সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রুটি পরিক্ষা কেন্দ্রে নকলদানে বাঁধা দেয়ায় শিক্ষককে মারধর !

news-image

lancito2014জহির রায়হান : ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আখাউড়া উপজেলার ধরখার ইউনিয়ন রুটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১ম সাময়িক পরিক্ষা কেন্দ্রে নকলদানে বাঁধা দেয়ায় রুটি গ্রামের স্কুলের পাশের বাড়ির বখাটে যুবক মো: সোহেল মিয়া (২৫)স্কুলের সহকারি শিক্ষক মো: শরিফুল ইসলাম (৩৫) কে বেদড়ক মারধর করে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। 
সরেজমিন অনুসন্ধানে ও অভিযোগের আলোকে জানা যায়, গত ২৩/০৪/২০১৪ইং তারিখ সকাল ১১:০০ টায় বিদ্যালয়ে ১ম ও ৫ম শ্রেনীর পরিক্ষা চলাকালে পরিক্ষা হলে অনাধিকারে প্রবেশকালে ৪র্থ শেনীর ছাত্র পারভেজ বখাটে যুবক সোহেলকে বাধা দিলে সে পারভেজ কে মারধর করে। পারভেজ সহকারি শিক্ষক শরিফুল ইসলাম কে বিষয়টি জানালে তিনি সোহেলকে জিঙ্গেস করে। বখাটে সোহেল মাষ্টারকে তখন অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করতে থাকে। মাষ্টার প্রতিবাদ করায় সোহেল মাষ্টারকে মারধর করে এবং মামামারি দেখে সোহেলের আত্মিয় স্বজনরাও কোন কথা জিঙ্গাসা না করে মাষ্টারকে বেদড়ক মারধর করকে থাকে। পরে স্কুলের অন্যান্য শিক্ষকরা এসে সহকারি শিক্ষক শরিফুল ইসলামকে উদ্ধার করে। এ বিষয়ে সহকারি শিক্ষক শরিফুল ইসলাম বাদি হয়ে আখাউড়া থানায় গত ২৫/০৪/২০১৪ইং তারিখ একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং ৪৩। মামলার তদন্ত অফিসার ধরখার ফাঁড়ির ইনচার্জ এস.আই নুর হোসেন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে একজন কে আটক করেন।
সহকারি শিক্ষক শরিফুল ইসলাম জানান, আমি একজন শিক্ষক। সঠিক শিক্ষার মাধ্যমে শিশুদের গড়ে তোলা আমার দায়িত্ব ও কর্তব্য। গত ২৩/০৪/২০১৪ইং তারিখ পরিক্ষা চলাকালিন সময়ে অনাধিকারে পরিক্ষা হলে প্রবেশ কালে চতুর্থ শ্রেনীর ছাত্র পারভেজ  সোহেলকে বাধা দেয়ায় তাকে মারধর করে। আমি পারভেজ এর বিষয়টি শুনে সোহেলকে জিঙ্গসা করাতে সে আমাকেও প্রথমে অকথ্য ভাষায় গালাগাল পরে গায়ে হাত উঠায়। অত্যান্ত দুঃখের বিষয় হল সোহেলের আত্মিয় স্বজনরা ও আমাকে কোন কথা জিঙ্গাসা না করে একের পর এক গায়ে হাত তুলতে থাকে। এজন শিক্ষককে তারা যেভাবে লাঞ্চিত করেছে তাদের দ্বারা যে কোন কিছু করা সম্ভব। আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আইনের মাধ্যমে সাঠক তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করছি সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নিকট।
এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মাসুদুল হান্নান জানান, শিক্ষকের উপর হামলার বিষয়টি প্রশাসনিক ভাবে দেখা হচ্ছে। তাছাড়া মামলার ১নং আসামী ধরাও পড়েছে।