শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের শোকের ক্ষণ

ডেস্ক রিপোর্ট : গতকাল ছিল ১৯৯৩ সালে জাম্বিয়ান ফুটবল দলকে বহন করা বিমান দুর্ঘটনার বর্ষপূর্তি। এ উপলক্ষে প্রথম আলো অনলাইনে প্রকাশিত হয়েছিল ফুটবলের সবচেয়ে মর্মান্তিক ট্র্যাজেডির গল্প। ফুটবল ইতিহাসে এ রকমই আরেকটি শোকের চাদরে মুড়ে থাকা অধ্যায় আছে। মিউনিখের বিমান দুর্ঘটনায় হারিয়ে গিয়েছিলেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সেরা কয়েকজন খেলোয়াড়। আজ শুনুন সেই গল্প—



মানুষ মরে গেলে পচে যায়, বেঁচে থাকলে বদলায়। সকালে বিকালে বদলায়, দিনে রাতে বদলায়, কারণে অকারণে বদলায়।



তবে এই বদলে যেতে যেতেই কেউ কক্ষচ্যুত হয়, কেউ আবার দৃঢ়তার সঙ্গে এগিয়ে যায় অভীষ্ট লক্ষ্যের দিকে। সর্বকালের অন্যতম সেরা অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার, ইংল্যান্ডের ’৬৬-এর বিশ্বকাপজয়ী দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য, ইংল্যান্ড জাতীয় দল এবং ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সর্বোচ্চ গোলদাতা, ইউনাইটেডের হয়ে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলা—এমন অসংখ্য অর্জন স্যার ববি চার্লটনের। যার প্রায় শতভাগ অর্জনই ১৯৫৮-এর পরের। অথচ ১৯৫৮ সালের ৬ ফেব্রুয়ারিই থেমে যেতে পারত পরবর্তী সময়ে কিংবদন্তি হয়ে ওঠা এই ফুটবলারের পথচলা।



১৯৫৮-এর ৬ ফেব্রুয়ারি ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে এবং ইংল্যান্ডের ফুটবল ইতিহাসে এক শোকাবহ দিন। জার্মানির মিউনিখে এক বিমান দুর্ঘটনায় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের আটজন খেলোয়াড়সহ নিহত হন ২৩ জন।



স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসন পূর্ব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সবচেয়ে সফল এবং সবচেয়ে বেশি সময়ের ম্যানেজার স্যার ম্যাট বাসবির তরুণ ‘বাসবি বেইবস’খ্যাত দলটির সঙ্গে সতীর্থ, ক্লাব কর্মকর্তা, সাংবাদিক এবং সমর্থকদের নিয়ে ববি চার্লটন সেদিন তত্কালীন যুগোস্লাভিয়ার বেলগ্রেড থেকে ম্যানচেস্টারে ফিরছিলেন। হালের চ্যাম্পিয়নস লিগের পূর্বসূরি ইউরোপিয়ান কাপের কোয়ার্টার ফাইনালের দ্বিতীয় লেগে যুগোস্লাভিয়ার রেডস্টার বেলগ্রেডের সঙ্গে ফিরতি লেগের খেলা ছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। বেলগ্রেডে ৩-৩-এ ড্র করে দুই লেগ মিলিয়ে ৫-৪-এ এগিয়ে থেকে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে খুশিমনে সেদিন ঘরে ফিরফিল ইউনাইটেড। দুই লেগ মিলিয়ে চার্লটন একাই করেন ৩ গোল, যার দুটিই করেন বেলগ্রেডের অ্যাওয়ে ম্যাচে।মিউনিখ ট্র্যাজেডিতে নিহত ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কয়েকজন খেলোয়াড় ও কর্মকর্তা



মাত্রই তিন বছর আগে, ১৯৫৫ সালে উয়েফা ইউরোপের সেরা দলগুলোকে নিয়ে চালু করে ইউরোপিয়ান কাপ। ১৯৫৫-৫৬ মৌসুমে চেলসি লিগ শিরোপা জিতলেও লিগ কর্তৃপক্ষ ‘ইংলিশ ফুটবলের বৃহত্তর স্বার্থে’ চেলসিকে অনুমতি দেয়নি ইউরোপিয়ান কাপে খেলতে। পরের মৌসুমে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড শিরোপা জিতেও লিগ কর্তৃপক্ষের একই বাধার মুখে পড়ে। কিন্তু ইউনাইটেড বস বাসবি এবং চেয়ারম্যান হ্যারল্ড হার্ডম্যান বহু কাঠখড় পুড়িয়ে আদায় করে নেন অনুমতি এবং প্রথম ইংলিশ ক্লাব হিসেবে ইউনাইটেড খেলে ইউরোপিয়ান কাপে। প্রথমবারের চেষ্টাতেই তারা সেমিফাইনাল পর্যন্ত পৌঁছে যায় এবং শেষ পর্যন্ত রিয়াল মাদ্রিদের কাছে হেরে থামে তাদের পথ চলা। পরেরবার ১৯৫৮ সালেও লিগ চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড এবং এবারও তাদের ইউরোপিয়ান কাপে বন্ধুর পথ।

ঘরোয়া খেলা হতো শনিবারে এবং ইউরোপিয়ান কাপ মাঝ সপ্তাহে। ঘরোয়া লিগ কর্তৃপক্ষকে ভুল প্রমাণ করার জন্য ঘরোয়া লিগের সূচিতে যাতে কোনো ব্যাঘাত না ঘটে, সে জন্য সপ্তাহের মাঝে ইউরোপের অন্য কোথাও খেলেই সপ্তাহান্তে দেশের মাটিতে উপস্থিত থাকার জন্য প্রাণান্ত চেষ্টাই করতে হতো তাদের। যদিও তত্কালীন প্রেক্ষাপটে বিমানভ্রমণ বেশ ঝুঁকিপূর্ণই ছিল, কিন্তু লিগ কর্তৃপক্ষকে ভুল প্রমাণ করতে এ ছাড়া আর কোনো পথও খোলা ছিল না ইউনাইটেড কর্তৃপক্ষের।



সামরিক রোভারস ও ডুকলা প্রাগকে প্রাথমিক এবং প্রথম রাউন্ডে হারানোর পর ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের শেষ আটের খেলা পড়ে যুগোস্লাভিয়ার রেড স্টার বেলগ্রেডের সঙ্গে। প্রথম লেগে নিজেদের মাঠে ২-১-এ জিতে এগিয়ে থেকেই বেলগ্রেড যায় ইউনাইটেড। 

এ জাতীয় আরও খবর