সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘শেখ মুজিবের ব্যর্থতাই জিয়াকে রাজনীতিতে এনেছে ’

ttarekডেস্ক রিপোর্ট : বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান বলেছেন, ‘শেখ মুজিব রাজনীতিক হিসেবে ব্যর্থ ছিলেন এবং জিয়া ছিলেন একজন সফল রাজনীতিক।’‘গণতন্ত্র হত্যা এবং দেশ পরিচালনায় শেখ মুজিবের চরম ব্যর্থতাই জিয়াউর রহমানকে রাজনীতিতে এনেছে’। ‘মুজিব নিজের দল আওয়ামী লীগকেই গলা টিপে হত্যা করেছিলেন’ মন্তব্য করে তারেক বলেন, ‘লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীন বাংলাদেশের অস্তিত্ব রক্ষায় শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের রাজনীতিতে আসার কোন বিকল্প ছিলনা’।গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় পূর্ব লন্ডনের ইলফোর্ডে এক আলোচনা সভায় এ দাবি করেন তারেক রহমান। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৩৩তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।আলোচনা সভায় তারেক রহমান বলেন, শেখ মুজিব গণতন্ত্রের কথা বলে আওয়ামী লীগ বিলুপ্ত করে বাকশাল গঠনের মাধ্যমে একদলীয় শাসন প্রতিষ্ঠা করেন। জনগণের নিরাপত্তা বিধানের কথা বলে গুম, খুন ও বিরোধী দল দমনের জন্য রক্ষীবাহিনী গঠন করে আতঙ্কের জনপদ তৈরি করেন। অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির কথা বলে দুর্ভিক্ষ ডেকে আনেন।বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান দাবি করেন, শেখ মুজিব ৩০ বছর রাজনীতি করার পরও রাজনীতিক হিসেবে ছিলেন ব্যর্থ। অন্যদিকে, জিয়াউর রহমান সেনাবাহিনী থেকে রাজনীতিতে এসে মাত্র পাঁচ বছর রাজনীতি করে সফল রাজনীতিক ছিলেন বলে মন্তব্য করেন তিনি।

 তিনি বলেন, বাংলাদেশের দুর্ভাগ্য, ৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধে শেখ মুজিব জনগণের লড়াই সংগ্রাম এবং কঠিন আত্মত্যাগ দেখেননি, অথচ স্বাধীনতার পর পাকিস্তানী পাসপোর্ট নিয়ে তিনিই সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে এসে ক্ষমতায় বসেন।
স্বাধীনতা যুদ্ধে মা ভাই কিংবা আত্মীয় স্বজন হারানো যেইসব মানুষ ৭২ সালের ১০ জানুয়ারী স্বাধীন বাংলাদেশে শেখ মুজিবকে স্বাগত জানাতে এয়ারপোর্টে গিয়েছিলেন তাদের সামনে শেখ মুজিব আসেন পকেটে পাকিস্তানী পাসপোর্ট নিয়ে। একটি সদ্য স্বাধীন দেশের নাগরিকদের সাথে এর চেয়ে বড় প্রতারণা আর কি হতে পারে?
জিয়াউর রহমান দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা এবং অর্থনীতিকে দৃঢ় বুনিয়াদের ওপর দাঁড় করিয়েছিলেন বলে দাবি করেন তারেক রহমান।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বর্তমান শাসনকালকে তাঁর পিতার শাসনকালের সঙ্গে তুলনা করেন তারেক রহমান। তিনি দাবি করেন, শেখ হাসিনা তাঁর পিতার পথ অনুসরণ করে র‌্যাবকে রক্ষীবাহিনীতে রূপান্তরিত করে দেশে আতঙ্কের জনপদ তৈরি করেছেন। দেশে যেসব গুম-খুন হচ্ছে, তার দায় শেখ হাসিনা এড়াতে পারেন না বলেও মন্তব্য করেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান।
বিএনপি সন্ত্রাস দমনের জন্য এলিট ফোর্স হিসেবে র‌্যাব গঠনের পর দেশে শান্তি ফিরে আসে এবং মানুষ একে স্বাগত জানায় বলে দাবি করেন তারেক রহমান। তাঁর অভিযোগ, বর্তমান সরকার র‌্যাবকে রাজনৈতিক স্বার্থে ব্যবহার করে একটি ভাড়াটে বাহিনীতে পরিণত করেছে। এ কারণে এই বাহিনী বিলুপ্ত করা ছাড়া কোনো বিকল্প নেই।
র‌্যাব বিলুপ্তির পক্ষে স্বাক্ষর সংগ্রহ শুরু :
স্থানীয় সময় বুধবার সন্ধ্যায় লন্ডনে নিজে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাক্ষর দিয়ে দলের পক্ষ থেকে নেয়া স্বাক্ষর সংগ্রহ অভিযানের উদ্বোধন করেন র‌্যাব-এর প্রতিষ্ঠাতা রাজনৈতিক দল বিএনপির এই নেতা।
এসময় দেওয়া বক্তৃতায়, বিএনপির আমলে আইন শৃক্সখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক ছিল দাবি করে তারেক বলেন, ‘এখন আইন শৃংক্সখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক তো দুরের কথা আইন প্রয়োগকারী বাহিনীই আজ আইনের শাসন ধ্বংসে মেতে উঠেছে।
অবিলম্বে র‌্যাব বিলুপ্তির আহবান জানান তিনি। এসময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিযুক্ত করে তারেক বলেন, “নারায়ণগঞ্জের সেভেন মার্ডারের সাথে শুধু র‌্যাব সদস্যরাই নয়, শেখ হাসিনাও জড়িত।”
তিনি বলেন, ‘ঘটনা ঘটার সাথে সাথেই শামীম ওসমান যখন শেখ হাসিনার সাথে কথা বলে, তখনই বুঝতে হবে এর মধ্যে রহস্য আছে।
সরকারবিরোধী আন্দোলনের লক্ষ্যে প্রস্তুতি নিতে দলের নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তারেক রহমান। দলীয় নেতা-কর্মীরা তারেক রহমানকে দেশে ফিরে দল ও আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়ার আহ্বান জানালে এ বিষয়ে স্পষ্ট করে কোনো কথা বলেননি বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, ‘আমরা সবাই স্বাভাবিক অবস্থায় দেশে ফিরতে চাই। দেশে স্বাভাবিক মৃত্যুর নিশ্চয়তা চাই।’

প্রথম আলো