শুক্রবার, ২রা জুন, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আইনশৃঙ্খলার অবনতি : জনমনে আতঙ্ক

Crimeঈদ পূর্বাপর পাঁচ দিনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় খুন হয়েছে পাঁচ জন। এছাড়া, আহত হয়েছে কয়েক’শ মানুষ। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির এই অবনতিতে উদ্বিগ্ন জেলার সাধারণ মানুষ। বিশেষ করে কলেজপাড়ায় এক প্রবাসীকে গলাকেটে হত্যার ঘটনায় জনমনে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।


গত ১ আগস্ট আল আমীন চৌধুরী (৩৫) নামের ওই প্রবাসীকে কলেজপাড়ায় তার ভাড়াটে বাসায় হত্যা করা হয়। গত তিন মাস আগে আল আমীন দুবাই থেকে দেশে আসেন। হত্যার ঘটনাটি ঘটে ওই এলাকার ডিসি-এসপি’র বাংলোর কয়েক’শ গজের মধ্যে।


এই কলেজপাড়াতে একই দিনে পারিবারিক কলহের জের ধরে  শারমিন আক্তার (২২) নামে এক সন্তানের জননীকে হত্যা করা হয়। ঈদের পরদিন (বুধবার) বিকেলে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের জের ধরে নবীনগর উপজেলার শ্যামগ্রাম ইউনিয়নের শ্রীঘর গ্রামে দু’দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে গোলাপী বেগম (৫৫) নামে এক নারী নিহত হয়।এ ঘটনায় উভয় পক্ষের ১০ জন আহত হয়।


মোবাইল ফোনে রিচার্জ করাকে কেন্দ্র করে একইদিন সকালে বাঞ্ছারামপুর উপজেলার ছয়আনী গ্রামে দু’দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে হানজাল মিয়া (৪৫) নামে একজন নিহত ও ২০ জন আহত হয়।


২ আগস্ট নাসিরনগরে সৎ ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে খুন হন বড় ভাই। নিহতের নাম মাসুক মিয়া (৩৪)।  উপজেলার গোকর্ণ ইউনিয়নের নূরপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।


এলাকাবাসী জানায়, দীর্ঘদিন ধরেই জমিজমা নিয়ে দু’ভাইয়ের মধ্যে বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে থানা পুলিশ পর্যন্ত গড়ালেও পুলিশ কোন কার্যকর পদক্ষেপ নেয়নি। পুলিশের নিস্ক্রিয়তার কারনে এই হত্যাকান্ড ঘটেছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।


ঈদের আগের দিন ২৮ জুলাই এবং ঈদের দিন দু’দফা সংঘর্ষে ৯ পুলিশসহ অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়। ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান এবং ইউপি সদস্য সাঈদ মিয়ার গোষ্ঠীর লোকদের মধ্যে এই সংঘর্ষ হয়।


ঈদের আগের দিন সোমবার উপজেলার আশুরাইল গ্রামের ইউপি সদস্য ফরিদ মিয়া ও সাবেক ইউপি সদস্য করিম মিয়ার লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। তিন ঘন্টা  সংঘর্ষে উভয় পক্ষের নারীসহ আহত হয় প্রায় শতাধিক। চট্টগ্রামে কর্মরত নাসিরনগর উপজেলার মুড়াকড়ি গ্রামের হকার ও আশুরাইল গ্রামের হকারের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনার জের ধরে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।


একই দিন সকালে উপজেলার পূর্বভাগ ইউনিয়নের মকবুলপুর গ্রামে পুকুরে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে গ্রামের জিতু মিয়া ও অলি মিয়ার লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে উভয় পক্ষের নারীসহ ৩০ জন আহত হয়।


জুয়া খেলায় বাধা দেওয়াকে কেন্দ্র করে ২ আগস্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে দু’দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়। এ সময় দু’টি বসতবাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। র‌্যাব ও পুলিশ সংঘর্ষ থামাতে ৫ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়ে ও ব্যাপক লাঠিপেটা করে।


একই দিন আশুগঞ্জের চর-চারতলায় দু-দল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত হয় অর্ধশতাধিক।


ঈদের পরদিন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর উপজেলার দারমা এবং বিজয়নগর উপজেলার ডালপা গ্রামে পৃথক সংঘর্ষে আহত হয় ৫০ জন । দারমা গ্রামের সংঘর্ষ হয় ঈদের জামাতে ইমামতি নিয়ে দুই পক্ষের বিরোধে। আর ডালপা গ্রামে আক্কেল আলী এবং ধন মিয়ার লোকজনের মধ্যে পূর্ব বিরোধে সংঘর্ষ হয়।


এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জামান জানান, রোজার মধ্যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালোই ছিলো। সামনে ভালো হয়ে যাবে বলে তিনি মনে করেন।