রবিবার, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরাইলে শিক্ষিকাদের ভাড়ায় চলছে সরকারি বিদ্যালয়

primary schoolডেস্ক রির্পোট : গ্রীষ্মের প্রচণ্ড তাপদাহ। ছোট একটি বিদ্যুৎবিহীন টিনশেড ঘর। তিনটি কক্ষ। মাসিক ভাড়া এক হাজার টাকা। বেতন না পেলেও ভাড়ার টাকা নিয়মিত গুনছেন চার শিক্ষিকা। কোন রকম চলছে পাঁচ শ্রেণীর পাঠদান। গরমে অতিষ্ঠ হয়ে জামা-কাপড় খুলে ক্লাস করছে শিক্ষার্থীরা। এ ঘরটিও জুন মাসের আগে ছেড়ে দেওয়ার নোটিশ দিয়েছে মালিক। অন্য কোথাও বাড়ি ভাড়া পাওয়া যাচ্ছে না। বিদ্যালয়টি এখন বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা। ১৭১ জন শিক্ষার্থী এখন ১১৪ জনে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে উপস্থিত থাকে বিভিন্ন শ্রেণীর ১৫-২০ জন শিক্ষার্থী। বিদ্যালয়ের নাম জিলুকদার পাড়া বেসরকারি রেজি. প্রাথমিক বিদ্যালয় (বর্তমানে সরকারি)। সরাইল-নাসিরনগর সড়কের পাশে সদর ইউনিয়নের জিলুকদার পাড়া গ্রামে অবস্থিত। বিদ্যালয় ভবনটির নির্মাণকাল ১৯৯৪ সাল। চার জন শিক্ষিকার তত্ত্বাবধানে দীর্ঘদিন ধরে চলছে বিদ্যালয়টি। এক সময় উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শিক্ষার্থীর পদচারণায় মুখরিত ছিল এ বিদ্যালয়। এক সময় বিদ্যালয় ভবনটি ডেমেজ হয়ে যায়। ছাদ ও পিলারের পলেস্তার খসে পড়তে থাকে প্রতিদিন। রড বের হয়ে যায় ভবনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানের। পলেস্তরা খসে আহত হন একাধিক শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থী। ২০০৭ সালে বিদ্যালয় ভবনটিকে জরাজীর্ণ ও পরিত্যক্ত ঘোষণা করে উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর। তারপরও বেশ কয়েক বছর অত্যন্ত ঝুঁকির মধ্যে চলে পাঠদান। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা একপত্রে জরাজীর্ণ ওই ভবনে পাঠদান বন্ধের নির্দেশ দেন প্রধান শিক্ষিকা শারমিন সুলতানাকে। রেজি. স্কুলগুলোকে সরকারিকরণের ঘোষণা দিয়ে শিক্ষকদের বেতন বন্ধ করে দেয় সরকার। ২০১৩ সালের ৩০শে এপ্রিল পরিত্যক্ত মূল ভবন ছেড়ে দেন তারা। পাশের একটি টিনশেড ঘর ভাড়া নেন। বেতন বন্ধ তারপরও ঘরের ভাড়া দিতে থাকেন কর্মরত চার শিক্ষিকা। আজও দিচ্ছেন। ঘরটিকে ছোট তিনটি কক্ষে বিভক্ত করা হয়। দুই শিফটে পরিচালিত হতে থাকে বিদ্যালয়। গরমে বসার কষ্ট। আস্তে আস্তে কমতে থাকে উপস্থিতি। অতিসমপ্রতি সরজমিন দেখা যায়, বিদ্যালয়ের নতুন ভবন না হওয়ায় ক্ষিপ্ত আশপাশের অভিভাবকরা। অনেকে এত দ্রুত একটি পাকা বিল্ডিং জরাজীর্ণ হয়ে যাওয়ায় সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারের মান নিয়ে ও তুলেছেন নানা প্রশ্ন। শিক্ষিকারা প্রচণ্ড তাপদাহে অবসর সময় কাটাচ্ছেন। কেউ হাত পাখা দিয়ে বাতাস করছেন। তৃতীয় শ্রেণীর ২৫ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৭ জন, পঞ্চম শ্রেণীতে ১৪ জনের মধ্যে ৬ জন উপস্থিত থাকলেও ২১ জন শিক্ষার্থীর চতুর্থ শ্রেণী ছিল একদম ফাঁকা। চারজন শিক্ষিকা ও ১৩ জন শিক্ষার্থী নড়াচড়া করছেন বিদ্যালয়ে। সহকারী শিক্ষিকা ঝর্ণা আক্তার বলেই ফেললেন, ‘আমাদেরকেসহ গণনা করেন।’ একাধিক অভিভাবক ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, পলেস্তরা পড়ে শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। মাথায় সেলাই দিতে হয়েছে। আমরা বাধ্য হয়ে শিক্ষার্থীদের অন্যত্র নিয়ে যাচ্ছি। বাচ্চারা আর কত কষ্ট করবে। প্রধান শিক্ষিকা শারমিন সুলতানা বলেন, বিদ্যালয়ের ছাদ পিলার থেকে প্রতিদিনই খসে পড়ছে পলেস্তরা। সেখানে পাঠদান ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় ডিপিও স্যারের নির্দেশে ভাড়া বাড়িতে এসেছি। আমরা চার জন শিক্ষিকা মিলে ২০১৩ সালের এপ্রিল মাস থেকে এক হাজার টাকা ভাড়া পরিশোধ করে আসছি। এ মাসেই বাড়ি ছেড়ে দিতে বলেছে মালিক। কোথাও ভাড়া পাচ্ছি না। শেষ পর্যন্ত পাঠদান বন্ধ হয়ে যায় কিনা চিন্তায় আছি।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. তৌফিকুল ইসলাম বলেন, বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণের জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে অনেক আগে প্রস্তাব পাঠিয়েছি। কোথাও ভাড়া পাওয়া না গেলে কাছের কোন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠদানের ব্যবস্থা করবো।