বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যেখানে গুণীদের কদর করা হয়, সেখানেই গুণীর জন্ম হয় – জেলা প্রশাসক

88888888888888ডেস্ক রির্পোট : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক ড. মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন বলেছেন, যেখানে গুণীদের কদর করা হয় সেখানেই গুণীর জন্ম হয়। শিশুদের মধ্যে সুপ্ত প্রতিভা রয়েছে। তাদের সুপ্ত প্রতিভাকে বিকশিত করতে লেখাপড়ার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডেও অংশ নেয়ার সুযোগ করে দিতে হবে। চিত্রাংকনসহ অন্যান্য সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত থাকলে আজকের শিশুরাই আগামী দিনের আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে উঠবে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া শিশু নাট্যম যে কাজ করছে তা শিশুদের মননশীলতা বিকাশের জন্য সহায়ক। শিশু নাট্যমের এই কার্যক্রম অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান জেলা প্রশাসক। গতকাল বুধবার বিকেলে স্থানীয় শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা চত্বরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শিশু নাট্যম আয়োজিত আর এ কে সিরামিকস্ ২৩তম বার্ষিক শিশু চিত্রকলা প্রদর্শনী ও সাংস্কৃতিক উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। উদ্বোধনী ও পুরস্কার বিতরনী-এই দুই পর্বের অনুষ্ঠানে সভাপতিত্বে করেন শিশু নাট্যমের উপদেষ্টা মো. আসাদুর রহমান আলমগীর ও সভাপতি মাসুকুল ইসলাম মাসুক। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন শিশু নাট্যমের সম্পাদক নিয়াজ মোহাম্মদ খান বিটু। আবৃত্তি শিল্পী ও সাংবাদিক হাবিবুর রহমান পারভেজের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন প্রবীণ গবেষক ও ভাষা সৈনিক মুহম্মদ মূসা। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক আব্দুল ওয়াহিদ খান লাভলু, কসবা উপজেলার পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. রুহুল আমিন ভূঁইয়া বকুল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের সহকারি অধ্যাপক মির্জা গালিব রুমী, প্রেসক্লাবের সভাপতি সৈয়দ মিজানুর রেজা, সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন জামি। অনুষ্ঠানের শুরুতে জেলা প্রশাসক ড. মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেন ফিতা কেটে চারদিনব্যাপী এ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। এরপর শিশু নাট্যমের সঙ্গীত বিভাগের শিল্পীদের ধনধান্যে পুষ্পে ভরা… দেশাত্মবোধক গানের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়। চারদিনব্যাপী উৎসবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শিশু নাট্যমের ছবি আঁকা ও সঙ্গীত বিভাগের তিন শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। আজ দ্বিতীয় দিনের কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে বিকেল ৩টায় শিশুদের আবৃত্তি প্রতিযোগিতা, বিকেল ৪টায় শিশুদের নিরাপত্তা শীর্ষক আলোচনা ও আবৃত্তি, বিতর্ক উৎসবের পুরষ্কার বিতরণ। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. খলিলুর রহমান। সন্ধ্যা ছয়টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া শিশু নাট্যম ও উষা নৃত্যালয়ের আয়োজনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হবে।