বুধবার, ২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ব্রাজিল ফুঁসছে বিক্ষোভে

বিশ্বকাপ ফুটবলের আয়োজন নিয়ে খুশি নয় ব্রাজিলীয়রা? এই মুহূর্তে দেশটির পরিস্থিতি তো তেমন নির্দেশনাই দিচ্ছে। রিও ডি জেনিরো, সাও পাওলো, বেলে হরিজেন্তে, ব্রাসিলিয়া, ম্যানাউস, পোর্তো অ্যালেগ্রে—বিশ্বকাপের ভেন্যু প্রায় প্রতিটি শহরই গতকাল শুক্রবার ফুঁসে উঠেছিল বিক্ষোভে। এই শহরগুলোর মানুষের কাছে বিশ্বকাপ ফুটবল আয়োজনের চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিত্সা ও যোগাযোগব্যবস্থার মানোন্নয়ন। তাদের মতে, বিশ্বকাপের আয়োজনের খরচ মেটাতে উন্নয়নশীল ব্রাজিলের সরকারের কাছে এই মৌলিক বিষয়গুলো গুরুত্ব হারিয়েছে।

শুক্রবার গভীর রাতে সাও পাওলো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সামনে জড়ো হয়ে বিশ্বকাপ আয়োজনের প্রতিবাদ জানাতে থাকেন রাজনৈতিক কর্মীরা। তাঁরা ব্রাজিল সরকার ও ফিফার বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে গেলে বিক্ষুব্ধ জনতা সাও পাওলো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নবনির্মিত টার্মিনালের নিচে পার্ক করা দুটি গাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয়।

সাও পাওলোর অন্যান্য স্থানও বিক্ষোভে অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠেছিল কাল। শহরটির বিভিন্ন বাণিজ্যিককেন্দ্রগুলো কাল দিনভরই ছিল বিক্ষোভকারীদের দখলে। শহরের কেন্দ্রেও ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের শিকার হয় বেশ কিছু গাড়ি।

এদিকে উত্তর-পূর্ব ব্রাজিলের রেসিফে কাল ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। লুটতরাজের সময় রেসিফে চলছিল পুলিশের ধর্মঘট।

ব্রাজিলের ক্রীড়ামন্ত্রী আলদো রেবেলো অবশ্য বিক্ষোভের এই ঘটনাকে খুব একটা আমল দিতে চাচ্ছেন না। তাঁর মতে, বিশ্বকাপ যতই এগিয়ে আসবে বিক্ষোভে অংশ নেওয়া মানুষের সংখ্যা কমতে থাকবে। ব্রাজিল হয়ে উঠবে উত্সবের দেশ। মানুষ ব্যস্ত হয়ে পড়বে ফুটবল-উন্মাদনায়।