বাড়িয়ে দিয়ে সংগঠন মজবুত করার কাজে সক্রিয় হবে। কারণ ৯০-এর দশকের প্রথম দিকে জেলায় প্রথম জঙ্গী তৎপরতা চালাতে গিয়ে যে কয়জন ধরা পড়েছিল তাদের একজন শাহবাজপুর ইউনিয়নের আজমতপুর গ্রামের হাজারবিঘী চাঁদপুর ইসলামিয়া কওমী মাদ্রাসার ছাত্র ছিল। সে ছিল জেএমবি’র সক্রিয় সদস্য। শিবগঞ্জ উপজেলার কওমী মাদ্রাসার সংখ্যা ৭টি ও আলিয়া মাদ্রাসার সংখ্যা ৫১টি। তবে কওমী মাদ্রাসাগুলোর নিয়ন্ত্রণ তাদের নিজস্ব তহবিল থেকে করা হয়। প্রতিটি কওমী মাদ্রাসার স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ নজর কাড়ার মতো পর্যায়ে পড়ে। এ ছাড়াও বিভিন্ন সোর্স থেকে অর্থ আসে এসব কওমী মাদ্রাসায়। এখানে উল্লেখ্য, একাধিক সূত্র থেকে পাওয়া খবরে জানা গেছে শিবগঞ্জ সীমান্ত এলাকার গ্রামগুলো থেকে বিপুলসংখ্যক যুবক শ্রেণী মাদ্রাসাতে পড়ার নামে ভারতে চলে যায় প্রতিবছর। এরা মাঝে মধ্যে এলেও এদের ব্যাপারে স্থানীয় গোয়েন্দা সংস্থার কাছে তেমন কোন তথ্য নেই। কিংবা ভারতে পড়াশুনার নামে এদের কোন রাজনৈতিক কিংবা জঙ্গী যোগাযোগ আছে কি না তা কোন দিনও ক্ষতিয়ে দেখা হয়নি। তবে এদের পরিবারের সদস্যরা স্থানীয়ভাবে বিএনপি কিংবা জামায়াতের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। আন্তর্জাতিক মানের একটি জঙ্গী সংগঠন এই উপ মহাদেশসহ বাংলাদেশে শাখা খোলার ঘোষণা আসার পর বিএনপি-জামায়াত অধ্যুষিত শিবগঞ্জের প্রগতিশীল ও স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের ব্যক্তি ও পরিবারগুলো আরও আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। তারপর নতুন করে ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ থেকে আজ অবধি যে সব সন্ত্রাসী কর্মকা-ে জামায়াত- বিএনপির হাতে খুন জখম রাহাজানি হয়েছে তার বিরুদ্ধে করা মামলাগুলো অর্থের বিনিময়ে সমঝোতা হচ্ছে, তাতে করে এই আশঙ্কা আরও বেড়েছে। পরবর্তীতে এই ধরনের সন্ত্রাস ও জঙ্গী তৎপরতা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে এমনটাই ধারণা করা হচ্ছে। কারণ সন্ত্রাসের জনপদ শিবগঞ্জে ফেব্রুয়ারি ২০১৩ থেকে জানুয়ারি ৫ তারিখ পর্যন্ত ১০ মাসে ১৯ জন রাজনৈতিক হত্যাকা-ের শিকার হয়। তারপরও রাজনৈতিক হত্যাকা-, হাত-পায়ের রগকাটাসহ আহতের ঘটনা লেগেই রয়েছে। বর্তমানেও নিরাপদে নেই মানুষ। একদিকে আওয়ামী লীগের বেহাল দশা, পাশাপাশি বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাস বৃদ্ধি পাওয়ায় একের পর এক প্রাণ হারাচ্ছে কিংবা পঙ্গু হচ্ছে সাধারণ মানুষ। কানসাট পল্লীবিদ্যুতের আগুন দেয়া মামলায় আসামিদের ধরতে গেলে ২৮ মার্চ (২০১৩) মধ্যরাতে শ্যামপুরে যৌথ বাহিনীর সঙ্গে জামায়াত-শিবিরের সংঘর্ষ হয়। এতে গুলি খেয়ে মরে মাদ্রাসার ছাত্র অলিউল্লাহ, রবিউল ও মতিউর। সেই বছরেই ২৮ এপ্রিল মাদ্রাসা থেকে ফেরার পথে সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে হত্য করে মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা