বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ছুটির ফাঁদ!

10e19f0fa8945ef898e5d74179107050ডেস্ক রিপোর্ট : প্রায় শতবর্ষী বিদ্যালয়টি এলাকার ঐতিহ্য। এখানকার শিক্ষার্থীরা ভালো ফল করে বলে পরিচিতি আছে। কিন্তু সম্প্রতি ছুটির ফাঁদে পড়ে স্কুলটির শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া লাটে উঠেছে। বিদ্যালয়টি পরীক্ষা কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হওয়ায় আজ এসএসসি পরীক্ষা তো কাল এইচএসসি, পরশু জেএসসি- এভাবে দিনের পর দিন বন্ধ থাকছে এর পাঠদান। পাশাপাশি এর সঙ্গে যোগ হয় আরো কিছু ছুটি। বিশেষ করে এখানে এইচএসসি ও জেএসসি পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর থেকে তিন-চার বছর ধরে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। সব মিলিয়ে দেখা গেছে, বছরে মাত্র ৯৪ দিন ক্লাস হয় এ বিদ্যালয়ে। অবশ্য ওই সময়গুলোতেও থাকে নানা ঝক্কি-ঝামেলা। বাধ্য হয়েই শিক্ষার্থীদের প্রাইভেটের দিকে ঝুঁকতে হচ্ছে। এ অবস্থা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আখাউড়ার বাংলাদেশ রেলওয়ে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের।

এ নিয়ে জমে থাকা ক্ষোভ থেকে ঠাট্টার সঙ্গে বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র দিব্যজিত পাল অর্ঘ্য বলে, 'বন্ধের জন্য যদি সারা দেশের কোনো স্কুল গোল্ড মেডেল পায়, তাহলে আমাদেরটা পাবে। স্কুল বন্ধ থাকাটাই আমাদের নিয়তি হয়ে দাঁড়িয়েছে।'

বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বছরে ৮৫ দিন সরকারি ছুটির পাশাপাশি ৫২টি শুক্রবার বিদ্যালয় বন্ধ থাকে। কেন্দ্র হওয়ায় জেএসসি পরীক্ষার জন্য ২৫ দিন, এসএসসির জন্য ৪২ দিন ও এইচএসসি পরীক্ষার জন্য ৩৪ দিন বিদ্যালয় বন্ধ থাকে। এ ছাড়া বিদ্যালয়ের নির্বাচনী পরীক্ষার জন্য ১৬ দিন ও বার্ষিক পরীক্ষার জন্য ১৪ দিন ক্লাস করা সম্ভব হয় না। প্রধান শিক্ষকের কাছে সংরক্ষিত তিন দিনের ছুটিও ব্যবহার করা হয় বিভিন্ন কারণে। ফলে ক্লাস করার জন্য থাকে মাত্র ৯৪ দিন। এর মধ্যে খড়মপুর মাজার শরিফে ওরস চলাকালে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা বিদ্যালয়ে অবস্থান নেন বলে ওই সময়েও পাঠদানে ব্যাঘাত ঘটে। ওই সময় রাস্তাঘাটে প্রচুর মানুষের সমাগম থাকে বলে শিক্ষার্থীরাও আসতে চায় না।

এদিকে বিদ্যালয়টিতে শিক্ষকের অভাবেও ব্যাহত হচ্ছে পড়াশোনা। এ ছাড়া রয়েছে কর্মচারী সংকট। বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষকের একটি, সহকারী শিক্ষক (প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত, বাণিজ্য বিভাগ) ও সহকারী শিক্ষক (প্রশিক্ষণবিহীন) একজন করে, জাতীয় ভাষা শিক্ষক দুজন, গ্রন্থাগারিক একজন, ড্রইং শিক্ষক একজন, নারী শিক্ষক একজন, ল্যাবরেটরি সহকারী একজন, অফিস সহকারী একজন, এমএলএসএস একজন, দপ্তরি একজন, আয়া একজন এবং একজন নৈশ প্রহরীর পদ খালি রয়েছে। বাণিজ্য বিভাগে শিক্ষক না থাকায় বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী (এমবিএর ছাত্র) ক্লাস নেন।

বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক মো. সোহরাওয়ার্দী শিপন ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, 'ক্লাস হয় না বলে শিক্ষার্থীদের প্রাইভেটের দিকে ঝুঁকতে হচ্ছে। আমার ছেলেকে তিন শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়াচ্ছি। জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত মাত্র ৮-৯ দিন ক্লাস হলেও আর কিছুদিন পরই শিক্ষার্থীদের পরীক্ষায় বসতে হবে। এ বিদ্যালয় থেকে অন্তত এইচএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র সরিয়ে নিলেও কিছুদিন বেশি ক্লাস করতে পারবে শিক্ষার্থীরা।'

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেক অভিভাবক বলেন, ঐতিহ্যগত কারণে ভালো শিক্ষার্থীরা এ বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়। যে কারণে এখনো উপজেলার মধ্যে ভালো ফল করে বিদ্যালয়টি। তবে এখন যে অবস্থা দাঁড়িয়েছে, তাতে শিক্ষার্থীরা এ স্কুলে ভর্তিই হতে চাইবে না।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. রকিব আহাম্মেদ খান খাদেম বলেন, 'এত বন্ধের জন্য আমরা শিক্ষার্থীদের ঠিকমতো পড়াতে পারি না। অনেক সময় অনেক কম পড়িয়েই পরীক্ষা নিতে হয়। ১১ জুন থেকে নির্বাচনী পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও জানুয়ারিতে মাত্র কয়েক দিন ক্লাস হয়েছে। আমরা শিক্ষার্থীদের বাড়িতে পড়তে উৎসাহী করি। অন্তত এইচএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রটি বিদ্যালয় থেকে সরিয়ে নিলে আমাদের অনেক উপকার হতো। বিদ্যালয়ের এসব সংকট নিরসনে উদ্যোগ নিতে গত ৫ এপ্রিল রেলওয়ের সংস্থাপন কর্মকর্তার (পূর্ব) কাছে স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে।'

আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল বলেন, 'সারা দেশে যখন শিক্ষার অগ্রগতি, তখন রেলওয়ে স্কুলের এমন অবস্থা মেনে নেওয়া যায় না। আমি বিষয়টি জানার পর আইনমন্ত্রীর (স্থানীয় সংসদ সদস্য) সঙ্গে আলোচনা করেছি। তিনি বিদ্যালয়ে শিক্ষক সংকটের ব্যাপারে একটি চাহিদাপত্র চেয়েছেন। তা ছাড়া এইচএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র এখান থেকে সরিয়ে নেওয়া যায় কি না, সে ব্যাপারেও চিন্তাভাবনা চলছে।'

এ জাতীয় আরও খবর