শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মেসির সবচেয়ে বাজে মৌসুম?

গত কয়েকটা বছর লিওনেল মেসিকে নিয়ে যত সংবাদ হয়েছে, তা বর্তমান সময়ের আর কোনো খেলোয়াড়কে নিয়ে হয়েছে কি না, তা বলা মুশকিল। সেসব অধিকাংশ সংবাদেই স্তুতির প্লাবনে ভাসানো হয়েছে আর্জেন্টাইন জাদুকরকে। এত এত রেকর্ড ভেঙেছেন, সেসবের অনেকগুলো হয়তো নিজেই জেনেছেন পত্রিকা পড়ে! তাঁর নামের পাশে এত্তবার ‘ভাঙা’ শব্দটা এসেছে, খেলাধুলার বাইরের লোক মনে করতেই পারে, মেসি ছেলেটা সুবিধার নয় মোটেও। তাঁর কাজই বোধ হয় ‘ভাঙচুর’। অথচ এবার মৌসুমটা মেসির জন্য শূন্যতা, হাহাকারে ভরা। বার্সেলোনাকে এনে দিতে পারেননি চ্যাম্পিয়নস লিগ, লা লিগা, কোপা ডেল রে—বড় শিরোপার একটিও। জিতেছেন কেবল স্প্যানিশ সুপার কাপটাই।



এমনটা সর্বশেষ ঘটেছে কবে? সেই ২০০৬-০৭ মৌসুমে। তখন অবশ্য তাঁকে পড়ে থাকতে হতো রোনালদিনহোর ছায়ায়। রোনালদিনহোর যখন ‘সারা’, মেসির তখন ‘শুরু’। তখন থেকেই চিতার গতিতে ছুটতে শুরু করলেন বার্সা ফরোয়ার্ড। তাঁর নান্দনিক ফুটবলে মোহাবিষ্ট হলো অযুত-নিযুত-লক্ষ-কোটি ভক্ত-সমর্থক। গোল হয়ে উঠল তাঁর পোষা বেড়াল! বল যেন একান্ত অনুগত এক বস্তু! মেসির পা দুটোয় তার সার্বক্ষণিক আশ্রয়। প্রতিপক্ষের কড়া নজরদারি থোড়ায় তোয়াক্কা করে, চীনের প্রাচীরের মতো জমাট রক্ষণ ভেঙে, বিদ্যুেবগে ছুটে একের পর এক বল জড়িয়ে দিয়েছেন প্রতিপক্ষের জালে। ড্রিবলিং, চিপ, ভলি, ফ্রি-কিকগুলো যেন সবুজ ক্যানভাসে শিল্পীর তুলিতে মুগ্ধতাজাগানিয়া আঁচড়। একেকটা মৌসুম মানে রেকর্ডের পর রেকর্ড হুড়মুড়িয়ে এসে পড়ে আর্জেন্টিনা জাদুকরের চরণতলে। প্রতিবারই ছাড়িয়ে গেছেন নিজেকে। ক্লাবে যে মৌসুম থেকে তাঁর উত্থান, সেই ২০০৮-০৯ মৌসুমে করলেন ৩৮ গোল (আগের মৌসুমে করেছিলেন ১৬ গোল)। ২০০৯-১০ মৌসুমে করলেন ৪৭ গোল, ২০১০-১১ মৌসুমে ৫৩, ২০১১-১২ মৌসুমে ৭৩, ২০১২-১৩ মৌসুমে ৬০।



সেই মেসিকে এবার খানিকটা অচেনাই লাগল। যদিও এ মৌসুমেও ৪৬ ম্যাচে গোল করেছেন ৪১টি। সংখ্যার বিচারে খারাপ বলার উপায় নেই। কিন্তু এ মৌসুমে অনেক ম্যাচে তাঁর শারীরিক ভাষা নিয়ে প্রশ্ন জাগতে পারে, এ কোন মেসি? সব ম্যাচে গোল পাওয়া যায় না, সম্ভবও নয়—এ আপ্তবাক্যও মানতে হবে। তবুও মেসির জড়তা, নিষ্প্রভ ভঙ্গি নানা প্রশ্নের উদ্রেক করে বৈকি। মেসির পা থেকে বল কেড়ে নিচ্ছেন প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়েরা, ভাবা যায়! কখনো কখনো প্রতিপক্ষের রক্ষণভাগ মেসির কাছে হয়ে উঠেছে দুর্বোধ্য রহস্য। মেসিকে তখন মনে হয়েছে, নবিশ কিংবা অখ্যাত কোনো খেলোয়াড়! কেউ কেউ এমনও অভিযোগ করেছেন, গা বাঁচিয়ে খেলছেন মেসি! কিন্তু কেন?লা লিগার শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে লিওনেল মেসির কাছ থেকে বল কেড়ে নিচ্ছেন অ্যাটলেটিকোর গোডিন। মেসির ক্ষেত্রে এমন দৃশ্য এ মৌসুমে অনেকবারই দেখা গেছে।  ছবি: রয়টার্স



এ মৌসুমে ইনজুরি খুব ভুগিয়েছে। নভেম্বরের পর প্রায় দেড় মাস ছিলেন দলের বাইরে। জানুয়ারিতে ফেরার পর পারফরম্যান্সের পরিপ্রেক্ষিতে গুঞ্জন ওঠে, মেসি নাকি সেরা খেলাটা বিশ্বকাপের জন্য জমিয়ে রেখেছেন। এটা ঠিক, বিশ্বকাপ ভাবিত করে তুলেছে মেসিকে। কদিন আগেও বলেছেন, ‘বিশ্বকাপ না জিতলে সত্যিকারের কিংবদন্তি হওয়া যায় না।’ তবে কি বিশ্বকাপকেন্দ্রিক চিন্তার কারণেই ‘গা বাঁচিয়ে’ খেলছেন তিনি? এ ক্ষেত্রে কেউ কেউ যুক্তি দিচ্ছেন, বিশ্বকাপের আগে ফের যাতে ইনজুরিতে না পড়তে হয়, সে জন্য অতিসতর্ক থাকতে হয়েছে তাঁকে। আসলে কোনো রকম ঝুঁকি নিতে চাননি।



এর সঙ্গে যোগ হয়েছে বেতন বৃদ্ধি-সংক্রান্ত বিতর্ক। এমনও শোনা গেছে, ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর চেয়ে বেতন কম বলে নাকি ‘অসন্তুষ্টি’ কাজ করেছে তাঁর মধ্যে। অবশ্য মৌসুম শেষে এ বিষয়ে সুরাহার উদ্যোগ নিয়েছে বার্সা কর্তৃপক্ষ।



খেলাধুলায় সব সময় সাফল্যই মূল কথা। সেই অর্থে, এ মৌসুমটা বাজেই গেল মেসির। হয়তো গোল করেছেন ৪১টি কিন্তু হাতে ওঠেনি বলার মতো কোনো শিরোপা। অনেকটা শূন্য হাতেই মৌসুমটা শেষ করতে হলো এবার। চেয়ে চেয়ে দেখতে হলো প্রতিপক্ষের শিরোপা জয়ের উল্লাস। সব মিলিয়ে ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বাজে মৌসুমটাই কি কাটালেন এবার?

এ জাতীয় আরও খবর