বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নতুন জুটিতে মজা আছে: অঙ্কুশ

কলকাতার ছবির এ সময়ের জনপ্রিয় নায়ক অঙ্কুশ। গত সপ্তাহে কলকাতা এবং ঢাকায় একযোগে প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে তাঁর অভিনীত নতুন ছবি ‘আমি শুধু চেয়েছি তোমায়’। রাজধানী ঢাকার বাইরের বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহেও ছবিটি মুক্তি পায়। ছবিটি পরিচালনা করেছেন কলকাতার অশোক পতি। আর তাঁকে সহযোগিতা করেছেন বাংলাদেশের অনন্য মামুন। ‘আমি শুধু চেয়েছি তোমায়’ ছবিসহ অন্যান্য প্রসঙ্গে সম্প্রতি  অঙ্কুশ কথা বলেন প্রথম আলোর সঙ্গে। অঙ্কুশের আলাপ প্রথম আলোর পাঠকদের জন্য তুলে ধরেছেন মনজুর কাদের



ভারতের কলকাতা এবং বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি প্রেক্ষাগৃহে আপনার নতুন ছবি ‘আমি শুধু চেয়েছি তোমায়’ মুক্তি পেয়েছে। কেমন সাড়া মিলছে?

কলকাতায় যখন ছবিটি মুক্তি পায়, তখন নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে সবাই চিন্তিত ছিল। ছবি মুক্তির আগে নির্বাচনের বিষয়টি নিয়ে খানিকটা শঙ্কায় ছিলাম। তবে নির্বাচনের ফলাফলের সঙ্গে যেন ছবির ব্যবসায়িক সমীকরণও পরিবর্তিত হয়ে যায়। শুনেছি, যেসব প্রেক্ষাগৃহে ছবিটি মুক্তি পেয়েছে তার সবগুলো শো হাউসফুল ছিল। বাংলাদেশেও নাকি ছবিটি সবাই আগ্রহ নিয়ে দেখছে বলে আমার কাছে খবর এসেছে। সব মিলিয়ে আমি খুবই আনন্দিত।



নিজের ছবিটি কি প্রেক্ষাগৃহে বসে দেখার সুযোগ হয়েছে?

দর্শকদের সঙ্গে ছবি দেখার আনন্দই আলাদা। আমি তা মিস করতে চাইনি। গত রোববার সন্ধ্যায় আমিও নর্থ কলকাতার মিত্রা সিনেমা হলে দর্শকদের সঙ্গে বসে ছবিটি উপভোগ করেছি।



‘আমি শুধু চেয়েছি তোমায়’ ছবির শুটিংয়ের জন্য আপনাকে ঢাকায়ও আসতে হয়েছিল। কেমন ছিল শুটিংয়ের সেই দিনগুলো?

শুটিং করতে খুব অল্প সময়ের জন্য ঢাকায় এসেছিলাম। বেশি দিন থাকা হয়নি। ঢাকায় আমার এত ভক্ত আছে তা এখানে না আসা এলে জানতাম না। শুটিং করতে গিয়ে তা ভালোভাবেই টের পেয়েছি। বাংলাদেশের সব মানুষ আমাদের খুবই আন্তরিকভাবে স্বাগত জানিয়েছেন। অনেক ভালোবাসা পেয়েছি তাঁদের কাছ থেকে।

‘আমি শুধু চেয়েছি তোমায়’ ছবির দৃশ্য‘আমি শুধু চেয়েছি তোমায়’ ছবিতে বেশ কয়েকটি গান আছে। নায়ক হিসেবে কোন গানগুলো আপনার পছন্দের তালিকায় এগিয়ে আছে?

ছবির টাইটেল গান তো অবশ্যই। পাশাপাশি বাংলাদেশের সংগীত পরিচালক ও গায়ক হূদয় খানের ‘তুমি যদি’ গানটি দারুণভাবে পছন্দ আমার।

চলচ্চিত্রে আপনার টার্নিং পয়েন্ট…

সুজিত গুহ পরিচালিত ‘কেল্লাফতে’ ছবি দিয়ে ২০০৮ সালে আমার চলচ্চিত্র জগতে যাত্রা শুরু। তবে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান অশোক ধনুকা আমার জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেয়। এই প্রতিষ্ঠানের হয়ে ‘ইডিয়ট’, ‘কানামাছি’, ‘খিলাড়ি’ ছবিগুলোতে অভিনয় করি। আর এই ছবিগুলোই আমাকে কলকাতার ছবিতে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার পথ সহজ করে দেয়।

ছবিতে অভিনয় করছেন খুব বেশি দিন হয়নি। এরই মধ্যে আপনি দারুণ জনপ্রিয়তা পেয়েছেন। অভিনয় করতে গিয়ে কাউকে প্রতিযোগী মনে হয়েছে? 

