মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরাইলে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে থেকে রক্ষা পেল হালিমা

news-image

সরাইল প্রতিনিধি :: অবশেষে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে থেকে রক্ষা পেল সরাইলের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী হালিমা (১১)। 

গত সোমবার উপজেলার পাকশিমুল ইউনিয়নের কালিশিমুল গ্রামে হালিমার বিয়ের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছিল। তড়িত প্রশাসনের উপস্থিতির কারনে ৩৩ বছর বয়সের বরের সাথে শিশু হালিমার বিয়ে হয়নি।

স্থানীয় লোকজন জানায়, কালিশিমুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মোঃ ফজলুর রহমানের ছেলে আবু তাহেরের(৩৩) সাথে একই গ্রামের সৌদী প্রবাসী মোঃ বাচ্চু মিয়ার শিশু কন্যা হাজী শিশু মিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী হালিমার বিয়ের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছিল। হালিমা এ বিয়েতে রাজি না হওয়ায় তার উপর চাপ সৃষ্টি করে অভিভাবকরা। 

গত রোববার তড়িঘরি করে হালিমাকে তার নানার বাড়ি থেকে কালিশিমুলে নিয়ে আসা হয়। বাল্য বিয়ের বিষয়টি জেনে যায় উপজেলা প্রশাসন। নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নির্দেশে বিয়ে বন্ধ করতে হালিমাদের বাড়িতে উপস্থিত হন এস আই সিদ্দিক। উপস্থিত হন স্থানীয় চেয়ারম্যান কাজী মোজাম্মেল হক। ভেঙ্গে যায় বিয়ে। বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায় হালিমার বাবা বাচ্চু মিয়া সহ অন্যরা। 

হালিমা আক্তার জানায়, “সপ্তম শ্রেণীতে পড়ি। আমার বিয়ের বয়স হয়নি। আব্বা আম্মার কথা মানতে হবে। তাই–।”ঘটক সামছুল আলম বলেন, ছেলের মা অসুস্থ্য। তাই তারা বিয়ের বিষয়ে অনেক দিন ধরে চাপাচাপি করছে। 

হালিমার বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ রমিজ উদ্দিন বলেন, আমি বিষয়টি জেনে হালিমার বাবাকে বাল্য বিয়ে না দিতে নিষেধ করেছি। 

সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ এমরান হোসেন বলেন, বাল্য বিয়ে আইন পরিপন্থী কাজ। কেউ তা অমান্য করলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শিশু হালিমার বিয়ের বয়স হয়নি।