শনিবার, ৮ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বিএনপির নতুন আহবায়ক কমিটি

BNP Imageব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বিএনপির কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে আহবায়ক কমিটি করেছে কেন্দ্রীয় কমিটি । এ কমিটি হওয়ায় বিভিন্ন মহলে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সহ নানা ভাবনা এখন নেতা কর্মীদের মাঝে। আহবায়ক কমিটি হওয়ার ৮ দিন অতিবাহিত হলেও পূণাঙ্গ আহবায়ক কমিটি জেলায় পৌছেনি মঙ্গলবার পর্যন্ত। ৪৫ দিনের মধ্যে সম্মেলন করে জেলা বিএনপির পূণাঙ্গ কমিটি গঠন নিয়ে এখন দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা। এদিকে জেলা বিএনপির কমিটি ভেঙ্গে দেয়ায় নেতা কর্মী অনেকের মধ্যে রয়েছে অসন্তোষ। কেউ কেউ মনে করছেন কমিটি ভাঙ্গার প্রয়োজন ছিলনা। কারো কারো মতে আগামী দিনে আন্দোলন সংগ্রাম গতিশীল করতেই কমিটি ভাঙ্গা হয়েছে। গত ১৫ এপ্রিল ঢাকায় বিএনপির এক সাংগঠনিক সভায় কেন্দ্রীয় কমিটি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে সাবেক পৌর মেয়র ও জেলা কমিটির সিনিয়র সহ সভাপতি হাফিজুর রহমান মোল্লা কচিকে আহবায়ক ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক জহিরুল হক খোকনকে সদস্য সচিব করে আহবায়ক কমিটির সিদ্ধান্ত নেয়। তবে গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত পূর্ণাঙ্গ আহবায়ক কমিটি হাতে পাননি বলে দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে। এক দুদিনের মধ্যে পূর্নাঙ্গ আহবায়ক কমিটি হাতে পাবেন বলে জানান সূত্রটি। বর্তমানে জেলা বিএনপির আহবায়ক  হাফিজুর রহমান মোল্লা কচি জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তেই কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে আহবায়ক কমিটি করা হয়েছে। তিনি জানান বিগত জেলা কমিটির মাধ্যমে জেলায় আন্দোলন সংগ্রাম হয়েছে। কমিটি ভেঙ্গে দেয়া হউক আমরা এর পক্ষে ছিলাম না। তবে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত নেয়ায় আমরা মেনে নিয়েছি। তিনি বলেন, পূর্নাঙ্গ আহবায়ক কমিটি ফরমেট অনুযায়ী আমাদের হাতে আজকালের মধ্যে পৌছবে। ৪০ -৪৩ সদস্য বিশিস্ট এই কমিটি হবে বলে তিনি জানান। এই আহবায়ক কমিটির মাধ্যমে আমরা ইউনিয়ন উপজেলা পর্যায় থেকে শুরু করে বিভিন্ন পর্যায়ে কমিটি করে সম্মেলনের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে চেস্টা করবো। তিনি বলেন নব গঠিত আহবায়ক কমিটিকে অনেকেই স্বাগত জানিয়েছে। তিনি কেন্দ্র থেকে দেয়া অর্পিত দায়িত্ব পালনে সকল মহলের সহযোগিতা কামনা করেন। এ ব্যাপারে আহবায়ক কমিটির সদস্য সচিব জহিরুল হক খোকন জানান, আহবায়ক কমিটির প্রয়োজন ছিল না। তিনি বলেন আহবায়ক কমিটির মাধ্যমে দেড়মাসের মধ্যে জেলা বিএনপির পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠন কস্টসাধ্য ব্যাপার, পূর্ণাঙ্গ কমিটি  গঠনের জন্য এ সময় যথের্স্ট নয়। তিনি বলেন আমরা যথাসাধ্য চেস্টা করবো দ্রুত একটি পূর্নাঙ্গ কমিটি করতে। এদিকে কমিটি ভেঙ্গে দেয়ায় অধিকাংশ নেতা কর্মীর মদ্যেই অসন্তোষ রয়েছে। তবে আহবায়ক , সদস্য সচিব পদ নিয়ে আপত্তি নেই অধিকাংশরই। নতুন প্রজন্মের সমন্বয়ে আগামী দিনে বিএনপির আন্দোলন সংগ্রাম আরও গতিশালী করতে জেলায় একটি শক্তি শালী পূর্ণাঙ্গ কমিটি হবে সেই প্রত্যাশা করছে দলটির তৃণমূল থেকে শুরু করে বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা কর্মীরা।