শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত বাহিনীর মধ্যে গুলিবিনিময়

clashm-300x240বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তের পাইনছড়ি ৫২ নম্বর সীমান্ত পিলার এলাকায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী মিয়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) মধ্যে গুলিবিনিময় চলছে। আজ শুক্রবার বেলা সাড়ে তিনটার দিকে দুই পক্ষের গুলিবিনিময় শুরু হয়। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত গুলিবিনিময় চলছিল।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বিজিবির ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী প্রথমে গুলি চালায়। পরে বিজিবি পাল্টা গুলি চালায়।

ওই কর্মকর্তা জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর হাতে আটক বিজিবি সদস্য নায়েক মো. মিজানুর রহমানকে আজ ফেরত দেওয়ার কথা ছিল। সেজন্য নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তের পাইনছড়ি ৫২ নম্বর সীমান্ত পিলার এলাকায় অপেক্ষা করছিলেন বিজিবির সদস্যরা। কিন্তু মিজানকে ফিরিয়ে না দিয়ে অতর্কিতে গুলিবর্ষণ করে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর সদস্যরা। পরে বিজিবি পাল্টা গুলি চালায়।

উল্লেখ্য, নিয়মিত টহলের অংশ হিসেবে বান্দরবানের পানছড়ি বিওপির ২০ সদস্যের একটি দল গতকাল সকালে ৫২ নম্বর সীমান্ত পিলারের কাছে যায়। পিলারের কাছে পৌঁছামাত্র বিজিবি সদস্যদের ওপর বিনা উসকানিতে গুলি ছুড়তে শুরু করে মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ। এ ঘটনার পর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন নায়েক মিজান।

এদিকে নায়েক মো. মিজানুর রহমানকে আটক ও সীমান্তে নির্বিচারে গুলিবর্ষণের প্রতিবাদে ঢাকায় নিযুক্ত মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত মিউ মিন্ট থানকে গতকাল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (দ্বিপক্ষীয়) মুস্তাফা কামাল মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে তাঁর দপ্তরে ডেকে পাঠান। তিনি অবিলম্বে বিজিবির নায়েক মো. মিজানুর রহমানের মুক্তির দাবি জানান। এ ব্যাপারে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তিনি মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতের কাছে একটি চিঠি হস্তান্তর করেন। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে আগামী দিনে এ ধরনের তত্পরতা রোধে বিস্তারিত তদন্তের দাবি জানানো হয়েছে।

মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত মিউ মিন্ট থান এ সময় সচিবকে আশ্বস্ত করেছেন, বাংলাদেশের উদ্বেগের বিষয়টি মিয়ানমারের যথাযথ কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে। মিয়ানমার থেকে জবাব পাওয়ার পর তিনি বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষকে তা জানাবেন।

এ জাতীয় আরও খবর