মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রানা সাতদিনের রিমান্ডে

সাতজনকে খুনের ঘটনায় চাকরি হারানো নৌবাহিনীর কর্মকর্তা লে. কমান্ডার এম এম রানাকে সাত দিনের রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করার আদেশ দিয়েছেন আদালত। আজ রোববার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ বিচারিক হাকিম কে এম মহিউদ্দিনের এ আদেশ দেন।

এর আগে নারায়ণগঞ্জ ক্যাম্পের সাবেক প্রধান লে. কমান্ডার এম এম রানাকে বিচারিক হাকিম আদালতে নেওয়া হয়। তাঁকে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে ১০ দিনের চায় পুলিশ। শুনানি শেষে আদালত সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

শুনানি চলাকালে রানার বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে আইনজীবী সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ‘আইনের রক্ষক হয়ে সে পেশাদার খুনির মতো টাকার বিনিময়ে সাতজন মানুষের লাশ ফেলে দিয়েছে।’

এম এম রানা নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন, যেদিন ঘটনা ঘটেছিল ওই দিন তিনি নারায়ণগঞ্জ এলাকায় ছিলেন না।

উল্লেখ্য, নারায়ণগঞ্জ সাতজনকে অপহরণ ও খুনের ঘটনায় অবসরে পাঠানো নৌবাহিনীর কর্মকর্তা ও র‌্যাবের নারায়ণগঞ্জ ক্যাম্পের সাবেক প্রধান লে. কমান্ডার এম এম রানাকে গতকাল শনিবার ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গ্রেপ্তারের পর পুলিশ তাঁকে নারায়ণগঞ্জে নেয়। এর আগে গত শুক্রবার গভীর রাতে গ্রেপ্তার হন র‌্যাব-১১-এর সাবেক অধিনায়ক লে. কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মাদ ও মেজর আরিফ হোসেন।

গত ২৭ এপ্রিল দুপুরে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড থেকে অপহৃত হন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, জ্যেষ্ঠ আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাতজন। এর তিন দিন পর ৩০ এপ্রিল ছয়জনের এবং পরদিন আরও একজনের লাশ শীতলক্ষ্যা নদীতে ভেসে ওঠে। এ ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নূর হোসেনকে প্রধান আসামি করে মামলা করে নজরুলের পরিবার। ৪ মে নজরুলের শ্বশুর শহীদুল ইসলাম ওরফে শহীদ চেয়ারম্যান সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন, ছয় কোটি টাকার বিনিময়ে র্যাবের তিন কর্মকর্তা ওই সাতজনকে অপহরণ ও খুন করেছেন।

সাত খুনের ঘটনার পর র‌্যাব-১১-এর এই তিন কর্মকর্তাকে নিজ নিজ বাহিনীতে ফেরত নেওয়া হয়৷ তারপর তাঁদের অবসরে পাঠানো হয়। ১১ মে হাইকোর্ট তাঁদের গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেন৷ অবশেষে তিনজনই গ্রেপ্তার হন।