বৃহস্পতিবার, ১লা জুন, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গৃহযুদ্ধের মুখে ইরাক

iraq warদখলদারি ও ধ্বংসলীলা সাঙ্গ করে আটবছর পর অনুগত এক সরকারের হাতে ইরাকের শাসনক্ষমতা তুলে দিয়ে ২০১১ সালে দেশে ফিরে গেছে মার্কিন সেনাবাহিনী। কিন্তু ইরাকের জনগণকে যে ইরাক ফেরত দেবে বলে কথা দিয়েছিলেন জর্জ বুশ এবং ওবামা, সেই ইরাক ফিরে আসেনি। যুদ্ধ-সংঘাতে জীর্ণ ও দীর্ণ এক দুর্বল ও ক্ষয়িষ্ণু ইরাকে জাতি-বিদ্বেষ ও উগ্র শিয়া-সুন্নি সংঘাতের বীজ বপন করে গৃহযুদ্ধের উত্তপ্ত ফার্নেসের মুখে ঠেলে দিয়ে সানন্দে প্রত্যাবর্তন করেছে আমেরিকা।



আসলে প্রতিবেশী ইরানকে বাগে আনতে যেমন ইরাককে কবজা করা জরুরি ছিল, তেমনি বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম তেল সম্পদের ওপর কর্তৃত্ব হাতে নেয়াও তেমনি জরুরি হয়ে পড়ে। অতএব ইরাকে ওসামা বিন লাদেনের আল কায়েদা সক্রিয় এবং গণ-বিধ্বংসী অস্ত্র মজুতের ভিত্তিহীন অজুহাত খাড়া করে ক্ষমতাচ্যুত করতে হবে সাদ্দাম হুসেইনকে। কারণ মার্কিন ইচ্ছা অনুযায়ী সাদ্দামের ইরাককে ইরানের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা যাচ্ছিল না এবং ইরাকের মার্কিন বহুজাতিক পুঁজির দখলদারি সাদ্দাম মানছিলেন না। অতএব ইরাকে সামরিক আগ্রাসন চালিয়ে সাদ্দামকে খুন করে মার্কিন স্বপ্ন পূরণের ব্যবস্থা হলো।



আর আমেরিকার এই সাম্রাজ্যবাদী স্বার্থ পূরণের মূল্য চোকাতে গিয়ে একটা দেশ ও জাতিকে চলে যেতে হয়েছে ধ্বংসের কিনারায়। আজ ইরাক মার্কিন দখলমুক্ত হলেও, মার্কিন জালে আষ্টেপৃষ্ঠে বাঁধা। একটা স্বাধীন-সার্বভৌম দেশ হিসেবে ইরাকের যে আন্তর্জাতিক মর্যাদা ও গুরুত্ব ছিল, আজ তা ধূলিস্যাৎ। কোনো আন্তর্জাতিক মঞ্চে ইরাকের মতামতের গুরুত্ব সেভাবে নেই।



ইরাকের এহেন পরিণতি, ইরাকি জনগণের এহেন আত্মগ্লানি নিশ্চিত করেছে আমেরিকার সাম্রাজ্যবাদী স্বার্থ। মার্কিন আগ্রাসন মেনে নিতে পারেনি ইরাকের মানুষ। তাদের মার্কিন আগ্রাসন নীতির বিরুদ্ধে ক্ষোভ, প্রতিবাদ কোনো সংগঠিত গণতান্ত্রিক স্রোতে প্রবাহিত হবার সুযোগ পায়নি। সেখানেও প্রধান বাধা হয়ে ওঠে আমেরিকা, তারা তাদের বিরুদ্ধে ক্ষোভকে দানা বাঁধতে দেয়নি। সেনা অভিযানে তছনছ করে দিয়েছে।



ক্ষোভের সংগঠিত গণতান্ত্রিক বহিঃপ্রকাশ আটকে দিয়ে ক্ষোভকে মুছে ফেলা যায় না। ক্ষোভ থেকেই গেছে এবং তা চাপা অবস্থায় উত্তরোত্তর বেড়েছে। জনগণের এই ক্ষোভকেই ব্যবহার করেছে বিভিন্ন জাতিগত, ধর্মীয় ও সাম্প্রদায়িক জঙ্গীগোষ্ঠী। তারা যে যার নিজের মতো করে আমেরিকার বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করেছে। মার্কিনবাহিনীও তাদের নির্মূল করতে বর্বরতার আশ্রয় নিয়েছে। তার ফলে ১০ লক্ষেরও ওপর নিরীহ মানুষকে জীবন দিতে হয়েছে। ২০-২৫ লক্ষ মানুষকে দেশ ছেড়ে অন্য দেশের শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নিতে হয়েছে।



আট বছর ধরে টানা মার্কিন সেনারা জেহাদ দমনে সর্বশক্তি নিয়োগ করলেও, কাজের কাজ কিছুই হয়নি। কৌশলে চেষ্টা চালিয়েছে বিভিন্ন গোষ্ঠীকে পরস্পরের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দেবার। একাজ কিছুটা সফল হলেও, শেষ পর্যন্ত গোটা ইরাককে শিয়া, সুন্নি দুই ভাগে ভাগ করে দিতে পেরেছে। ফলে আজ তারা ইরাক ছাড়লেও দুই মুসলিম গোষ্ঠীর বিরোধ তীব্র হয়েছে। আমেরিকার অনুগত যে সরকার ইরাকে আছে, তারা শিয়া-প্রভাবিত। আর যারা এই সরকারের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করেছে, তাদের একটা বড় অংশ সুন্নি-প্রভাবিত।



বর্তমানে ইরাকের সবচেয়ে শক্তিশালী জেহাদি গোষ্ঠী আইএসআইএস। সুন্নি-প্রভাবিত এই গোষ্ঠী আল কায়েদা থেকে বেরিয়ে আত্মপ্রকাশ করেছে। গত এক সপ্তাহ ধরে এরা ইরাকিবাহিনীর বিরুদ্ধে বেপরোয়া হামলা চালিয়ে উত্তরাংশের অনেকটাই দখল করেছে। দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর মোসুল, কিরকুক ইত্যাদি শহর তাদের নিয়ন্ত্রণে। সেনাবাহিনী অস্ত্র ও ঘাঁটি ছেড়ে উত্তর ইরাক থেকে পালিয়ে গেছে। উদ্বিগ্ন সরকার দেশে জরুরি অবস্থা জারি করে সাধারণ মানুষের হাতে অস্ত্র দিচ্ছে জঙ্গিদের মোকাবিলা করতে। ইরাক গৃহযুদ্ধের মুখে।

এ জাতীয় আরও খবর

নির্বাচনের আগে ১৩৫০ মামলায় সাজা দেওয়া হবে: মির্জা ফখরুল

বাংলাদেশি শিশুর চিঠির জবাব দিলেন চীনা প্রেসিডেন্ট

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নে বাধা কোথায়, জানালেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

সংসদে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য হলেন যারা

কোহলি কেন সবার থেকে আলাদা

ফিল্ডিং করছিলেন ক্রিকেটার, মাঠেই মৃত্যু

তারেক-জেবায়দার মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণকালে আজও হট্টগোল

বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ফুটবল ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ, সেরা দশে কারা

মার্কিন ভিসানীতির কারণে বিদেশে পড়তে যেতে সমস্যা হবে না: শিক্ষামন্ত্রী

দর্শনে পড়ে মেলেনি চাকরি, পোড়ালেন সব সার্টিফিকেট

জ্বালানি তেলে কোনো ভর্তুকি দেয় না সরকার

২৩৯টি অনলাইন পত্রিকার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে সরকার