বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘জনপ্রিয়’ অধিনায়কের খোঁজে পাকিস্তান

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের কাছে হেরে যাওয়ায় সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা। শিরোপা জিততে পারলে হয়তো সেই দুঃখটা ভোলা যেত। কিন্তু এর আগের প্রতিটি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে কমপক্ষে সেমিতে খেলা পাকিস্তান এবার প্রথম পর্বের বাধাও পেরোতে পারেনি। গ্রুপ পর্যায়ে নিজেদের শেষ ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে যেন ব্যাটিং করাই ভুলে গিয়েছিলেন পাক ব্যাটসম্যানরা। তীব্র অসন্তোষের মুখে ছোট ফরম্যাটের অধিনায়কের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন মোহাম্মদ হাফিজ। ওয়ানডে অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হকের অবস্থানও খুব একটা সংহত নয়। এমন একটা পরিস্থিতিতে পাকিস্তান এখন হন্যে নতুন অধিনায়কের খোঁজে। দলকে ঢেলে সাজাতে যে এর অন্য কোনো বিকল্প দেখছে না দেশটির ক্রিকেট-সংশ্লিষ্টরা।



সম্প্রতি এই ‘ঢেলে সাজানো’র প্রক্রিয়ার সূচনায় নতুন প্রধান নির্বাচক হয়েছেন মঈন খান। গঠিত হয়েছে ছয় সদস্যের নির্বাচক প্যানেল। ঘটনার পরম্পরায় হয়তো খুব শিগগির বেছে নেওয়া হবে নতুন অধিনায়ক।



টি-টোয়েন্টির জন্য নতুন অধিনায়ক হিসেবে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান আহমেদ শেহজাদকেই দেখা যেতে পারে বলে ধারণা করছেন অনেকে। আগামী সপ্তাহের মধ্যে ওয়ানডে অধিনায়কও পরিবর্তন করতে পারে পাকিস্তান। তবে এই ভূমিকায় কাকে দেখা যেতে পারে, সেটা অনুমান করা সহজ হচ্ছে না। কারণ মঈন খান বলেছেন, নতুন অধিনায়ক এমন কাউকে করা হবে যিনি ধারাবাহিকভাবে ভালো পারফরম্যান্স দেখাতে পারেন। একই সঙ্গে তাঁকে জনপ্রিয়ও হতে হবে সতীর্থদের কাছে, গণমাধ্যমের কাছে। তাঁকে সমর্থকদের কাছে গ্রহণযোগ্য হতে হবে।



ওয়ানডে অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হক ব্যাট হাতে ধারাবাহিকভাবেই ভালো খেলেন। কিন্তু ধীরগতির ব্যাটিংয়ের কারণে প্রায়ই তাঁর সমালোচনায় মেতেন ওঠে গণমাধ্যম ও সমর্থকেরা। আরেক অভিজ্ঞ খেলোয়াড় শহীদ আফ্রিদির কথা বিবেচনা করা যেতে পারে। কিন্তু গ্রহণযোগ্যতা থাকলেও আফ্রিদির ধারাবাহিকতার গ্যারান্টি দেওয়া যে প্রায় অসম্ভব ব্যাপার। তবে তার পরও আফ্রিদির হাতেই দেওয়া হতে পারে ওয়ানডে অধিনায়কের ভার। পিসিবির অনেকেই নাকি আফ্রিদিকেই বসাতে চান অধিনায়কের আসনে। তেমনটা হলে ২০১৫ সালে আফ্রিদির নেতৃত্বেই বিশ্বকাপ মিশনে অংশ নেবে পাকিস্তান।