শনিবার, ১৩ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘প্রথম আলো ত্রিশ লাখ শহীদকে অপমান করেছে’

ছবি:  সজীব ওয়াজেদ জয়। প্রথম আলো ‘বর্জনের’ ডাক দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীপুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়। একইসঙ্গে তিনি দাবি করেছেন, ‘ওয়ান ইলেভেনের সময় পত্রিকাটি ‘খোলামেলাভাবে’ স্বৈরশাসকের পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলো।’সোমবার রাতে নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুক পেজে জয় লেখেন, ‘আমাদের সবচেয়ে বড় বাংলা পত্রিকা প্রথম আলো আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধকে ‘ভারত-পাকিস্তান’ যুদ্ধ হিসেবে উল্লেখ করেছে। এর মাধ্যমে তারা একাত্তরের ত্রিশ লাখ শহীদকে অপমান করলো। আমি মনে করি, এটি একটি ঘৃণ্য অপরাধ এবং এর জন্য দায়ী ব্যক্তিদের অবিলম্বে বরখাস্ত করা উচিৎ।’প্রধানমন্ত্রীপুত্র তার লেখায় বলেন, ‘এটা আমাকে খুব অবাক করেনি। আপনি যদি ২০০৭-২০০৮ সালের কথা মনে করেন, তাহলে দেখবেন প্রথম আলো তখন খোলামেলাভাবে সামরিক স্বৈরশাসনের পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলো। প্রথম আলো আবারও প্রমাণ করলো যে, তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না।’জয় আরও বলেন, ‘এবার তারা নতুন করে প্রমাণ করলো, তারা বাংলাদেশেও বিশ্বাস করে না। চলুন প্রথম আলো বর্জন করি এবং তাদের কাছে এই বার্তা পৌঁছে দিই, যারাই বাংলাদেশ সমর্থন করে না আমরা তাদের রুখে দেবো।’

ভারতের হবু প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে নিয়ে গত শনিবার দৈনিক প্রথম আলোয় একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। ওই প্রতিবেদনে মোদী সম্পর্কে বেশ কিছু তথ্য দেওয়ার এক পর্যায়ে উল্লেখ করা হয়, ‘আরএসএসের প্রচারক হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দেন ১৯৭১ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের পর’।

শীর্ষস্থানীয় দৈনিকটিতে মুক্তিযুদ্ধকালকে ভারত পাকিস্তান যুদ্ধ বলে প্রচার করায় এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও ব্লগগুলোতে তোলপাড় শুরু হয়। একদিন পর রোববার ‘প্রকাশিত তথ্যের ব্যাখ্যা’ দেয় পত্রিকাটি।

ব্যাখ্যায় বলা হয়, প্রতিবেদনটির তথ্যের উৎস ছিল বার্তা সংস্থা আইএএনএস। তাই প্রতিবেদনে সূত্রের তথ্য হুবহু রাখা হয়েছে। যদিও আগের দিনের প্রতিবেদনে তথ্য সূত্র হিসেবে বার্তা সংস্থা আইএএনএস’এর নাম উল্লেখ করা হয়নি।