বশিরকে। এইসব হত্যার প্রতিশোধ নিতে জামায়াত মরিয়া হয়ে হত্যা করে আওয়ামী লীগ কর্মী বাহারের ছেলে খুরশেদ ও আলতাফের ছেলে নাসিরকে। পরবর্তীতে রানীহাটিতে আওয়ামী লীগ নেতা কফিল ও মফিজকে কুপিয়ে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। পরবর্তীতে সন্ত্রাস ছড়িয়ে দেয় পার্শ্ববর্তী উপজেলা ভোলাহাটে জামায়াত-শিবির। নিহত হয় ছাত্রলীগ কর্মী আব্দুর রহমান ও আওয়ামী লীগ নেতা দুরুল হোদা। এই সময়ে নানাভাবে একাধিক জামায়াত নেতাকর্মী নিহত হয় আইন প্রয়োগকারীদের উপর হামলা চালাতে গিয়ে। পাশাপাশি প্রতিশোধ নিতে গিয়ে শুধু শিবগঞ্জ উপজেলাতেই প্রায় ২০ জনের হাত-পায়ের রগ কেটে দেয় জামায়াত-শিবির। হাত- পায়ের রগ কাটার কালচারটা একান্তভাবেই জামায়াত-শিবিরের নিজস্ব স্টাইল। বিশেষ করে এটি একটি অন্যতম জঙ্গী স্টাইলের অংশবিশেষ বলে মনে করা হয়। ২০০৪ সালে জেএমবির উত্থানের সময়ে এই অঞ্চলের তরুণদের একটি বিরাট অংশ জ্ঞাত কিংবা অজ্ঞাতসারে জেএমবিতে ভিড়ে যায়। তাদের অধিকাংশ একটি মৌলবাদী রাজনৈতিক দলের চিন্তা চেতনার সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিল। সেই চেতনা ও বিশ্বাসের সঙ্গে জঙ্গী জেএমবির মিল থাকায় আরও উৎসাহিত হয়ে জেএমবিতে প্রবেশ করে। বিশেষ করে একযোগে একই সময়ে দেশের ৬৩ জেলায় বোমা হামলা ও বিস্ফোরণের সময় জেএমবির এই জানান দেবার মিশনে কাজ করেছিল তরুণ জঙ্গীরা। এদের অধিকাংশ ছিল আলিয়া মাদ্রাসা, ফাজিল মাদ্রাসা কিংবা কওমী মাদ্রাসার ছাত্র। এ ছাড়াও একটি মৌলবাদী ছাত্র সংগঠনের সদস্যরাও জঙ্গী জেএমবির সঙ্গে মিলে মিশে একাকার হয়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়ম করেছিল। খুবই কাছাকাছি রাজশাহীর বাগমারা হবার কারণে সেই সময়ে চাঁপাই নবাবগঞ্জ সদর, শিবগঞ্জ, ভোলাহাট, রহনপুর ও নাচোল এলাকার একাধিক স্থানে ঘাঁটি গেড়ে বসে জেএমবি। তারা গোপনে তাদের সাংগঠনিক কর্মকা- তুলে ধরে জেলার ১৩৬টি মাদ্রাসা ও ২৮টি কওমী মাদ্রাসায়। এইসব মাদ্রাসা ও কওমীর ছাত্রদের পাশাপাশি শিক্ষকরাও জেএমবির সঙ্গে সরাসরি সংশ্লিষ্ট না হয়ে তাদের আদর্শে উদ্বুদ্ধ হবার সুযোগ হয়। এসব কওমী ও সাধারণ মাদ্রাসায় বিশেষ দলের সমর্থক ছাত্র সংগঠনের ছাড়া অন্য কোন দল সর্মথন সংগঠন নেই। আর শিক্ষকদের প্রত্যেকে বিশেষ সংগঠন সমর্থক ও কর্মী ছাত্র-শিক্ষকদের একটি অংশ সেই সময় জেএমবির সঙ্গে সরাসরি গাঁটছাড়া বেঁধে কাজ করেছিল, তারা এতদিন নানা কারণে নীরবে নিরাপদ দূরত্বে থেকে চুপচাপ ছিল। হঠাৎ করে তারা কিছুটা সক্রিয় হয়েছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। তবে তারা এখনও সম্মুখে না এসে গোপনে সাংগঠনিক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে ধারণা করা হচ্ছে। হয়ত নতুন কোন আন্তর্জাতিক জঙ্গী সংগঠনের সঙ্গে হাত মিলিয়ে যে কোন মুহূর্তে প্রকাশ্যে চলে আসতে পারে। কিংবা আবার নতুন করে জামায়াত, বিএনপির কর্মকা- শুরু হলে জেএমবি অনুপ্রবেশ ঘটিয়ে পরিস্থিতি উত্তপ্ত করে তুলতে পারে। কিংবা আদি আধিপত্য বজায় রাখতে মৌলবাদী ছাত্র সংগঠনের জঙ্গীপনাকে মদদ দিতে জেএমবিতে যোগ দিলে তারা বেপরওয়া হয়ে উঠলে আশ্চর্য হবার কিছুই থাকবে না।
