বুধবার, ২১শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৮ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সৌদি আরবের জেদ্দায় সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত ৪ বাংলাদেশীর মধ্যে একজন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার।

accedent-----------------।।বার্তা কক্ষ।।সৌদি আরবের জেদ্দায় আল লিথ শহরের কাছে গত রবিবার সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত চারজন বাংলাদেশীর মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার গোপীনাথপুর গ্রামের নিহত ইয়াসিনের গ্রামের বাড়ীতে চলছে শোকের মাতম। নিহত ইয়াসিনের পিতা নুরুল ইসলাম জানান, প্রথমে গনমাধ্যমের খবরের শনিবার রাতে নিজ ছেলের মৃত্যুর খবরটি পান। পরে সৌদি আরবে আত্বীয় স্বজনের মাধ্যমে তিনি পুরো ঘটনা সর্ম্পকে নিশ্চিত হন। এর পর থেকেই ইয়াসিনের পরিবারে চলছে শোকের মাতম। নিহত ইয়াসিনের মা বাবা এবং পরিবারে সদস্যরা জানান পরিবারে একটু স্বাচ্ছ্যন্দের আশায় গত ২০০৭ ‏সালে ইয়াসিন এবং তার বড়ভাই মহসিন সৌদি আরবে পারি জমান। দুই ভাই এবং চার বোনের মধ্যে ইয়াসিন সবার ছোট। আসছে রমাজানে দুই ভাই দেশে আসার কথা ছিল। কিন্তু সড়ক দুর্ঘটনায় ইয়াসিনের দেশে আসার সেই স্বপ্ন হয়তো স্বপ্নই থেকে গেল। তার অকাল মৃত্যুতে পিতা মাতা সহ আত্বীয় স্বজনেরা কান্নায় ভেঙ্গে পরেন। এদিকে সড়ক দুর্ঘটনায় ইয়াসিনের পরিবারে থেকে সাংবাদিকদের জানানো হয়েছে লাশ সৌদি আরবের মক্কা নগরীতে দাফন করা হবে। তবে পরিবারের সকলের মতামতের পর তা চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। উল্লেখ্য যে, গত রবিবার সৌদি আরবে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত বাংলাদেশী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ইয়াসিনকে গুরুতর আহত অবস্থায় প্রথমে হেলিকপ্টারে করে সৌদি আরবের কিং আবদুল আজিজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইয়াসিন মারা যায়।

 

নিহত বাংলাদেশীদের মধ্য ইয়াসিন ছাড়াও টাঙ্গাইল এর আব্দুল মজিদের পুত্র আব্দুল হালিম,কুমিল্লার হাবিবুল্লাহর পুত্র আমানউল্লাহ, চাঁদপুর এর শেখ আব্দুল খালেক এর পুত্র শেখ হারুন । 

চার বাংলাদেশীর মৃতদেহ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। শাহজাহান নামে অপর বাংলাদেশীকে এখনও একটি হাসপাতালে চিকিত্‌সা দেয়া হচ্ছে। 

জেদ্দাস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট জনাব মোকাম্মেল হুসেইন বলেন, এক জনের মৃতদেহ জেদ্দায় কিং আব্দুল আযীয হাসপাতালে এবং বাকী তিনজনের মৃতদেহ মক্কায় কিং ফয়সাল হাসপাতালে রাখা হয়েছে।