শুক্রবার, ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের উন্নয়নের প্রভাব পড়বে ইউরোপসহ বিভিন্ন দেশে

hungerবাংলাদেশের উন্নয়নের প্রভাব ইউরোপসহ অন্য রাষ্ট্রগুলোতেও পড়বে বলে মন্তব্য করেছেন মোজাম্বিকের সাবেক রাষ্ট্রপতি জেকুইম আলবার্তো সিসানো।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে নারী-পুরুষ একসঙ্গে উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে যুক্ত রয়েছেন। যে কারণে আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টি, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে উন্নতি এবং মাতৃমৃত্যু ও শিশুমৃত্যুর হার কমানোসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সফলতা অর্জিত হয়েছে। এ সফলতা শুধু বাংলাদেশের জনগণের সফলতা নয়। নিঃসন্দেহে এ সফলতার প্রভাব ইউরোপসহ অন্যান্য রাষ্ট্রগুলোতে পড়বে।

শনিবার আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাব্রতী সংস্থা ‘দ্য হাঙ্গার প্রজেক্ট’র বাংলাদেশ কার্যালয়ে সংস্থার কর্মকর্তা, স্বেচ্ছাব্রতী উজ্জীবক, নারীনেত্রী ও ইয়‍ুথ লিডারদের সাথে মতবিনিময়কালে এ মন্তব্য করেন। 



মোজাম্বিকের জনগণের পক্ষ থেকে সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি বলেন, আমি এই প্রথম বাংলাদেশে এসেছি। মাত্র একদিনের মধ্যে বাংলাদেশের রাজনীতি, সংস্কৃতি ও আর্থ-সামাজিক অবস্থাসহ বিভিন্ন বিষয়ে অবগত হয়েছি।

জেকুইম আলবার্তো বলেন, আমি মনে করি, বাংলাদেশ উন্নয়নের পথে রয়েছে। মূলত, নারী ও তরুণ সমাজের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে যুক্ত হওয়ার কারণেই এই বিপুল সফলতা অর্জিত হয়েছে। আর এসব নারী ও তরুণদের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত করার ক্ষেত্রে দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-এর রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। 



দ্য হাঙ্গার প্রজেক্ট’র কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, এমডিজি’র লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহের সাথে তৃণমূলের জনগণের সম্পর্ক তৈরি করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এরকম উপলব্ধি থেকে সরকার, জনগণ ও স্থানীয় পর্যায়ের জনপ্রতিনিধি মিলে ত্রিপক্ষীয় অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এমডিজি ইউনিয়ন গড়ার লক্ষ্যে কার্যক্রম চলমান রয়েছে। যেখানে অনুঘটকের ভূমিকা পালন করছে দ্য হাঙ্গার প্রজেক্ট।

তিনি বলেন, গত দুই দশক থেকে ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে একটি স্বেচ্ছাব্রতী আন্দোলন সৃষ্টি করার প্রচেষ্টায় নিয়োজিত রয়েছে দ্য হাঙ্গার প্রজেক্ট। এ প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে সারাদেশে এ পর্যন্ত আমরা প্রায় আড়াই লাখ উজ্জীবক-অনুঘটক ও নারীনেত্রী তৈরি করেছি। যাদের প্রচেষ্টায় কয়েক সহস্র দরিদ্র মানুষ আত্মনির্ভরশীল হয়েছে এবং অনেক ‘সেলফ-হেলফ গ্রুপ’ বা স্থানীয় সংগঠন গড়ে ওঠেছে এবং যৌতুক ও বাল্যবিবাহ রোধসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সফলতা অর্জিত হয়েছে। 



মতবিনিময় সভায় দ্য হাঙ্গার প্রজেক্টের গ্লোবাল কার্যালয় (নিউইয়র্ক, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) থেকে আগত গ্লোবাল বোর্ড সদস্যসহ ২০ জন প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। প্রতিনিধি দলের মধ্যে রয়েছেন দ্য হাঙ্গার প্রজেক্ট’র গ্লোবাল বোর্ডের চেয়ারম্যান স্টিভেন জেই শেরউড, এর ভাইস প্রেসিডেন্ট ফর এডভান্স এলিজাবেথ ডয়েসরথ, প্রজেক্ট’র এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেডিডেন্ট চার্লস ডিউল, এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেডিডেন্ট জন কুনরুড সদস্য ড. মোহিনী গিরি এবং প্রতিষ্ঠানটির সদস্য কার্ল হ্যামিলটন ও স্টমবার্গসহ অন্যরা।

ভারতের প্ল্যানিং কমিশনের সদস্য ও গ্লোবাল বোর্ড সদস্য ড. সাঈদা হামিদ, ভারতের মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান প্রমুখ।

এছাড়া মতবিনিময় সভায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব শফিকুল ইসলাম ও হোম ইকোনমিক্স কলেজের অধ্যক্ষ ইফফাত আরা নার্গিস উপস্থিত ছিলেন। 



এর আগে দ্য হাঙ্গার প্রজেক্ট-বাংলাদেশ’র আমন্ত্রণে ২৬ জুন, ২০১৪ রাজধানী ঢাকায় আসেন দ্য হাঙ্গার প্রজেক্টের গ্লোবাল কার্যালয় থেকে আগত প্রতিনিধিদল। পরদিন ২৭ জুন আমন্ত্রিত অতিথিরা এমডিজি ইউনিয়ন গড়ার ক্ষেত্রে দ্য হাঙ্গার প্রজেক্টের কার্যক্রম দেখার জন্য বাগেরহাট জেলার ফকিরহাটের বেতাগা ইউনিয়ন ও খুলনা জেলার বটিয়াঘাটা উপজেলার বটিয়াঘাটা ইউনিয়ন পরিদর্শনে যান। সেখানে তারা দ্য হাঙ্গার প্রজেক্টের কাজের মাধ্যমে ও জনগণের অংশগ্রহণে অর্জিত উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সম্পর্কে ধারণা লাভ করেন। এ সময় আমন্ত্রিত অতিথিরা পৃথক পৃথকভাবে দ্য হাঙ্গার প্রজেক্টের উজ্জীবক, নারীনেত্রী ও ইয়ূথ লিডারদের সাথে মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। এছাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যরা, ওয়ার্ড অ্যাকশন টিম ও স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সাথেও মতবিনিময় করেন আমন্ত্রিত অতিথিরা।

তারা দ্য হাঙ্গার প্রজেক্টের সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত ওয়ার্ডসভা ও উন্মুক্ত বাজেটসহ অন্যান্য কার্যক্রমের মাধ্যমে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করে ইউনিয়ন পরিষদের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড দেখে মুগ্ধ হন।