এদিকে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর এই অঞ্চলের জামায়াত-শিবির তাদের নাশকতা কর্মকা- থেকে কৌশল করে সরে এসে এখন প্রচ-ভাবে সাংগঠনিক কাজে মনযোগ দিয়েছে। বিশেষ করে জামায়াতের শত শত মহিলা কর্মীরা প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে প্রতিদিন উঠান বৈঠক স্টাইলে নির্দিষ্ট বাড়িঘরে মহিলা সামাবেশ করে চলেছে। মহিলা কর্মীদের অধিকাংশ স্কুল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী। এদিকে ৫ জানুয়ারির আগ পর্যন্ত সমগ্র জেলায় জামায়াত-শিবির একেবারে এককভাবে যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানোর নামে মিটিং মিছিল হরতাল ও অবরোধের নামে লাইম লাইটে আসায় বিএনপি সাংগঠনিকভাবে পিছিয়ে পড়ে। এই অভিমত বিএনপি নেতৃবৃন্দের। তাছাড়া অধিকাংশ এই এলাকায় জামায়াত যে সব কর্মসূচী পালন করেছে তাতে তারা বিএনিপকে সঙ্গে নিতে অনীহা প্রকাশ করে। তবে যে সব বিএনপি নেতাকর্মী অঘোষিতভাবে জামায়াতের আনুগত্য মেনে নিয়েছে তাদের নানান প্রতিশ্রুতি ও আর্থিক সহযোগিতা দিয়ে কাজে লাগিয়েছে জামায়াত-শিবির। আর তাই দেখা গেছে ৫ জানুয়ারির পর শিবগঞ্জ এলাকার বিএনপি নতুনভাবে কৌশল করে জামায়াত স্টাইলে আন্দোলনে না নেমে গোপনে গোপনে নাশকতা শুরু করে। শিবগঞ্জে ২১ ফেব্রুয়ারির অনুষ্ঠানে বোমা হামলা চালাবার প্রস্তুতি নিয়ে বোমা বহনের সময় এক ছাত্রদল নেতা নিহত হয়। শহীদ মিনারে ফুল দেবার অনুষ্ঠানে এই নাশকতা চালাতে চেয়েছিল। কিন্তু কোমরে বেঁধে রাখা বোমা হঠাৎ করে বিস্ফোরণ হলে গুরুতর আহত হয়। পরে মারা যায়। বিএনপি এই সময়ে বোমা হামলার ধুয়া তুলে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ফাঁসাতে চেয়েছিল কিন্তু ব্যর্থ হয়। 
একই ভাবে শিবগঞ্জ ছাত্রদল শিবগঞ্জ আওয়ামী লীগ নেতা ও বণিক সমিতির চেয়ারম্যান আলহাজ এনামুল হককে পুড়িয়ে হত্যা করে। তিনি তাঁর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অবস্থানকালীন বিএনপি ও ছাত্রদলের কর্মীরা হামলা চালিয়ে দোকান লুটপাট করে আগুন ধরিয়ে দেয়। দমকল বাহিনী আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার পর ধ্বংসস্তূপ থেকে এনামুল হকের লাশ উদ্ধার করা হয়। পাশাপাশি শিবগঞ্জে বিএনপি ও ছাত্রদল নেতাকর্মীরা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের যেখানে সেখানে ধরে কিংবা হামলা চালিয়ে হাত-পায়ের রগ কেটে গণহারে পঙ্গু করা শুরু করে। অনুরূপভাবে ২২ জানুয়ারি-১৪ সালে শিবগঞ্জ কলাবাড়িতে এক আওয়ামী লীগ মহিলা নেত্রী ও ইউপি সদস্য নূরজাহানের উপর হামলা চালিয়ে হাত-পায়ের রগ কেটে ক্ষান্ত হয়নি। অমানবিক বর্বরতা চালিয়ে মহিলার স্তন কেটে