সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে চ্যাম্পিয়ন সাকিবের কলকাতা

IPL Tropyইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) ফাইনালে শ্বাসরুদ্ধকর এক জয় নিয়ে সপ্তম আইপিএল চ্যাম্পিয়ন হলো সাকিবদের কলকাতা নাইট রাইডার্স। রোববার ফাইনাল ম্যাচে পাIঞ্জাবকে ৩ উইকেটে হারিয়ে আইপিএলে দ্বিতীয় বারের মতো শিরোপা ঘরে তোলে কলকাতা।



ব্যাঙ্গালোরে অনুষ্ঠিত সপ্তম আইপিএলের ফাইনালে জয়ের জন্য ২০০ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে মনিশ পান্ডের দুর্দান্ত ৯৪ রানের ইনিংসের ওপর ভর করে ৩ উইকেটে জয় পায় কলকাতা। তবে ইনিংসের শুরুতেই বড় ধাক্কা খায় নাইটরা। প্রথম ওভারেই দলীয় ৬ রানের মাথায় চলতি আইপিএলের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক রবিন উথাপ্পাকে হারায় কেকেআর। এরপর ওয়ান ডাউনে নামা মনিশ পান্ডে এবং অধিনায়ক গৌতম গম্ভির প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেন।



কিন্তু দলীয় ৬৯ রানের মাথায় কলকাতা সমর্থকদের হতাশায় ভাসিয়ে সাজঘরে ফেরেন গম্ভির। ১৭ বলে ৩ চারে ২৩ রান করে গম্ভির আউট হলে অপর প্রান্তে ইউসুফ পাঠানকে নিয়ে তখনই ব্যাটিংয়ে ঝড় তোলেন মানিশ পান্ডে। ইউসুফ পাঠান ২২ বলে ৪ ছক্কার সাহায্যে ঝড়ো ৩৬ রান করে মাক্সওয়েলের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে প্যাবেলিয়ানে ফিরলে সাকিব আল হাসান মাঠে নামেন। সাকিব মাত্র ৭ বল মোকাবিলা করে দুটি চারের সাহায্যে ১২ রান করে দুর্ভাগ্যজনকভাবে রান আউটের শিকার হন।



এরপর অতি আক্রমনাত্বক রুপ ধারণ করতে গিয়ে জয় থেকে মাত্র ২১ রান দূরে থাকতে ৯৪ রানে ক্যাচ আউট হন পান্ডে। ৫০টি বল মোকাবিলা করে ৭ চার ও ৬ ছক্কার সাহায্যে ৯৪ রান করেন তিনি।



সেট ব্যাটসম্যান পান্ডে আউট হয়ে যাওয়ার পর জয় নিয়ে সংশয় তৈরি হয় কেকেআরের। কিন্তু শেষ দিকে স্পিনার পিযুস চাওলা মাত্র ৫ বলে ১ টি করে চার ও ছক্কার সাহায্যে ১৩ রানে করে কলকাতাকে দ্বিতীয় শিরোপা উপহার দেন।



পাঞ্জাবের হয়ে করনভির সিং চার ওভার বল করে মাত্র ৫৪ রান দিলে চারটি উইকেট দখল করেন। এছাড়া মিসেল জনসন ৪১ রানে দুটি উইকেট দখল করেন।



এর আগে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ঋদ্ধিমান সাহার বিস্ফোরক সেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ওভারে চার উইকেটে ১৯৯ রানের সংগ্রহ পায় পাঞ্চাব। ইনিংসের শুরুতেই দুই উইকেট হারিয়ে চাপে পড়লেও মনন বোহরা ও ঋদ্ধিমান সাহার দানবীয় ব্যাটিংয়ে এই বিশাল রানের সংগ্রহ পায় প্রীতি জিনতার দল। তৃতীয় উইকেট জুটিতে মনন বোহরাকে সঙ্গে নিয়ে মাত্র ৭২ বলে ১৩৯ রানে দুর্দান্ত জুটি গড়েন ঋদ্ধিমান সাহা।



দলীয় ১৫৯ রানের মাথায় বোহরা ৫২ বলে ৬ চার ও ২ ছক্কার সাহায্যে ৬৭ রান করে ফিরলেও অপর প্রান্তেব্যাটিং ঝড় অব্যহত রাখেন সাহা। মাত্র ৫৫ বল খেলে  ১১৫ রানে অপরাজিত থাকেন বোহরা। চলতি আইপিএলের তৃতীয় সেঞ্চুরিটি তুলে নিতে ১০টি দর্শনীয় চার ও ৮টি ছক্কার মার মেরেছেন তিনি। এছাড়াও বীরেন্দ্রর শেবাগ ১০ বলে ৭ রান করেছেন।



কলকাতার হয়ে পিযুস চাওলা চার ওভার বল করে ৪৪ রান দিয়ে ২টি উইকেট লাভ করেন। এছাড়া উইকেটের দেখা না পেলেও দারুণ বোলিং করেছেন সাকিব আল হাসান। ৪ ওভার বল করে মাত্র ২৬ রান দিয়ে ব্যাটসম্যানদের বেঁধে রাখার কাজটি ভালোভাবেই করেছেন সাকিব।



ম্যাচ জেতানো ৯৪ রানে ইনিংসটির জন্য ম্যান আফ দ্যা ফাইনাল পুরুষ্কার লাভ করেন মনিশ পান্ডে। আইপিএলের সপ্তম আসরে দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ের পুরষ্কার হিসেবে টুর্নাম্যান্ট সেরা নির্বাচিত হয়েছেন পাঞ্জাবের গ্লেন ম্যাক্সিওয়েল।