রবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আপনার কি মন খারাপ? তাহলে জেনে নিন কি করে মন ভাল রাখবেন।।

mon kharap(আমাদেরব্রাহ্মণবাড়িয়া.কম)সারাদিন ঘর আর বাইরে মিলে কত ধকলই না যায় শরীর আর মনের ওপর দিয়ে। আর তার মাঝেই যেন অনাহুত বিপদ হয়ে মনের ওপর একটা আলাদা চাপ আনে এই হঠাৎ করে মন খারাপ হয়ে যাওয়া। অনেকেই যদিও নিজেদের মন খারাপের সঠিক কারণ বুঝতে পারেননা বা বুঝতে চান না। তবুও প্রত্যেকের মন খারাপ হওয়ার পেছনেই একটা না একটা কারণ লুকিয়ে থাকে। তবে যে কারণেই মন খারাপ হয়ে যাকনা কেন, নিচের টিপসগুলো নিমিষেই মন ভালো করে দেবে আপনার।

১. যা ইচ্ছে তাই করা-

শুনতে বেশ অন্যরকম আর ছেলেমানুষী নকমের লাগলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মন খারাপের বেশ ভালো অষুধ হিসেবে কাজ করে এই যা ইচ্ছে তাই করাটা। সেটা হতে পারে বাসার বাইরে বা ভেতরে- সবখানেই। ইচ্ছে হলে খানিকক্ষণ লাফিয়ে নিন নিজের প্রিয় গানের সাথে, মায়ের গলা জড়িয়ে গল্প করুন, কাগজ ছিঁড়ুন, সাজুন, স্কুল-কলেজে থাকাকালীন রাস্তায় করা দুষ্টুমিগুলো করুন। মোটকথা নিজের যা করতে ইচ্ছে হবে সেটাই করুন। তবে অবশ্যই নিজের বা কারো কোন ক্ষতি না করে।

২. ঘুরতে বেরোন-

ঘুরে আসুন বাইরে থেকে। নিজের বন্ধুদের সাথে। তবে সবচাইতে ভালো হয় কোন নতুন জায়গায় গেলে। নতুন সব জিনিস দেখবার আনন্দের ভিড়ে কোথায হারিয়ে যাবে আপনার মন খারাপ ভাব।

৩. খুশী কেনা-

নিজের পছন্দের মানুষগুলোর জন্য গিফট কিনুন। খরচ করুন যতটা ইচ্ছে। তবে সবচাইতে ভালো হয় ভালো সম্পর্ক নেই এমন কাউকে উপহার দিয়ে তার সাথে ভাব করে নিলে। প্রিয় মানুষগুলোর মুখের হাসি আর বন্ধুত্বের ছোঁয়া মন ভালো করে দেবে আপনার।

৪. ঘুম এবং খাবার-

বৈজ্ঞানিকদের মতে মন ভালো করার জন্য খানিক ঘুমিয়ে নেওয়ার মতন ভালো কোন উপায় আর নেই। তবে এসময় নিজের পছন্দমতন খাবার খেলেও ভালো হয়ে যেতে পারে আপনার মন। প্রয়োজনে আপনি নিজেই রান্নাঘরে ঢুকে যান। রান্না না পারলে অন্তত এক প্যাকেট নুডুলস রাঁধুন। নিজের হাতের খাবার খেলে মন আপনার ভালো হতে বাধ্য।

৫. ভালো আচরন-

বলা হয় কাজ আবেগকে প্রভাবিত করে। আর তাই মন খারাপ হলে বেশ হাসিখুশি থাকার ভান করুন। খানিক বাদে এমনিতেই আপনার মন ভালো হয়ে যাবে।

৬. ব্যস্ততা-

ব্যায়াম করে নিন খানিকক্ষণ। সাথে মেডিটেশনও চলতে পারে। অথবা দেখে নিতে পারেন নতুন কোন মুভি। ফলে কিছুক্ষণের জন্য হলেও আপনার মন হয়ে পড়বে ব্যস্ত। আর ব্যস্ত মন খানিকবাদেই আপনা থেকে ভালো হয়ে যাবে।

৭. কথা বলা-

মন খুলে কথা বলুন নিজের কোন কাছের বন্ধুর সাথে। হয়তো সেসব কথার প্রায়টুকুই হবে অপ্রাসঙ্গিক। কিন্তু এতে আপনার মন ভালো হয়ে যাবে নিশ্চিত।

৮. ধারনা বরিষ্কার করা-

নিজের সাথে কথা বলুন। আপনার মন খারাপের কারণ কী বের করুন। যেটা নিয়ে মন খারাপ সেটার কোন প্রভাব কি আপনার জীবনে আছে? নিজের কাছে নিজেই পরিষ্কার হোন। বেরিয়ে আসুন অহেতুক কারনে মন খারাপ হওয়া থেকে।