নিয়ে যায়। এর আগে জাতীয় পরিষদের মনোনয়ন দাখিলের দিন আওয়ামী লীগ মনোনীত সদস্য ও কানসাট আন্দোলনের নেতা গোলাম রাব্বানীর বাড়িতে তারা আগুন ধরিয়ে দেয়। কানসাট আন্দোলনের প্রতিশোধ নিতে এই হামলা চালানো হয়েছিল বলে গোলাম রাব্বানী দাবি করেন। বাড়ি আক্রমণের মূল লক্ষ্য ছিল রাব্বানীকে হত্য করা। সর্বশেষ আগস্ট মাসে শিবগঞ্জ সরকারী হাইস্কুলে আওয়ামী লীগের সম্মেলনে বোমা হামলা চালায় বিএনপি। সব মিলিয়ে গত ১৬ মাসে বিএনপি-জামায়াতের খুন রাহাজানি, হাত পায়ের রগ কেটে পঙ্গু করার অভিযোগে কয়েক ডজন মামলায় এইসব দলের নেতাকর্মীরা গ্রেফতার হলেও সিংহভাগ নেতাকর্মী গা ঢাকা দিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। বিএনপি-জামায়াত জোট এই সব আসামিদের মামলামুক্ত করতেই নতুন কৌশল নিয়ে কোটি কোটি টাকার প্যাকেজ নিয়ে মাঠে নেমেছে। এ ছাড়াও জামায়াত-শিবিরের নতুন কৌশলের অংশ হিসেবে আওয়ামী লীগ বা ১৪ জোটের সুদৃঢ় ঐক্যতে ফাটল ধরিয়ে কোন একটি অংশকে হাত করে তাদের (জামায়াত- বিএনপি) নেতাকর্মীদের মামলা মুক্ত করা। এই কৌশল প্রয়োগ করে বিএনপি-জামায়াত জোট অনেকটাই সাফল্য অর্জন করায় দুই দলের বড় মাপের (রুই কাতলা) নেতাকর্মীরা জামিনে মুক্ত হয়ে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আবার অনেকে গাঢাকা অবস্থার অবসান ঘটিয়ে প্রকাশ্যে কর্মকা- চালাচ্ছে। শিবগঞ্জ অঞ্চলে অর্থাৎ চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১, এই আসনটিতে আওয়ামী লীগ দীর্ঘদিন ধরে দ্বিধা বিভক্তির মধ্যে রয়েছে। ২০০৯ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ শিবগঞ্জ এলাকার সংসদ সদস্যকে মন্ত্রী বানিয়েও আওয়ামী লীগের কোন লাভ হয়নি। সাংগঠনিক অযোগ্যতা ও নিকট আত্মীয়স্বজনের নানান ধরনের অপকর্ম ও দুর্নীতির কারণে অধিকাংশ আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ক্ষুব্ধ হয়। এই ক্ষুব্ধতার কারণে মন্ত্রিত্ব চলে যাওয়াসহ দ্বিতীয়বার এমপি হবার মনোনয়ন থেকে বঞ্চিত হন। তৃণমূল আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা আশা করেছিল এবার হয়ত কোন ত্যাগী আওয়ামী লীগ নেতা মনোনয়ন পাবে। কিন্তু কাকস্য পরিবেদনা। এবারও একই স্টাইলে ধরে আনা ব্যক্তিকে মনোনয়ন দিয়ে এমপি বানাবার কারণে শিবগঞ্জ আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ হয়ে একাধিক গ্রুপে বিভক্ত হয়ে পড়ে। আর এই সুযোগে বিএনপি-জামায়াত তাদের অঘোষিত প্যাকেজের লোভ দেখিয়ে আয়ামী লীগের কিছু কিছু বিদ্রোহীর হাত করে মামলা মোকদ্দমায় মীমাংসার কাজে ব্যবহার করছে। এই উপজেলা সোনামসজিদ বন্দর থেকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ও স্কুলে কলেজে বিএনপি-জামায়াত জোটের নীরব সমর্থক থাকায় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা কোন ধরনের বিরোধিতা না করে নিরাপত্তার কারণে চুপ থাকে। পাশাপাশি উপজেলার এমন কোন সরকারী প্রতিষ্ঠান নেই