শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ফেসবুক আইডি হ্যাক হওয়া থেকে রক্ষা করুন।

facebookhackedফেসবুক বর্তমান বিশ্বের সামাজিক যোগাযোগের সবচেয়ে সহজ ও জনপ্রিয় মাধ্যম। কিন্তু এই সামাজিক যোগাযোগের ফেসবুক পরিণত হচ্ছে ভয়ংকর কোনোকিছুতে। কারন প্রতিদিন হ্যাক হয়ে যাচ্ছে লক্ষ লক্ষ ফেসবুক আইডি । ফেসবুক কর্তৃপক্ষের মতে, সারা বিশ্বে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৬ লক্ষ ফেসবুক আইডি হ্যাক হচ্ছে।আসুন এবার জেনে নিই কিভাবে হ্যাক হচ্ছে এই ফেসবুক আইডিঃ

ফেসবুক আইডি প্রায় ৭ ধরনের পদ্ধতিতে হ্যাক হয়ে থাকে। তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে কীলগার নামে একটি সফটওয়্যার। কবুষড়মমরহ বা কবুংঃৎড়শব খড়মমরহম হচ্ছে একটা হার্ডওয়্যার বা সফটওয়্যার গত সিস্টেম মনিটর, যেটা একটা ক¤িপউটারের প্রতিটি কী বোর্ড এর স্ট্রোক মনিটর/ পর্যবেক্ষন করে রেকর্ড করে ঐ ক¤িপউটারের ইউজারের অজ্ঞাতে। একটা এন্টিভাইরাস কী লগারকে ট্রোজন অথবা ব্যাকডোর হিসেবে সনাক্ত করে। এর মাধ্যমে পাসওয়ার্ডকে .ষড়ম হিসেবে নেওয়া হয়। তাছাড়া বিশেষ একধরণের .ুরঢ় ফোল্ডারের মাধ্যমেও ফেসবুক আইডি হ্যাক হচ্ছে। এটি মূলত ফিশিং নামে পরিচিত। ধরুন ফেসবুক এর যেকোনো ইউজার এর ইউজার নেম , পাসওয়ার্ড  ইত্যাদি হাতিয়ে নেওয়ার জন্য বেআইনীভাবে আমি যদি ফেসবুক এর মতই দেখতে একটা লগইন পেইজ ব্যবহার করি তখন তাকে ফিশিং বলে। ফিশিং সাধারণত ই-মেইলের মাধ্যমে ছড়ানো হয়ে থাকে। বিশেষ একধরণের হ্যাকাররা এই পদ্ধতিতে আইডি হ্যাক করে থাকে।

আসুন জেনে নিই হ্যাকাররা কেন ফেসবুক আইডি হ্যাক করেঃ

হ্যাকার যদি আপনার শত্রু হয়, তাহলে আপনার আইডি হ্যাক হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তাছাড়া একশ্রেণির হ্যাকাররা আইডি হ্যাক করার পর সাধারণত টাকা চায়। এই শ্রেণির হ্যাকাররা টাকার বিনিময়ে ফেসবুক আইডি ফেরত দিতে বাধ্য থাকে। এছাড়া আরো অনেক কারনে হ্যাকাররা ফেসবুক আইডি হ্যাক করে থাকে।

চলুন জেনে নিই, কীভাবে ফেসবুক আইডিকে হ্যাক হওয়া থেকে রক্ষা করা যায়ঃ

১.প্রথমেই যে সর্তকতাটি অবলম্বন করতে হবে তাহলো, কোনো অবস্থাতেই কোনো অপরিচিত বা অযাচিত লিংকে ক্লিক করা বা প্রবেশ করা যাবে না, তা সে যেখান থেকেই আসুক না কেন।
২.দেখে নিন আপনার ফেসবুক আইডির প্রোটেকশন স্ট্যাটাস কতটুকু। এজন্য যঃঃঢ়://িি.িভধপবনড়ড়শ.পড়স/ষড়মরহ.ঢ়যঢ় এই লিংকে গিয়ে উপরে ডান কোনায় ঙাবৎ ধষষ চৎড়ঃবপঃরড়হ এ খেয়াল করুন। যদি আপনার ফেসবুক আইডিতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা সবল হয়, তাহলে ঐরময (সবুজ রং চিহ্নিত) থাকবে। আর যদি দুর্বল হয় তাহলে ষড়ি লেখাটি দেখাবে।
৩. মনে রাখবেন, হ্যাকাররা সাধারণত প্রথমেই ই-মেইল আইডি হ্যাক করার চেষ্টা করে। আপনার ফেসবুক ই-মেইল আইডি কেউ যাতে দেখতে না পায়, সেজন্য ঊফরঃ ঢ়ৎড়ভরষব এ গিয়ে ঈড়হঃধপঃ রহভড়ৎসধঃরড়হ সেন্সেটিভ ইনফরমেশনের প্রাইভেসিগুলো ঙহষু সব করে রাখুন। ফেসবুক ও ই-মেইল আইডির জন্য আলাদা আলাদা শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন।
৪. ই-মেইল প্রোটেকশন স্ট্যাটাস শক্ত আছে কিনা দেখে নিন।
৫. ই-মেইলের ক্ষেত্রে রিকভারি ই-মেইল কার সাথে করা আছে তা ভাল করে দেখে নিন এবং রিকভারি ই-মেইলের প্রোটেকশন স্ট্যাটাস কতটুকু তাও ভাল করে দেখে নিন।
৬. মনে রাখবেন, আপনার রিকভারি ই-মেইল গুলোর যে কোনো একটি হ্যাক করতে পারলে অন্য সবগুলো (এমনকি ফেসবুকও) মুহুর্তেও মধ্যে হ্যাক করা কোনো ব্যাপার না।
৭. ই-মেইল ও ফেসবুকের সিকুরিটি কোশ্চেন এবং আন্সারগুলো এমনভাবে নির্বাচন করুন যেটি আপনার কাছে কমন কিন্তু অন্যদের কাছে একদম আনকমন।
৮. অন-লাইনে ব্যাক্তিগত তথ্য যতটা সম্ভব কম দেয়ার চেষ্টা করুন।
৯. লোভে পরে হ্যাকিং এর কোনো সফটওয়্যার ডাউনলোড করবেন না। কারন এখন পর্যন্ত এমন কোনো সফটওয়্যার তৈরি হয়নি যা ওপেন করার সাথে সাথে আপনাকে সব পাসওয়ার্ড দেখাবে। যদিও ইন্টারনেটে এমন বহু সফটওয়্যার পাওয়া যায়। কিন্তু আসলে এগুলো একদম ভুয়া। এই সফটওয়্যার গুলোর মধ্যে কী লগার ও ফিশিং থাকে। ফলে এগুলো ওপেন করার সাথে সাথে আপনি কী লগার ও ফিশিং এর শিকার হয়ে পড়বেন। কাজেই সাবধান !
১০. সবসময় ভাল মানের আপডেট করা এন্টিভাইরাস ব্যবহার করবেন।

উপরের লেখাগুলো স¤পর্কে সচেতন থাকলে আপনি ফেসবুক আইডি হ্যাক হতে রক্ষা পেতে পারেন।

*** নিজে জানুন, অপরকে জানান।

এ জাতীয় আরও খবর