শুক্রবার, ১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঈদ আসে মানুষের জীবনে আনন্দের বন্যা নিয়ে, আর আমাদের ব্রাহ্মনবাড়িয়ায় আসে অশান্তি আর ঝগড়া-বিবাদ নিয়ে।

10580269_10202569286408548_698607039558996031_n

ঈদ আসে মানুষের জীবনে আনন্দের বন্যা নিয়ে আর আমাদের ব্রক্ষণবাড়িয়ায় আসে অশান্তি আর ঝগড়া-বিবাদ নিয়ে। ঈদের আগের দিন, ঈদের দিন ও পরের দিন পৃথক সংঘর্ষে ২ জন নিহত এবং অন্তত দুই শতাধিক লোক আহত হয়েছে। জেলার নবীনগর ও বাঞ্ছারামপুরে ২ জন খুন হয়। নাসিরনগরে সংঘর্ষে দেড় শতাধিক এবং সদর উপজেলা ও বিজয়নগরের সংঘর্ষে আরো অর্ধশত লোক আহত হয়েছে। তুচ্ছ ঘটনার জের, ঈদের জামাত, পূর্ববিরোধ ও আধিপাত্য বিস্তার নিয়ে এসব ঘটনা ঘটে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত বুধবার সন্ধ্যায় নবীনগরের শ্রীঘর

 

 

 

চর ছয়ানী গ্রামের মো: হারুন মিয়াকে রাস্তার মাঝে মার-ধোর করে ফেলে রাখা হয়েছে

গ্রামে বিয়ে সংক্রান্ত ঘটনায় আফাজ উদ্দিন ও তমিজ উদ্দিন পরিবারের মধ্যে সংঘর্ষে মরম আলীর স্ত্রী গোলাপী বেগম (৫৫) নিহত হয়।  এ ঘটনায় নিহতের ছেলে মোস্তাক মিয়া বাদী হয়ে নবীনগর থানায় আফাজ উদ্দিন সহ ৮জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেছে। 

 


এছাড়া ঈদের দিনে নবীনগরের শ্যামগ্রাম, রতনপুর, খাগাতুয়া, গোপালপুর গ্রামেও সংঘর্ষ হয়েছে।  

 

এদিকে গত বুধবার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার ছয়ানী গ্রামে ঈদগাহ এবং আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এবং পূর্ব বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষে হানজাল মিয়া(৪৫) নিহত এবং মো: হারুন মিয়াসহ আরো ১২ জন আহত হয়েছে। নিজেরা মারামারি স্বাদ মেটাতে জনগণ কে নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করেছ কিছু ধান্ধাবাজ রাজনৈতিক নেতারা। অসভ্য বর্বর দুই দলের অর্ন্তকোন্দলের স্বীকার সাধারন গ্রামবাসী এখন দিশেহারা। এখন পুরুষ শুন্য ছয়আনী গ্রামে শুধু মহিলারা অবস্থান করছেন। সবাই চলে গেলে বাড়ি ডাকাতি হতে পারে সেই ভয়ে রয়ে গেছে। 

এছাড়া গত সোমবার নাসিরনগর উপজেলার বুড়িশ্বর ইউনিয়নের আশুরাইল গ্রামে এবং পূর্বভাগ ইউনিয়নের মকবুলপুর গ্রামে এ দু’টি পৃথক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ ২৭  রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। পুলিশ ও গ্রামবাসী সূত্রে জানা যায়, চট্রগ্রামে কর্মরত মুড়াকড়ি গ্রামের হকার ও আশুরাইল গ্রামের হকারের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনার জের ধরে সোমবার সকালে মুড়াকড়ি গ্রামের হকাররা সড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় আশুরাইল গ্রামের হকাররা বাধা দেয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উপজেলার আশুরাইল গ্রামের বর্তমান মেম্বার ফরিদ মিয়া ও সাবেক মেম্বার করিম মিয়ার লোকজন লাঠিসোঁটা,বলম, ইটপাটকেল ও দা নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। তিনঘন্টা স্থায়ী সংঘর্ষে উভয় পক্ষের শিশু ও নারী সহ প্রায় শতাধিক  আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে করীম মেম্বার (৫০),সফিকুল ইসলাম (২৫) ও নাইম মিয়া (৪০)সহ ৮ জনকে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া ১১২ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। খবর পেয়ে নাসিরনগর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁেছ ২৭ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুরে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। নাসিরনগর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ ইয়াছিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোন পক্ষই মামলা দায়ের করেনি। তবে বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।এদিকে একই দিন সকালে উপজেলার পূর্বভাগ ইউনিয়নের মকবুলপুর গ্রামে মালিকানাধীন পুকুরে মাছ ধরা নিয়ে গ্রামের জিতু মিয়া ও অলি মিয়ার লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। ঘন্টাব্যাপী স্থায়ী সংঘর্ষে উভয় পক্ষের  নারীসহ প্রায় ৩০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ফকরুল ইসলাম (৫০) ও ফুলতারা বেগমকে(৩০) জেলা সদর হাসপাতালে এবং দুইজনকে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া ২০ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এদিকে পুলিশ এবং প্রত্যাক্ষদর্শীরা জানায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার দারমা গ্রামে ঈদের জামাতে ইমামতি নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষের জের ধরে বুধবার সকালে সংঘর্ষ বাধে।এতে উভয় পক্ষের ৩০ জন আহত হয়। তাদের মধ্যে ১০ জন কে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গুরুতর আহত সাবেক মেম্বার রহমত আলী কে আশংকা জনক অবস্থায় ঢাকায় প্রেরন করা হয়েছে। সদর থানার এএসপি তাপস ঘোষ জানান, সংঘর্ষের  খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে  পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।  এ ঘটনায় ৫জন কে আটক করা হয়। 
অপরদিকে বিজয়নগর উপজেলার ডালপা গ্রামে আক্কল আলী এবং ধনমিয়ার মধ্যে পূর্বের একটি ঘটনা নিয়ে বিরোধ চলছিল। এ বিরোধের জের ধরে গত সোমবার রাতে খাদুরাইল গ্রামের ভাইস চেয়ারম্যান বাবুল আক্তারের বাড়ীতে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে কোন পক্ষ সমঝোতা না আসায় বুধবার সকাল ১০টার দিকে উভয় পক্ষই দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এতে অন্তত ২০জন আহত হয়। সংঘর্ষে আহতদের মধ্যে ১০ জন কে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।