শনিবার, ৮ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রধান সড়কে ৬০ লাখ টাকা খরচে যাচ্ছেতাই কাজ,বিক্ষুব্দ শহরবাসী

Road-4 (1)আমিরজাদা চৌধুরী : ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের প্রধান সড়কের পিচ ঢালাইয়ের কাজ  যাচ্ছে তাই ভাবে করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সড়ক ও জনপথ বিভাগের ছত্র ছায়ায় সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার রাতের আধারে  রাস্তায় নামমাত্র পিচ ছিটিয়ে দিয়েই কাজ শেষ  করছেন। যেন দেখার কেউ নেই। কোন তদারকি ছাড়াই কাজ হচ্ছে। ধুলোবালি আর পানির ওপর পাথর ছিটিয়ে পিচ ঢালাই করা হচ্ছে। 
ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের কান্দিপাড়ার আনিস মিয়া টিএ রোডের আবদুল হক সহ শহরের একাধিক লোকের অভিযোগ প্রধান সড়কের এ কাজের নামে সড়ক বিভাগের কর্মকর্তাদের যোগসাজশে সরকারী অর্থ লোটপাট করছে । ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার মেয়র মো:হেলাল উদ্দিন জানান, শহর অভ্যন্তরের এই রাস্তার কাজ নিয়ে বিভিন্ন জনের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে তিনি সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীকে ফোন করে কাজটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান। পৌর মেয়র বলেন কিন্তু নির্বাহী প্রকৌশলী আমাকে এবিষয়ে কোন কিছু জানাননি।
কাজের তদারকির দায়িত্বে থাকা উপ-সহকারী প্রকৌশলী সুমন কর্মকার সাংবাদিকদের জানান কাজের সিডিউল সম্পর্কে আমি কিছু বলতে পারবো না। সব জানেন এক্সইয়েন স্যার। এ ব্যাপারে জানতে হলে অফিসে আসেন।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া  সড়ক ও জনপথ বিভাগের  নির্বাহী প্রকৌশলী শ্যামল কুমার ভট্টাচার্য লুটপাটের অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, দু-ভাগে এই সড়কের প্রায় পৌনে ৪ কিলোমিটার অংশের মেরামত কাজ হচ্ছে। ভাঙ্গা অংশ ভরাট করে সিলকোট করা করার কথা রয়েছে। শতকারা ৩০ ভাগ কমে  ২ টি অংশের কাজ ৬০ লাখ টাকায় দেয়া হয়েছে।কোন প্রতিষ্ঠানকে এই কাজটি দেয়া হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন প্রতিষ্ঠানের নাম মনে নেই, তবে টিপু সাহেব কাজটি করছেন। 
তিনি আরো জানান সিলকোটের পূরত্ব ৭ মিলি ধরা আছে।তবে অনেক স্থানেই তা করা হয়নি বলে স্বীকার করে তিনি বলেন পুরো সড়কটি পরিদর্শন করে নিন্মমানের কাজের প্রমান মিললে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
তবে কাজের সময় সড়ক বিভাগের কোন কর্মকর্তা সেখানে না থাকার যে অভিযোগ রয়েছে তা তিনি খতিয়ে দেখবেন বলে জানিয়েছেন। নিুমানের কাজ সম্পর্কে টিপু সাহেবের সাথে যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি।
উপসহকারী প্রকৌশলী সুমন কর্মকার কাজ তদারকি করার দাবী করলেও কি কাজ হচ্ছে তা জানাতে পারেননি। কাজের ধরন না জেনে কাজের কি তদারকি করছেন এ প্রশ্নে তিনি নিরব ছিলেন।
উল্লেখ্য,প্রায় ৩ বছর আগে কয়েক কোটি টাকা ব্যয়ে এই রাস্তার মেরামত কাজ করা হয়েছিল। কিন্ত  নিুমানের কাজ হওয়ায় কয়েক মাস যেতে না যেতেই সড়কের বিভিন্ন অংশে বড় বড় খানাখন্দের সৃষ্টি হয়। 

Road-3 (1)