বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পেলে-ম্যারাডোনাকে মেসির ঈর্ষা

সর্বকালের সেরাদের তালিকায় নাম লেখাতে হলে লিওনেল মেসিকে কি বিশ্বকাপ জিততেই হবে? অনেকেই মনে করেন, না৷ মেসি নিজেও বলেছেন, নিজেকে প্রমাণের জন্য বিশ্বকাপ জয়ের দরকার নেই তাঁর৷ তার মানে এই নয় যে মেসি বিশ্বকাপ জিততে চান না৷ বার্সেলোনার হয়ে ক্লাব ফুটবলে সম্ভাব্য সবকিছুই জেতা মেসির একমাত্র অপ্রাপ্তি বিশ্বকাপ শিরোপা৷ ব্রাজিলেই সেই অপূর্ণতা ঘুচিয়ে ফেলতে উদ্গ্রীব আর্জেন্টাইন জাদুকর৷

দেশে ফিরে মেসি আর্জেন্টিনার ক্যাম্পে যোগ দিয়েছেন আগেই৷ আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ প্রস্তুতি শিবির করেছে বুয়েনস এইরেসের এজেইজাতে৷ ব্রাজিলের উদ্দেশে রওনা হওয়ার আগে বুয়েনস এইরেসে আগামী বুধ ও শুক্রবার ত্রিনিদাদ ও স্লোভেনিয়ার বিপক্ষে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে আর্জেন্টিনা৷ মেসি-হিগুয়েইন-আগুয়েরোরা নিজেদের ঝালিয়ে নিচ্ছেন শেষবারের মতো৷ সেখানেই বার্সেলোনা তারকা বললেন, দেশবাসীর প্রত্যাশা পূরণ করে নিজের ট্রফি-কেসটা পূর্ণ করে তোলাই তাঁর একমাত্র লক্ষ্য, ‘আমি বিশ্বকাপ জিততে চাই৷ শুধু আমাকে নিয়ে মানুষের ধারণা বদলে দেওয়ার জন্য নয়৷ আমি চাই আমার জেতা ট্রফি তালিকায় বিশ্বকাপ যোগ হোক৷’

মেসির বিশ্বকাপ জয়ের ক্ষুধাটা বাড়িয়ে দিয়েছে আরও একটা কারণ—ঈর্ষা৷ ডিয়েগো ম্যারাডোনা, এমনকি পেলে-ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ারকে নিয়েও ঈর্ষান্বিত মেসি! স্বদেশি কিংবদন্তি ও একদা গুরু ম্যারাডোনাকে নিয়েই ঈর্ষাটা বেশি৷ ১৯৮৬ সালে আর্জেন্টিনাকে প্রায় একক নৈপুণ্যে বিশ্বকাপ উপহার দিয়েছিলেন ম্যারাডোনা৷ মেসিও ব্রাজিলে তেমন কিছু করে ছুঁয়ে ফেলতে চান তাঁকে৷ ম্যারাডোনা-পেলে-বেকেনবাওয়ারদের বিশ্বকাপ ট্রফি উঁচিয়ে ধরতে দেখার অনুভূতি কেমন—ইএসপিএনের এ প্রশ্নে মেসি বলেছেন, ‘আমি ঈর্ষান্বিত৷ ঈর্ষাটা ইতিবাচক৷ আমি তাঁদের পাশে জায়গা করে নিতে চাই৷ আমার চাওয়াটা কেমন, সেটা কোনো ব্যাপার নয়৷ বিশ্বকাপ জেতার অনুভূতি তাঁরাও পুরোপুরি ব্যাখ্যা করতে পারবেন না৷’

বার্সেলোনায় তাঁর স্প্যানিশ সতীর্থদের নিয়েও ঈর্ষান্বিত মেসি! জাভি, ইনিয়েস্তা, পিকে, পেদ্রোরা যখন বিশ্বকাপ জয়ের বিস্ময়কর অভিজ্ঞতা নিয়ে কথা বলেন, হিংসায় জ্বলেন মেসি, ‘আমার স্প্যানিশ বন্ধুদের নিয়েও আমার ঈর্ষা হয়৷ আমার মনে হয়, আমিও যদি তাদের মতো বিশ্বকাপ জিততে পারতাম৷’

এরই মধ্যে দুটি বিশ্বকাপ খেলে ফেলেছেন৷ দুবারই পুড়েছেন হতাশার আগুনে৷ বয়স বিবেচনায় এবার যাচ্ছেন ক্যারিয়ারের মধ্য গগনে থেকে৷ চার বছর পর আরেকটি বিশ্বকাপে যেতে পারবেন কি না কে বলতে পারে! এ জন্যই বুঝি ২৬ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড আজন্মস্বপ্ন পূরণের জন্য এতটা আকুল৷ তার আগে মেসি স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন, ফুটবলই তাঁর ধ্যানজ্ঞান, ‘আমার কাছে একমাত্র গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ফুটবল খেলা৷ ছোটবেলা থেকেই আমি ফুটবল খেলে আসছি৷ এখনো তা-ই করে যেতে চাই৷ আমি সব সময়ই বলেছি, যখন খেলাটা উপভোগ করব না, খেলা বন্ধ করে দেব৷ এখনো খেলি, কারণ আমি খেলাটা উপভোগ করি৷’

নিজের খেলাকে চরিত্রগতভাবেই প্রতিনিয়ত ছাড়িয়ে যেতে চান তিনি৷ তিনিই সেরা কি না, এই বিচারের ভার আর্জেন্টাইন অধিনায়ক ছেড়ে দিয়েছেন বিশ্বব্যাপী তাঁর অগণ্য ভক্তের হাতে৷ ‘আমি নিজেই আমার এক নম্বর সমালোচক৷ আমি সব সময়ই আরও ভালো খেলতে চাই, আরও বেশি দিতে চাই, নিজের সবচেয়ে সমালোচক থাকতে চাই এবং চাই ভালো-মন্দকে গ্রহণ করতে৷ আমার কাছে খেলে যাওয়াটাই আসল৷ সেই ছোট্টটি থেকেই আমি এটি উপভোগ করে আসছি৷ প্রতিবার মাঠে নেমেই আমি উপভোগ করতে চাই৷ আমি সব সময়ই বলি, যে মুহূর্তে খেলাটা আর উপভোগ করব না, তখনই ওটার শেষ টানব৷’

মেসির ফুটবলীয় আলোচনায় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর প্রসঙ্গ ঢুকে পড়াটা অনিবার্য৷ তবে ‘আপনার সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী কে’—এ প্রশ্নের জবাবে মেসি শুধু রোনালদোর নামই বলেননি, সঙ্গে জুড়ে দিয়েছেন আরও অনেকগুলো নাম, ‘আমার সবচেয়ে শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বী? নেইমার, ইনিয়েস্তা, জাভি, ক্রিস্টিয়ানো (রোনালদো), (আরিয়েন) রোবেন ও (ফ্রাঙ্ক) রিবেরি৷ আমি যেকোনো একজনকে বেছে নিতে চাই না৷’ ওয়েবসাইট৷