শুক্রবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

জাতীয় পর্যায়ে সম্মাননা পেয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিশিস্ট সঙ্গীত প্রশিক্ষক, শিল্পী শ্রীমতি সন্ধ্যা রায়

sandha roy picআল আমীন শাহীন ॥ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রবীণ সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব , বিশিস্ট সঙ্গীত প্রশিক্ষক শিল্পী শ্রীমতি সন্ধ্যা রায় নজরুল সঙ্গীত চর্চায় অবদানের জন্য জাতীয় পর্যায়ে সম্মাননা পেয়েছেন। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রনালয় এবং বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর সহযোগিতায় নজরুল সঙ্গীত শিল্পী পরিষদের উদ্যোগে ঢাকায় ১১৫ তম নজরুল জয়ন্তী উপলক্ষে অনুষ্ঠানে তিনি এ সম্মাননা পেয়েছেন। অনুষ্ঠানে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর সচিব ডাঃ রঞ্জিত কুমার বিশ্বাস।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পূর্ব পাইকপাড়ার বাসিন্দা শ্রীমতি সন্ধ্যা রায় ১৯৫২ সালের ১৭ মে জন্ম গ্রহণ করেন । বাবার নাম রাস বিহারী রায় , মা রুচিবালা রায় এর কন্যা সন্ধ্যা রায়ের স্বামীর নাম যোতিশ চন্দ্র রায় সাহা। বাবা ও মায়ের অণুপ্রেরণায় সন্ধ্যা রায় সঙ্গীত সাধনা শুরু করেন,পরবর্তীতে স্বামীর অণুপ্রেরণা ও সহযোগিতায় তিনি এ পর্যন্ত সঙ্গীত ভ’বনে অনবদ্য অবদান রাখছেন।  উচ্চাঙ্গ ও নজরুল সঙ্গীতের প্রতি বিশেষ আকর্ষণ তাঁর। ব্রাহ্মণব্াড়িয়ার ধর্মীয় বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তাঁর কণ্ঠের ভক্তিমূলক গান সকলকেই বিমুগদ্ধ করে। তিনি সঙ্গীতে পন্ডিত উমেশ চন্দ্র রায়, ওস্তাদ আখতার সামদানী ওস্তাদ সগীর উদ্দিন খান এর কাছে তালিম নেন। ৪০ বছর যাবৎ তিনি সঙ্গীত চর্চা ও সঙ্গীত প্রশিক্ষক হিসেবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সাংস্কৃতিক অঙ্গনে অবদার রেখে আসছেন।তিনি ২৫ বছর যাবৎ বাংলাদেশ বেতার এবং টেলিভিশনের শিল্পী হিসেবে তালিকা ভুক্ত। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শিল্পকলা একাডেমী ও জেলা শিশু একাডেমীর সঙ্গীত প্রশিক্ষক, ১৯ বছর তিনি সুর স¤্রাট দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গনের প্রশিক্ষক হিসেবে অনেক সঙ্গীত শিল্পী গড়ে তুলেছেন। সন্ধ্যা রায় ২০০৩ সালে শহীদ ধীরেন্দ্র নাথ দত্ত স্মৃতি স্বর্ণ পদক এবং মুক্তিযুদ্ধে সংস্কৃতি কর্মী হিসেবে বিশেষ অবদানের জন্য ২০০৪ সালে তিতাস সাহিত্য সংস্কৃতি পরিষদ কর্তৃক সম্মাননা পেয়েছেন। সংস্কৃতির রাজধানী বলে খ্যাত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার যে ঐতিহ্য তা সমুন্নত রাখতে নতুন প্রজন্মের শিল্পীদের প্রতি শুদ্ধ সংস্কৃতি সঙ্গীত চর্চার আহবান জানিয়েছেন এ প্রবীণ শিল্পী। জীবনের শেষ প্রান্তে দাঁড়িয়ে এ শিল্পীর প্রত্যাশা তিনি যতদিন আছেন ততদিন যেন সঙ্গীত ভ’বণে বিচরণ করার শক্তি পান । তিনি সকলের কাছে আর্শীবাদ চেয়েছেন।