বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশি বিজ্ঞানীর সাফল্য ব্যাঙের নতুন দুই প্রজাতির সন্ধান

ব্যাঙের ডাক ও ডিএনএ বৈশিষ্ট্য বিশ্লেষণ করে এই উভচর প্রাণীটির নতুন দুটি জাত আবিষ্কার করেছেন বাংলাদেশের বিজ্ঞানী মাহমুদুল হাছান৷

এই ব্যাঙ দুটির একটির নামকরণ করা হয়েছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রয়াত শিক্ষক মোখলেসুর রহমানের নামে, ‘মাইক্রোহিলা মোখলেসুরি’৷ অন্যটি ময়মনসিংহ জেলার নামে ‘মাইক্রোহিলা মাইমেনসিংহেসিস’৷

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে মোখলেসুর রহমানের কাছে ব্যাঙ গবেষণায় হাতেখড়ি মাহমুদুল হাছানের৷ দ্বিতীয়টির দেখা মেলে ময়মনসিংহ অঞ্চলে, নামকরণও সেখান থেকে৷

এ বছর বিশ্বের জীববৈচিত্র্যবিষয়ক প্রভাবশালী জার্নাল জুয়োলজিক্যাল সায়েন্স ও জুটেক্সা এই দুই প্রজাতির ব্যাঙ নিয়ে ইতিমধ্যে গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে৷ হিরোশিমা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাময়িকী ইনোভেশন-এ প্রচ্ছদ প্রতিবেদনও ছাপা হয়েছে৷ ডিএনএ আর ব্যাঙের ডাক বিশ্লেষণ করে প্রজাতি নির্ধারণের কৌশল উন্নত বিশ্বে অনেক আগে থেকে শুরু হলেও বাংলাদেশের বিজ্ঞানীদের কাছে এটা নতুন৷

প্রাণিবিজ্ঞানী ও দুবাই চিড়িয়াখানার প্রধান রেজা খান মাহমুদুল হাছানের এ দুই প্রজাতির ব্যাঙ আবিষ্কারকে দেশের প্রাণিবিজ্ঞান নিয়ে গবেষণায় নতুন যুগের সূচনা হিসেবে মনে করেন৷ তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘ডিএনএ ও ডাক বিশ্লেষণ করে ব্যাঙের জাত আবিষ্কারের ফলে আগামী দিনে হয়তো আরও নতুন প্রজাতির ব্যাঙ সম্পর্কে আমরা জানতে পারব৷’

মাইক্রোহিলা মোখলেসুরি ব্যাঙের দেখা পাওয়া যায় চট্টগ্রামের রাউজানেমাহমুদুল হাছান বর্তমানে জাপানের হিরোশিমা বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যাঙ নিয়ে গবেষণা করছেন৷ তিনি জানান, অনেক ব্যাঙ আছে, যেগুলো দেখতে একই রকমের হলেও তারা ভিন্ন প্রজাতির৷ একমাত্র ডিএনএ ও ডাক বিশ্লেষণ করেই এই প্রজাতিগুলোর বৈশিষ্ট্য বোঝা যায়৷ ডিএনএ জীবদেহের গঠন ও ক্রিয়াকলাপ নিয়ন্ত্রণের জিনগত নির্দেশনা ধারণ করে৷ বাংলাদেশ সরকারের অনুমতি নিয়ে ব্যাঙগুলোর পায়ের নখের নমুনা জাপানের হিরোশিমা বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণাগারে বিশ্লেষণ করে এদের জাত নির্ধারণ করা হয়েছে৷

মাহমুদুল ‘মাইক্রোহিলা মোখলেসুরি’ প্রজাতিটির দেখা পান চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলায়৷ তবে দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব অঞ্চলে, অর্থাৎ চট্টগ্রাম এলাকায় এর দেখা পাওয়া যায়৷ আর মাইক্রোহিলা মাইমেনসিংহেসিস ব্যাঙটি ময়মনসিংহের পাশাপাশি মধ্য ও মধ্য-পূর্ব অঞ্চল তথা ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, সিলেট ও সুনামগঞ্জ এলাকায় দেখা যায়৷

মাইক্রোহিলা মোখলেসুরিকে তার সহোদর থেকে আলাদা করে চেনার উপায় হলো, এটির আঙুলের অগ্রভাগ স্ফীত নয়৷ একটি উল্টো “ট” চিহ্ন পায়ুর ঠিক ওপরে আছে৷ তা ছাড়া দেহের পিঠের ওপরে আছে “ঢ” আকৃতির দাগ৷

মাইক্রোহিলা ময়মনসিংহেসিসে পায়ুর ওপরে অর্ধচন্দ্রাকৃতির একটি দাগ রয়েছে৷ আর পেছনের পা খুব লম্বা৷ এর ফলে এরা অন্যদের তুলনায় অতি দ্রুত ঝটপট লাফ দিতে পারে৷

প্রাণিবিজ্ঞানীদের গবেষণায় পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে মোট ৪৯ প্রজাতির উভচর প্রাণী রয়েছে৷ এর মধ্যে ব্যাঙ ৪৭ প্রজাতির৷

এ জাতীয় আরও খবর

যুদ্ধাপরাধে হবিগঞ্জের শফির প্রাণদণ্ড, তিনজনের আমৃত্যু কারাদণ্ড

কর্মী সংকট : যুক্তরাষ্ট্রে একদিনে ৬ শতাধিক ফ্লাইট বাতিল

১০ দিনে তিস্তার পানি ৫ বার বিপদসীমার ওপরে, আবারও বন্যার আশঙ্কা

তিনদিনের ব্যবধানে ৪ সাহিত্যিকের বিদায়

সিলেটে বন্যায় ৭২ লাখ মানুষের সহায়তা প্রয়োজন

পদ্মা সেতুর নাট খোলা বায়েজিদ ক্ষমা চাচ্ছেন: সিআইডি

চলতি অধিবেশনে ৯০ শতাংশ সময় ব্যয় হয়েছে পদ্মা সেতুর আলোচনায় : রুমিন

‘আবারও অঘটন’ ঘটালেন অপূর্ব!

ইউপি সদস্যকে গুলি করে হত্যা

একাকিত্ব সইতে না পেরে গলায় ফাঁস নিলেন শিক্ষক!

এবার বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেসওয়েতেও মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ হচ্ছে!

ষড়যন্ত্রের ফলে পদ্মা সেতু নির্মাণে দেরি হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী