শুক্রবার, ৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চলচ্চিত্রে ফিরলেন মুক্তি

Moktiইমরুল শাহেদ : আনোয়ারা তনয়া মুক্তি চলচ্চিত্রে এসেছিলেন। আবার চলেও গিয়েছিলেন। এবার আবার এসেছেন। তবে তার এবারের আসা আবার চলে যাওয়ার জন্য নয়। একেবারে পাকাপোক্তভাবে এখানে থেকে যাওয়ার জন্য। এখন আর তার পেছনে ফিরে তাকাবার সময় নেই। মুক্তি বলেন, এটাইতো আমার আসল ঠিকানা। এবার তাকে আসল ঠিকানায় ফিরিয়ে আনলেন নবীন পরিচালক রবিউল ইসলাম রাজ। তিনি সম্প্রতি লক্ষ্মণ চন্দ্র সমদ্ধারের প্রযোজনায় শুরু করেছেন কেন সন্ত্রাসী নামে একটি ছবি। এ ছবিতে মুক্তি একটি ব্যতিক্রমী ধরনের গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করছেন। পরিচালক রবিউল ইসলাম রাজ বলেন, মুক্তির সঙ্গে আমি বেশ কিছু ছবিতে সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেছি। এসব ছবিতে কাজ করার সময় মুক্তির আচার ব্যবহার আমাকে বেশ মুগ্ধ করত। মনে মনে ভাবতাম আমি যদি কখনো ছবি করি তাহলে মুক্তির সঙ্গে পরিচালক হিসেবেও কাজ করব। মুক্তি শুধু আমার কেন সন্ত্রাসী ছবিতেই কাজ করবে না, আমি তাকে আমার আরও একটি ছবিতে নেওয়ার পরিকল্পনা করেছি।
পদ্মানদীর মাঝি ছবিতে চম্পার মেয়ে গোপী চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে মুক্তির চলচ্চিত্রে আগমন। কিন্তু তার ব্যাপক পরিচিতি আসে চাঁদের আলো ছবির মাধ্যমে। তুমি আমার চাঁদ, চাঁদেরই আলো গানটি আজো দর্শক-শ্রোতাদের মুখে মুখে ফিরে। এরপর তিনি একে একে অভিনয় করেন লড়াই, শ্রাবন মেঘের দিনে, হাছন রাজা, রিক্সাওয়ালার প্রেম, দারোয়ানের ছেলে, পিতামাতার আমানত, তুমি আমার স্বামী এবং জগত সংসার ছবিতে। 
এভাবে মুক্তির ক্যারিয়ার যখন চলচ্চিত্র মহীরুহে ক্রমশ সাবলিলভাবে সুদৃঢ় ডালপালা বিস্তার করে চলেছে এবং একটা পাকাপোক্ত আসন তৈরি করে নিচ্ছে তখনই তিনি একটা বিরতির মধ্যে পড়ে যান। কারিমা নামে তার একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। তার দেখাশোনা, পড়াশোনার তদারকি করতে গিয়ে তিনি আর চলচ্চিত্র ক্যারিয়ারের দিকে নজর দিতে পারেননি। এই সময় তিনি দু’একটি টিভিসি ছাড়াও অসংখ্য নাটকে অভিনয় করেছেন। তার উল্লেখযোগ্য নাটকগুলোর মধ্যে রয়েছে খোলা জানালা, শ্রাবন্তীর ঘর-সংসার, বউ, বউ টুবানির ফুল, হঠাৎ কোনোদিন কখনো, আমি আবার আসব ইত্যাদি। আমি আবার আসব নাটকটিতে তিনি একটি প্রেতাত্মার চরিত্রে অভিনয় করেছেন। চন্দন চৌধুরী পরিচালিত বসত ভিটা নামে একটি ধারাবাহিক নাটকে এখন কাজ করছেন তিনি। 
মাঝের লম্বা বিরতিতে তিনি নাটকে কাজ করেছেন চলচ্চিত্রে নয় কেন জানতে চাওয়া হলে মুক্তি বলেন, আসলে কারিমা ছোট থাকার কারণে লম্বা সময় বের করতে পারছিলাম না। নাটকের জন্য বেশিদিন শিডিউলের দরকার হয় না। কিন্তু চলচ্চিত্রের জন্য লম্বা শিডিউলের যেমন দরকার হয় তেমনি আউটডোরে যেতে হয়। কারিমাকে রেখে আমি কোথাও যেতে পারছিলাম না এ সময়টাতে। এখন কারিমা বড় হয়েছে। পড়াশোনা করছে। এখন তাকে রেখে আমার কোথাও যেতে অসুবিধা নেই। তাই ভাবলাম এখন আসল ঠিকানায় ফেরা যায়।
মুক্তি বলেন, আমি অভিনয় প্রধান চরিত্রে কাজ করতে চাই। আমার সঙ্গে হিরো থাকতেই হবে এমন কোনও কথা নেই। তবে আমার অভিনীত চরিত্রটির গুরুত্ব থাকতে হবে। ছবি দেখার পর দর্শক যাতে বলে, মুক্তি একটি সুন্দর চরিত্রে অভিনয় করেছে।
পক্ষান্তরে চলচ্চিত্র এবং নাটক – অভিনয়ের এ দুটি জগতে বিচরণ করে মুক্তি এখন অনেক বেশি পরিশীলিত। যে কোনও ধরনের চরিত্রে অভিনয় করে তিনি উতরে যেতে পারবেন। তার আত্মবিশ্বাস তাকে আরও বেশি সাহসী করে তুলেছে। তার মা আনোয়ারা একজন দক্ষ অভিনেত্রী। নবাব সিরাজউদ্দৌলার আলেয়া চরিত্রটি তাকে ঢাকার চলচ্চিত্রে অমর করে রাখবে। সেই মায়ের কিছু গুণতো তার সৃজনশীলতার ক্ষেত্রে থাকবেই। মুক্তি যখন কথা বলেন, তখন অগাধ আত্মবিশ্বাস নিয়েই বলেন। তিনি বলেন, এখন ছবির ধারা বদলেছে। নতুন প্রযুক্তি চলচ্চিত্রকে নতুন মাত্রা দিচ্ছে। আমি বরাবরই সময়ের সন্তান। সময় যেমন পুরনো হয় না তেমনি আমিও। সময়ের সঙ্গে আমি সমসাময়িক।

 

 

এ জাতীয় আরও খবর

ডাচদের ‘প্রতিশোধের’ হুমকি, আর্জেন্টিনার ভাবনায় ইনজুরি

ক্রোয়েশিয়া বাধা টপকে সেমিতে যেতে পারবে ব্রাজিল?

হাজারীবাগে দুই শিশুসন্তানকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডিবিতে আনা হয়েছে ফখরুল-আব্বাসকে : হারুন

৫ নারীর হাতে বেগম রোকেয়া পদক তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী

সবজির দাম কমেছে, এখনো অস্বস্তি চাল-চিনি-তেলে

সতর্ক অবস্থানে পুলিশ : নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ে তালা, যান চলাচল বন্ধ

বিএনপিকে মোকাবিলা করবে ১৪ দল: আমু

এপিডিইউর ভাইস চেয়ারম্যান হলেন মির্জা ফখরুল

সাগরে ঘূর্ণিঝড় ‘মানদৌস’

শান্তিপূর্ণ সমাবেশের অধিকারের নিশ্চয়তা চায় জাতিসংঘ

বিএনপির গণসমাবেশ: বাঙলা কলেজ মাঠ পরিদর্শনে ডিএমপি