বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রেম করব, তবে বিয়ে নয়: স্পর্শিয়া

বিনোদন ডেস্কঃপ্রেম স্বর্গীয়, আর এ মানব প্রবৃত্তিরই অংশ। জীবনে প্রেম আসবে, ভাঙবে, আবার নতুন করে তৈরি হবে এই স্বাভাবিক। কিন্তু আমি কখনই বিয়ে করতে চাই না। নিজের বিয়ে নিয়ে এমনটিই জানান, এই প্রজন্মের মডেল ও অভিনেত্রী স্পর্শিয়া। পুরো নাম অর্চিতা স্পর্শিয়া। প্যারাসুট তেলের বিজ্ঞাপনের জনপ্রিয় সেই সংলাপটি মনে হয় এখনো দর্শক ভুলে যাননি। বিজ্ঞাপন প্রচারের পর ‘বন্ধু তিন দিন’ সংলাপটি পথেঘাটে বহুবার শুনতে হয়েছে স্পর্শিয়াকে।

hgfhgfh২০১১ সালে অনেকটা শখের বশেই বিজ্ঞাপনের মডেল হন তিনি। এরপর এয়ারটেলের টানা ১০-১২ টি বিজ্ঞাপনে কাজ করেন। পাশাপাশি প্রাণ, প্যারাসুট ইত্যাদি পণ্যের মডেল হিসেবে কাজ, আর সামির আহমেদের পরিচালনায় ‘অরুণোদয়ের তরুণ দল’ টেলিছবিতে অভিনয়ের মাধ্যমে নাটকের জগতে প্রবেশ। স্পর্শিয়া অভিনীত উল্লেখযোগ্য নাটকের মধ্যে রয়েছে ‘রোদ’, ‘ইম্পসিবল ফাইভ’, ‘বিসর্জন’, ‘আমাদের ছোট নদী চলে বাঁকে বাঁকে’, ‘ইচ্ছেঘুড়ি’, ‘সাইড ইফেক্ট’, ‘ভালোবাসার গল্প’, ‘গোপন কথা’, ‘ঘুনপোঁকার ভালোবাসা’ ইত্যাদি।1438_474761532649917_174228358_n

ইতিমধ্যে মডেল হিসেবে জনপ্রিয়। পাশাপাশি কাজ করছেন ছোট পর্দায়, বেছে বেছে । সম্প্রতি প্রচার শুরু হয়েছে বিবিসির প্রযোজনায় ‘উজান গাঙের নাইয়া’ শিরোনামের একটি ধারাবাহিক নাটক। গিয়াস উদ্দিন সেলিম ও বাশার জর্জিসের পরিচালনায় এ নাটকের গুরুত্বপূর্ণ একটি চরিত্রে অভিনয় করছেন তিনি।
নাটকটি নিয়ে স্পর্শিয়া বাংলানিউজকে বলেন, ‘আমি এ নাটকের জন্য টানা চারমাস অন্য কোন নাটকে কাজ করিনি। ঢাকার বাইরে গিয়ে অনেক কষ্ট করে কাজটি করেছি। এখানে আমাকে গ্রামের একটি কিশোরী মেয়ের (আনিকা) চরিত্রে দেখা যাবে। আমার বিপরীতে অভিনয় করেছেন শ্যামল মওলা। নাটকে কিশোরী মেয়েটির জীবনের নানা সংগ্রাম দেখানো হয়েছে। বিশেষ করে অল্প বয়সে বিয়ে, এরপর বাচ্চার মা হওয়া, কারখানায় কাজ করে জীবন চালানো, পড়াশুনাসহ নানাবিষয় উপস্থাপিত হয়েছে।’
index

 

খুব শিগগিরই শুরু হবে তার অভিনীত নতুন ধারাবাহিক ‘ফ্যামিলি প্যাক’। আলী ফিদা একরাম তোজোর রচনা ও পরিচালনায় এ নাটকে মুডি এক মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে তাকে। এছাড়া আসছে ঈদের জন্য নির্মিতব্য দুটি নাটকে কাজ করেছেন তিনি। তবে খুব বেশি কাজ করতে চান না এই অভিনেত্রী। কারণ হিসেবে বলেন, আমি অল্প কাজ করতে চাই। কেননা আমার সব গল্প টানে না। আমি বুঝেশুনে কাজ হাতে নিতে চাই।’ স্পর্শিয়াকে দেখে কেউ বুঝতে পারবে না, হাস্যজ্জ্বোল অল্পবয়সী এই মেয়েটি কাজ নিয়ে এতো সিরিয়াস। হবেই না কেন, আট-দশটা মেয়ের মতো বড় হননি স্পর্শিয়া। ছোটবেলা থেকেই বই পড়ার অভ্যাস। স্কুলের গন্ডি পেরোনোর আগেই পড়ে ফেলেন সমরেশ মজুমদার ও সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের প্রায় সব উপন্যাস।
মা সুজান হক সবসময়ই তাকে তার সবকাজে উৎসাহ দিয়ে এসেছেন। স্পর্শিয়া বর্তমানে ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ (ইউল্যাব)-এ মিডিয়া স্টাডিজ অ্যান্ড জার্নালিজমে পড়াশুনা করছেন। মাঝে শুটিংয়ের চাপে পড়াশুনায় মনোযোগের ঘাটতি ঘটে। তাই স্পর্শিয়া সোজা হিসাব, এ বছর সবার আগে পড়াশুনাটা শেষ করে তারপর অন্য কাজ।
indexjh

স্বপ্ন দেখেন তিনি অভিনয়ের বাইরে একদিন নির্মাতা হবেন, পরিচালনায় নাম লেখাবেন। এ বিষয়ে তার কথা হচ্ছে, ‘আমি অনার্স শেষ করে কলকাতার সতজিৎ রায় ফিল্ম ইনস্টিউট এ দুই বছরের জন্য অভিনয় এবং মেকিং বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রী নিতে চাই। আমার ইচ্ছে একসময় আমি নির্মাতা হিসেবে এদেশে কাজ করব। আর বড় পর্দার কাজের আগে আমি আমার পড়াশুনাটা এই বিষয়ে শেষ করতে চাই। দেখা যাক কি হয়!’
ক্লাসের বাইরে সারাদিন বন্ধুদের মাতিয়ে রাখা এই মেয়েটির স্বপ্ন এখন অনেক। তার এই স্বপ্ন সত্যি হোক এমন প্রত্যাশা সবার।