বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিশ্বকাপ অভিজ্ঞতা বলছেন ক্রুইফ ‘পরাজিতদের দল হিসেবেই আমরা বিখ্যাত’

অনলাইন ডেস্ক ইয়োহান ক্রুইফ খুব অবাক হন ব্যাপারটি নিয়ে। এখনো ১৯৭৪ বিশ্বকাপের হল্যান্ড দলটিকে অন্য উচ্চতার দলই মনে করা হয়। অথচ ওই দলটি কিন্তু বিশ্বকাপ জিততে পারেনি। পুরো বিশ্বকাপে দুর্দান্ত খেলেও ফাইনালে তারা হেরে গিয়েছিল ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ারের জার্মান দলের কাছে।



ক্রুইফের অবাক হওয়ার জায়গাটি এখানেই। যত যা-ই বলা হোক, হল্যান্ডের ওই দলটি পরাজিতের দলই। অবাক করার পাশাপাশি তাঁর সন্তুষ্টির জায়গাটিও ঠিক এ জায়গাতেই। হেরে যাওয়া ওই দলটির খেলায় নিশ্চয়ই এমন কিছু ছিল, যা হূদয়ের গহিনে ঠাঁই পেয়ে গেছে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে।



১৯৭৪ সালের বিশ্বকাপই বিখ্যাত করেছিল ক্রুইফ ও হল্যান্ড দলকে। কোচ রাইনাস মিশেলের মস্তিষ্কপ্রসূত ‘টোটাল ফুটবল’ ডাচ ফুটবলকে নিয়ে গিয়েছিল অন্য উচ্চতায়। ফুটবল যে কেবল একটি খেলাই নয়, দর্শনও বটে—মিশেলের এই টোটাল ফুটবল এ ব্যাপারটিই প্রতিষ্ঠিত করেছিল সেই বিশ্বকাপে।



নিজের বিশ্বকাপ অভিজ্ঞতায় ক্রুইফের কোনো আফসোস নেই। ফুটবলপ্রেমীদের ভালো লাগার জায়গায় উত্কর্ষই তাঁর সন্তুষ্টি। তিনি নিজের মুখেই বলেছেন এ কথা, ‘বিশ্বকাপ জিততে না পারার ব্যাপারটি কখনোই আমাকে ভারাক্রান্ত করে না। আমাদের অর্জন কিন্তু অনেক।’



ক্রুইফদের অর্জন আসলেই অনেক। একটি ফুটবল দর্শনের জন্ম দেওয়ার ব্যাপারটি কিন্তু অনেক সময় বিশ্বকাপ জয়ের চেয়েও বড় ব্যাপার হয়ে দাঁড়াতে পারে। জয়-পরাজয় আসলেই অনেক সময় তুচ্ছ ব্যাপার হয়ে দাঁড়াতে পারে। হল্যান্ড ফুটবলের কিংবদন্তিও তা-ই মনে করেন, ‘আমি খুব অবাক হই চুয়াত্তরের হল্যান্ড দলকে এখনো অনেক বড় কিছু ভাবা হয়। এই প্রজন্মও ওই দলটি সম্পর্কে জানতে চায়। হ্যাঁ, সেবার আমরা বিশ্বকাপ জিততে পারিনি। কিন্তু ওটা আমার কাছে কোনো ব্যাপার নয়। আমরা বিশেষ একটি দর্শন দিয়ে ফুটবলপ্রেমীদের মন জয় করতে পেরেছিলাম।’



হ্যাঁ, টোটাল ফুটবলের ব্যাখা দিয়েছেন ক্রুইফ একে একটি দর্শন আখ্যা দিয়েই, ‘টোটাল ফুটবল একটা দর্শন। এই স্টাইলে আপনার পুরো চরিত্রেরই বহিঃপ্রকাশ ঘটবে। আপনি যা ভাবছেন, সেটা বলে পা দিয়ে প্রকাশ করা। আমরা আয়াক্সের খেলোয়াড়েরা টোটাল ফুটবলের সঙ্গে বিশ্ববাসীর পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলাম। আমরা স্থান পরিবর্তন করে খেলতাম। রক্ষণভাগের খেলোয়াড়টি মুহূর্তেই চলে আসত স্ট্রাইকারের স্থানে।’



ফুটবলের ওই ঘরানা ডাচ ফুটবলের মানসিকতায় এনেছিল বৈপ্লবিক পরিবর্তন। সেটা ক্রুইফ বলেছেন বেশ গর্বভরেই, ‘আমরা মাঠে নেমেই ভাবতাম আমাদের পক্ষে যেকোনো কিছুই অর্জন সম্ভব। চুয়াত্তর আমাদের মধ্যে সেই বিশ্বাসটাই ঢুকিয়ে দিয়েছিল। আমরা শেষ পর্যন্ত জিতিনি, তাতে ক্ষতি কী! মানুষের মন তো জয় করতে পেরেছিলাম।’



টোটাল ফুটবল মানেই আক্রমণাত্মক ফুটবল। আর সেটাই ক্রুইফের ফুটবলীয় ভাবনা। সেটা তিনি জানিয়েছেন দৃঢ়তার সঙ্গেই, ‘আমার কাছে মাঠে আক্রমণই সব। আমি সব সময়ই আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলেছি। আক্রমণাত্মক ফুটবলকে বুকে ধারণ করেছি। কেউই কোনোদিন এই দর্শন থেকে আমাকে বিচ্যুত করতে পারবে না।’



সবশেষে ক্রুইফের কৃতজ্ঞতা ওই কোচ রাইনাস মিশেলের প্রতিই, ‘মিশেল হল্যান্ডের ফুটবলকে নতুন করে চিনিয়েছিলেন। আমি সব সময়ই তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞ। তিনি ডাচ ফুটবলকে এমন এক জায়গায় নিয়ে গিয়েছিলেন, যা থেকে এখনো উপকার পাচ্ছে সবাই। ফুটবল অবশ্যই ফলাফলনির্ভর খেলা। কিন্তু তাঁর কাছে ফুটবলে ফলটাই সবকিছু ছিল না। তিনি দর্শকদের আনন্দ দিতে চাইতেন। মাঝেমধ্যে ফলের চেয়ে ওটার জন্যই দর্শকদের হূদয়ে স্থান করে নেওয়া যায়। আমরা চুয়াত্তরে সেটাই সফলভাবে করতে পেরেছিলাম।’ ওয়ার্ল্ড সকার।

এ জাতীয় আরও খবর