বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তিস্তা চুক্তিতে স্বাক্ষর করবেন মোদি!

modi-----------আর্ন্তজাতিক ডেস্ক : ভারতের নব নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশ সফরের সময় বহুল প্রতিক্ষীত তিস্তা চুক্তিতে স্বাক্ষার করবেন। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তিনি প্রথম বিদেশ সফর করতে পারেন ঢাকায়। বৃহস্পতিবার সে দেশের ‘বিসনেস স্টান্ডার্ড’ পত্রিকায় এ খবর প্রকাশিত হয়েছে।

 
কূটনৈতিক সূত্রের বরাত দিয়ে পত্রিকাটি জানায়, নরেন্দ্র মোদির দল ভারতীয় জনতা পার্টি নির্বাচনে বিপুল বিজয় পাওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে টেলিফোনে অভিনন্দন জানান। এ সময় শেখ হাসিনা তাকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান। এ আমন্ত্রণ গ্রহণ করলে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে এটি হবে তার প্রথম বিদেশ সফর। মোদি এতে আগ্রহ প্রকাশ করে ঢাকাকে তার ‘দ্বিতীয় বাড়ি’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন বলে পত্রিকাটি জানিয়েছে।
 
‘বিসনেস স্টান্ডার্ড’ আরো জানায়, দুই নেতা টেলিফোনে তিস্তা চুক্তি নিয়েও কথা বলেন। বাংলাদেশের বহুল প্রতীক্ষিত এই চুক্তি স্বাক্ষরে বাস্তবস্মমত এবং অর্থবহ উদ্যোগ নেবেন বলে মোদি প্রধানমন্ত্রী হাসিনাকে আশ্বস্ত করেছেন।
 
তবে তিস্তা নদীর পানি ভাগাভাগির চুক্তির ঘোর বিরোধী হচ্ছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। তার বিরোধিতার কারণেই অনেক চেষ্টা করেও এই চুক্তি বাস্তবায়ন করতে পারেননি প্রধানমন্ত্রী মোনমোহন সিং। প্রধানমন্ত্রী মনমোহনের ঢাকা সফরের সময়(৬-৭ সেপ্টেম্বর ২০১১) এই চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হওয়ার কথা ছিল। এরপর কংগ্রেস সরকার আরো বেশ কয়েকবার উদ্যোগ নিলেও তারা তাতে সফল হতে পারেনি।
 
এবারের নির্বাচনে মোদির দল ভারতীয় জনতা পার্টি লোকসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন লাভ করেছেন। তাই তাদের পক্ষে চুক্তি স্বাক্ষরে মমতাকে প্রভাবিত করা সহজ হবে বলেই ধরণা করা হচ্ছে। তবে শুধু মমতাকে হাত করলেই হবে না, সিকিমের মুখ্যমন্ত্রী পবন কুমার চামলিংকেও রাজি করাতে হবে মোদিকে।
 
নির্বাচনে জয়লাভের পর প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়তে চাইছেন মোদি। এজন্য আগামী সোমবার প্রধানমন্ত্রীর শপথ অনুষ্ঠানে সার্কভুক্ত দেশগুলোর নেতাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। এছাড়া আসিয়ানভুক্ত দেশগুলোর নেতাদেরকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে । আরো আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, চীনা প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াং এবং দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমাকে।
 
কিন্তু ঢাকার সঙ্গে সুদৃঢ় সম্পর্ক গড়তে তিস্তা চুক্তির বিকল্প নেই। এজন্যই এ চুক্তির বিষয়ে আগ্রহী দেখাচ্ছেন মোদি।