যেখানে জামায়াত জোটের সমর্থক নেই। শুধু থাকা নয়, তাদের সংখ্যা অনেক বেশি। এমনকি প্রশাসনের উচ্চ পদে যারা কাজ করে তারাও গা-বাঁচাতে সমর্থক সাজার ভান করে নিরপেক্ষ থাকে। একই অবস্থা বিরাজ করছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ সদর আসনে। এখানেও বঙ্গবন্ধুর একান্ত অনুসারী কট্টোর আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা গ্রুপিংয়ের কারণে কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। আওয়ামী লীগের একাধিক নেতাকর্মীর অভিযোগ নব্য গজিয়ে উঠা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা এই মুহূর্তে এমপি সমর্থক বনে গিয়ে সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছে। পাশাপাশি বিএনপি- জামায়াত নানা কৌশল আওয়ামী লীগকে ব্যবহার করে খুবই নিরাপদে রয়েছে। এখানে জামায়াতের শক্তিশালী অবস্থানের কারণে অনেক আগে থেকেই ঢাকা মহানগর জামায়াত নেতা বুলবুলকে মনোনয়ন দিয়ে রেখেছে সদর আসনে। অনুরূপ অবস্থা বিরাজ করছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ নাচোল, ভোলাহাট, গোমস্তাপুর আসনেও। এখানেও আওয়ামী লীগের সাবেক ও বর্তমান এমপির সাথে সাপে নেওলে সম্পর্ক। তিনটি উপজেলায় আওয়ামী লীগ দুই গ্রুপে বিভক্ত। সম্প্রতি কয়েকজন ভূমিদস্যু এক আদিবাসী নারীর জমি দখলসহ যৌন নির্যাতন করতে গিয়ে গোমস্তাপুর ও নাচোল এলাকার উপজাতি গোষ্ঠী মারাত্মকভাবে রুষ্ট হয়ে দূরত্বে অবস্থান নিয়েছে। তারা ভবিষ্যতে ভোটের রাজনীতিতে কি অবস্থান নেবে বলা যাচ্ছে না। উপজাতি নেতারা ইতোমধ্যেই ভূমি দস্যুদের চিহ্নিত করে কোন এক আওয়ামী লীগ নেতার ছত্রছায়াতে রয়েছে তার দিকে আঙ্গুল উঠিয়েছে। আর তাই তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে অভিযোগ আদিবাসীদের। এই ফাঁকে বিএনপি-জামায়াত জোট তাদের অবস্থান দৃঢ় করে সাংগঠনিক কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।
সব মিলিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ বিএনপি- জামায়াত এই মুহূর্তে নানাভাবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে ব্যবহার করে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে। পাশাপাশি নানান গ্রুপের জঙ্গীরাও সংগঠিত হচ্ছে। আর এইসব কারণেই চাঁপাইনবাবগঞ্জে কানসাট বিদ্যুত কেন্দ্র জালিয়ে দেয়াসহ একাধিক হত্যাকা- লুটপাটের চেয়েও এবার বড় ধরনের সহিংসতা হতে পারে, বেপরোয়া হলেও আশ্চর্য হওয়ার কিছু থাকবে না। কারণ একদিকে আওয়ামী লীগ সাংগঠনিকভাবে দুর্বল হচ্ছে, পাশাপাশি প্রশাসন খুবই সূক্ষ্মভাবে কৌশলে বিএনপি-জামায়াতকে সহযোগিতার পথগুলো বাতলিয়ে দিচ্ছে। এই অবস্থার পরিবর্তনে আওয়ামী লীগকে মতভেদ ভুলে চিহ্নিত প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে সংগঠনকে শক্তিশালী করাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ঘাপটি মেরে বসে থাকাদের চিহ্নিত করতে হবে।

এ জাতীয় আরও খবর