একসঙ্গে যদি একাধিক নায়কের ছবি মুক্তি পায় তখন কিছুটা চিন্তা হয়। তবে অন্য সময় এ নিয়ে ভাবার কোনো সময় নেই। সবাই যাঁর যাঁর অবস্থান থেকে সেরা কাজটুকু করে যাচ্ছেন। আমি বিশ্বাস করি, কেউ কারও জায়গার ক্ষতি করতে পারে না। কারও জনপ্রিয়তায় কেউ ভাগ বসাতে পারে না। এর জন্য শিল্পী নিজেই দায়ী। একজন শিল্পী যদি তাঁর কাজের প্রতি সত্ থাকে, তাহলে দর্শকদের মাঝে সে কিংবা তিনি অনেক দিন পর্যন্ত টিকে থাকবেন।

জুটি হিসেবে অঙ্কুশের পছন্দ…

আমি প্রথম ছবিতে অভিনয় করি রূপশ্রী নামের একজন নায়িকার বিপরীতে। এরপর নুসরাত ও শ্রাবন্তীর সঙ্গে আমার ছবি দারুণ জনপ্রিয়তা পায়। দুজনই তখন সুপারস্টার। তার পরও আমার মনে হয়েছে, একসঙ্গে সব ছবিতে অভিনয় করলে আমরা হয়তো একঘেয়ে হয়ে যাব। আসলে নতুন জুটির আলাদা মজা আছে। ‘আমি শুধু চেয়েছি তোমায়’ ছবিতে জুটি বাঁধলাম শুভশ্রীর সঙ্গে। একজন অভিনেতা হিসেবে নির্দিষ্ট কারও সঙ্গে অভিনয়ের পক্ষপাতী আমি নই।

রোমান্টিক অভিনেতা অঙ্কুশ…

এখন পর্যন্ত আমার যেসব ছবি মুক্তি পেয়েছে, সেগুলো রোমান্টিক ঘরানার। তবে আমার কাছে যে পুরোদস্তুর অ্যাকশন ঘরানার ছবিতে অভিনয়ের প্রস্তাব আসেনি তা কিন্তু নয়। তা ছাড়া আমিও নিজেকে নির্দিষ্ট কোনো ইমেজে বেঁধে রাখতে চাই না। নির্দিষ্ট কোনো ইমেজ তৈরি করলে পরে আমারই চাপ হবে। বাংলা ছবি এমনিতে খুব বেশি তৈরি হয় না। তাই একটা কৌশল রাখার চেষ্টা করি। চেষ্টা করি, নিজেকে ভার্সেটাইল রাখতে। একটা ব্যাপার কিন্তু দারুণভাবে লক্ষণীয়, লাভ স্টোরি কখনো পুরোনো হয় না। 

‘আমি শুধু চেয়েছি তোমায়’ ছবির দৃশ্যনতুন ছবিতে অভিনয়ের আগে কোন বিষয়টা খেয়াল রাখেন?

ঠিক আগ মুহূর্তের ছবিটির চেয়ে নতুনটির মধ্যে কী ভিন্নতা আছে। গল্প, নির্মাণ এবং নিজের চরিত্রটিও এ ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রাখে।

সম্প্রতি একটি টিভি অনুষ্ঠানে প্রসেনজিৎ আপনার অনেক প্রশংসা করেছেন। তাঁর মতো গুণী একজন অভিনেতার মুখে প্রশংসা শুনে কেমন লেগেছে?

‘আমি শুধু চেয়েছি তোমায়’ ছবির প্রচারণা চালাতে বিভিন্ন টিভি অনুষ্ঠানে যেতে হয়েছে। বুম্বাদার (প্রসেনজিৎ) উপস্থাপনায় ‘তুমি যে আমার’ অনুষ্ঠানেও গিয়েছিলাম। বুম্বাদা এমন একজন মানুষ, যিনি ৩০ বছর ধরে কলকাতার ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিকে একাই টেনে চলছেন। তাঁর মতো মানুষ যখন প্রশংসা করেন, তখন ভালো না লেগে কী পারে!

এবার পেছনে ফেরা যাক। নায়ক হওয়ার বাসনা হলো কেন?

আমাদের পরিবারের কেউ মিডিয়ার কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিল না। তবে ছবি দেখতে খুব ভালোবাসতাম। ভালো ছবি মুক্তি পেলেই হলে গিয়ে দেখতাম। আমি অবাক হতাম এই ভেবে যে, কীভাবে একজন নায়ক টানা তিন ঘণ্টা মানুষকে মন্ত্রমুগ্ধের মতো আটকে রাখেন! মনে মনে স্বপ্ন দেখতে থাকি, সে রকম কিছু হওয়ার।

এ জাতীয় আরও খবর