সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এ দেশে কে নিরাপদ: ফখরুল

গুমের অভিযোগ এনে সরকারকে মানবতাবিরোধী অপরাধে ‘দোষী সাব্যস্ত’ করেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি প্রশ্ন রাখেন, রিজওয়ানা হাসানের স্বামী, বিএনপির নেতা ইলিয়াস আলী, চৌধুরী আলমকে যদি তুলে নেওয়া যায়, তাহলে এ দেশে কে নিরাপদ?



আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন। দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলী দুই বছর আগে এই দিনে ‘গুম’ হন। এ উপলক্ষে বিএনপি ‘ইলিয়াস আলীকে ফিরিয়ে দাও’ শীর্ষক ওই আলোচনার আয়োজন করে।



মির্জা ফখরুল বলেন, ‘জাতিসংঘের মতে, গুম অন্যতম ভয়াবহ মানবতাবিরোধী অপরাধ। এ সরকারকে আমি এই অপরাধে দোষী সাব্যস্ত করছি।’ গত তিন মাসে রাজধানী থেকে ২২ জন, সারা দেশে ৬১ জন দলীয় নেতা-কর্মী গুম হয়েছেন দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, এসব করে সরকার ভয় দেখিয়ে এমন অবস্থা তৈরি করতে চায়, যাতে কেউ ভিন্নমত প্রকাশ করতে না পারে। তিনি অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগের আমলেই এসব হচ্ছে। এ সরকার দেশকে সত্যিকার অর্থে পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। পুলিশের মধ্যে উত্সব চলছে, কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। তারা মানুষ ধরছে, আবার টাকা নিয়ে ছেড়ে দিচ্ছে। সারা দেশে গ্রেপ্তার-বাণিজ্য চলছে। পুলিশকে রাজনৈতিক কাজে ব্যবহার করায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দেশ সবচেয়ে কঠিন সময় পার করছে। কারও জীবনের নিরাপত্তা নেই। পুলিশের অপরাধ দেখার সময় নেই। তারা বিরোধী দল ঠেকাতে ব্যস্ত।’

ইলিয়াস আলী গুমের প্রতিশোধ নিতে চাইলে দলের নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে সরকারের বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, এর কোনো বিকল্প নেই। এজন্য প্রতিটি মানুষকে জাগিয়ে তুলতে হবে।

সরকারকে হুঁশিয়ার করে দিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, গুম, খুন, নির্যাতন করে ক্ষমতা স্থায়ী করা যায় না। নমরুদ, ফেরাউন, আইয়ুব খান, ইয়াহিয়া, মুজিবুর রহমান কেউ ক্ষমতা স্থায়ী করতে পারেনি। সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘দ্রুত নির্বাচন দিন, না হয় একনায়কদের পরিণতি আপনাদেরও ভোগ করতে হবে।’

আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক, যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ প্রমুখ বক্তব্য দেন।

এ জাতীয় আরও খবর