সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আমার হৃদয় মাঝে বীণা বাজে

20140307_154147 (1) মনসুর আলী : গত ০১/০৪/১৪ ইং তারিখে সরাইল উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যনগনের শ্বপথ গ্রহণ অনুস্ঠান হয় কুমিল্লায় ।এই অনুস্ঠানে যাওয়ার সৌভাগ্য কিংবা দূভার্গ্য কোনটাই অামার হয়নি ।তবে দিনটা আমার চরম ভাল কাটল এই ভেবে যে, আমার গুরু, পরম শ্রদ্ধেয় এডভোকেট আব্দুর রহমান ভাই উপজেলা চেয়ারম্যানের কাংখিত আসনে বসছেন ।
 আব্দুর রহমান ভাইকে গুরু সম্ভোধন করে শিরোনাম দিয়ে প্রবন্ধ লিখলাম তাঁকে খুশি করার জন্য নয়। কিংবা তোষামোদ করে তাঁর প্রিয় পাত্র হবার জন্যও নয় । গুরু সম্বোধন করলাম এই জন্যে যে গত ৪/৫ মাসে তাঁর সংস্পর্শে যা শিখেছি, কলেজ জীবনে  আমার শ্রদ্ধেয় প্রিয় শিক্ষকের কাছেও তা শিখিন ।        

০২/০৪/১৪ইং তারিখে আমি রহমান ভাইয়ের  সঙ্গে দেখা করতে গেলাম । সূয তখন পশ্চিমাকাশে । এডঃ কাওসার ভাইয়ের কথামত ল’চেম্বারের ৩০৮ নাম্বার  রুমে গেলাম । নতুন চেম্বার ।শ্রদ্ধেয় রহমান ভাই নতুন চেম্বারে বসে মেহেদিকে উদ্দেশ্য করে কি যেন উপদেশ মূলক কথা বলছেন। আমি সালাম দিয়ে তাঁর পাশে একটি খালি চেয়ারে গিয়ে বসলাম ।তিনি  মেহেদির দিকে তাকিয়ে আবেগ ও আক্ষেপের স্বরে বলছেন “যারা আমার সাথে থেকে অন্যায় কাজ করে ,পরনিন্দা করে তাদের প্রতি আমার ঘৃণা হয় । কেউ যদি কারো সমালোচনা করে, নোংরা বদনামী করে, যাচাই -বাচাই না করে আমি বিশ্বাস করিনা, সমর্থন ও করিনা । কারণ ঐ ব্যাক্তি যদি এই মন্দ কাজ না করে তাহলে বদনামকারীকে সমরথন করার জন্য আমি নিজেও গুনাগার হব । আমরা পর নিন্দা, পরচর্চা করে সময় ব্যয় করি-এই আমাদের স্বভাব”।

 পূজনীয় রহমান ভাই আরও একটা পারিবারিক সত্য গল্প বললেন  “ আমার  আম্মার এক জোড়া বিদেশী জুতা চুরি হয়ে গেছে । আম্মা দোষছেন কাজের মেয়ের খালাম্মকে । কাজের মেয়ের খালাম্মা গতকাল এসেছিল আমাদের বাড়ীতে । আমি আম্মাকে বললাম –আম্মা আপনি কি দেখেছেন উনি চুরি করেছে ? আপনার কি সাক্ষি আছে ? আল্লাহ তো স্পস্ট কোরআনে স্বাক্ষির কথা বলেছেন ।একজন পুরুষ সমান দুই জন মেয়ে । আম্মা আমার কথায় তুস্ট হলেন না ।

দুই/তিন দিন পর আম্মা আমাকে বললেন – জুতা গুলি পেয়েছি । কামুকা এদের দোষারুপ করেছি । আমি তখন কাজের মেয়েকে আড়ালে নিয়ে মাথায় হাত বুলিয়ে সান্ত্বনা দিলাম । মা বৃদ্ধ মানুষ, মায়ের কথায় রাগ করোনা । আমার ছেলে মেয়েরা যদি কাজের লোকের সাথে খারাপ আচরণ করে  আমি তাদের আড়ালে ডেকে নিয়ে সান্ত্বনা দেয় । নিজ গুণে ক্ষমা করে দেবার জন্য অনুরোধ করি ।বলি- এরা অবুঝ । এদের বদদোয়া দিয়োনা । তোমাদের বদদোয়া আল্লাহ কবুল করবেন । আল্লাহ মনে আঘাত প্রাপ্তদের দোয়া কবুল করেন ।
 শ্রদ্ধেয় রহমান ভাইয়ের  এই সমস্ত  মহৎ বাণী সুলভ কথা শুনে আমি শ্রদ্ধায়, আবেগে ,ভালবাসায় আপ্লুত হয়ে গেলাম । মনে মনে বললাম –ভাই -আপনি মানুষ না ফেরেস্তা ?
 উপজেলা নিবার্চনের কিছুদিন আগে অরুয়াইল আব্দুস সাত্তার ডিগ্রী কলেজ মাঠে জেলা বি.এন.পি’র শীষ স্থানীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে এক নিবার্চনী সভা হয় । সভায় সাবেক প্রতিমন্ত্রী এডঃ হারুন আর রশিদ  উকিল আব্দুস সাত্তার ভুঁইয়ার উপস্থিতিতে বলেছিলেন——“উকিল আব্দুস সাত্তার ভুঁইয়া এ এলাকার সন্তান ,খুব ভাল মানুষ ।
তাঁর মত আরেকজন সৎ, নিভের্জাল,ভাল মানূষ এডঃআবদুর রহমানকে আপনাদের কাছে দিয়ে গেলাম ”……..।

সাবেক প্রতিমন্ত্রী এডঃ হারুন আর রশিদ সাহেবের সেই দিনের সেই উক্তিটি আজও আমার হৃদয় মাঝে,, বীণা বাজে, সকাল সন্ধ্যা সাঁঝে ।

আমার ক্ষুদ্র অভিজ্ঞতায় আমিও বলতে চাই –শদ্ধেয় রহমান ভাই, আসলেই একজন গুরু তুল্য সাদা মনের মানুষ ।