মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আত্মগোপনে’ ব্যাটারিচালিত অবৈধ রিকশা

হঠাৎ করেই রাজধানীর সড়কগুলো থেকে উধাও হয়ে গেছে ব্যাটারিচালিত অবৈধ রিকশা। আইনগত সীমাবদ্ধতার কারণে দীর্ঘদিন ধরে রাজধানীর রাজপথ দাপিয়ে বেড়ালেও এ মাসের মাঝামাঝি সময়ে আড়ালে চলে গেছে এসব রিকশা। পুলিশি অভিযানে বেশ কিছু রিকশা আটক হলেও অনেকটাই ‘আত্মগোপনে’ চলে গেছে অধিকাংশ রিকশা।



ঢাকা মহানগর পুলিশের যুগ্ম কমিশনার (ট্রাফিক) মীর রেজাউল আলম প্রথম আলোকে জানান, আইনি জটিলতার কারণে গত জানুয়ারি থেকে ব্যাটারিচালিত অবৈধ রিকশা উচ্ছেদ অভিযান বন্ধ ছিল। জটিলতার সমাধান হওয়ায় কোনো ধরনের বাধা ছাড়াই তাঁরা আইন প্রয়োগে সফল হয়েছেন।



জানা গেছে, ব্যাটারিচালিত অবৈধ রিকশা চলাচল নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ছিল বিভিন্ন মহলে। ঝুঁকিপূর্ণ এ যানটি বিদ্যুতের অপচয়ের একটি বড় মাধ্যম। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর উচ্চপর্যায়ে এটি বন্ধ করার জন্য বিশেষ তোড়জোড় থাকলেও নিচের পর্যায়ের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে এ যানটিকে প্রশ্রয় দেওয়ার অভিযোগ ছিল। রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতারও অভিযোগ ছিল। পাশাপাশি বিভিন্ন সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত রিকশা-ভ্যান মালিক সংগ্রাম পরিষদের ব্যানারে লাইসেন্সের দাবিতে আন্দোলনের পাশাপাশি উচ্চ আদালতের আদেশ নিয়ে বেশ দাপটের সঙ্গে রাস্তায় দাপিয়ে বেড়িয়েছে এসব রিকশা।



ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার (ট্রাফিক) মীর রেজাউল ইসলাম জানালেন, আইনি জটিলতা শেষ হওয়ার পর ৯ মে থেকে তাঁরা অভিযান শুরু করেন। ইতিমধ্যে রাজধানীর প্রধান সড়কসহ অলিগলি ব্যাটারিচালিত রিকশা মুক্ত হয়ে গেছে। তিনি আরও বলেন, স্বাধীনভাবেই তাঁরা বেআইনি যানটি অপসারণে কাজ করেছেন। এ কাজে কোনো বাধা আসেনি বলেও জানান। ডিএমপির সব ইউনিট এ অভিযানে অংশ নিয়েছে।

রাজধানীর বেশ কিছু গ্যারেজ ঘুরে জানা গেছে, বেশির ভাগ রিকশাই ঢাকার বাইরে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিছু কিছু রিকশার ব্যাটারি ও মোটর খুলে চালানো হচ্ছে।রাজধানীর বিভিন্ন গ্যারেজে ব্যাটারি চার্জ দেওয়ার জন্য বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ব্যবহার করা হতো অবৈধ বিদ্যুত্সংযোগ। ছবি: ছবি: সাজিদ হোসেন



অবৈধ হলেও চলেছে দীর্ঘদিন: রাজধানী ঢাকায় প্রায় ৩১ বছর আগে ১৯৮২ সালে শেষবারের মতো পায়ে চালানো রিকশা ও ভ্যানের লাইসেন্স দিয়েছিল সেই সময়ের অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশন। সে হিসাবে ৮৬ হাজার বৈধ রিকশা ও ভ্যান রয়েছে এই নগরে। রিকশা চলাচল নিরুত্সাহিত করতে দীর্ঘ তিন দশক ধরে এসব রিকশার লাইসেন্স শুধু নবায়ন করে চলছে সিটি করপোরেশন। তবে বিভিন্ন সংগঠনের পরিসংখ্যান মতে, নগরে চলাচল করে কয়েক লাখ রিকশা।



ব্যাটারিচালিত রিকশা প্রসঙ্গে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মো. মমতাজ উদ্দিন বলেন, ‘ঝুঁকিপূর্ণ যান হিসেবে চিহ্নিত করে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ-বিআরটিএ ব্যাটারিচালিত রিকশার বৈধতা দেয়নি। মোটরচালিত হওয়ার কারণে এ ধরনের যানের লাইসেন্স দেওয়ার এখতিয়ারও আমাদের নেই।’



বিআরটিএর উপপরিচালক (প্রকৌশল) সীতাংশু শেখর বিশ্বাস বলেন, ইঞ্জিন থাকলেও নিরাপত্তা এবং অন্যান্য দৃষ্টিকোণ থেকে ব্যাটারিচালিত রিকশা যান্ত্রিক যানবাহন নয়। অন্যান্য যান্ত্রিক যানের চেয়ে ব্যাটারিচালিত রিকশা ধীরগতির। দুর্ঘটনাও ঘটার আশঙ্কা থাকে। সে জন্য এর বৈধতা দেওয়া হয়নি এবং দেওয়ার সম্ভাবনাও নেই বললে চলে।



তিন বছরে ৪০ হাজার ব্যাটারিচালিত রিকশা: ঢাকার রাজপথে ব্যাটারিচালিত রিকশার চলাচল শুরু হয় বছর তিনেক আগে থেকে। পঙ্গু ও শারীরিক প্রতিবন্ধীদের সুবিধার্থে সীমিতভাবে ব্যাটারিচালিত রিকশার অনুমোদন দেওয়া হলেও সেই অনুমোদনের