রবিবার, ২৭শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইলিশের মজুত আছে, ক্রেতা নেই

চাঁদপুরে পয়লা বৈশাখকে সামনে রেখে দুটি মত্স্য হিমাগারে রাখা ইলিশ নিয়ে বিপাকে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা। কাঙ্ক্ষিত ক্রেতা না থাকায় এসব ইলিশ থেকে মুনাফা দূরের কথা, বরং ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা করছেন তাঁরা।



পয়লা বৈশাখে রকমারি খাবারের মূল আকর্ষণ পান্তা-ইলিশ। এ জন্য এ সময়টাকে সামনে রেখে ইলিশের বেশ চাহিদা বেড়ে যায়। ব্যবসায়ীরাও তখন ইলিশ থেকে বাড়তি কিছু মুনাফার লক্ষ্যে হিমাগারে প্রচুর পরিমাণে ইলিশ মজুত করে থাকেন। এবারও তাঁরা হিমাগারে প্রচুর ইলিশ মজুত করেছেন, কিন্তু সে অনুপাতে ক্রেতা নেই।



জানা গেছে, পয়লা বৈশাখ উপলক্ষে চাঁদপুরের দুটি মত্স্য হিমাগারে মজুত রয়েছে প্রায় ৫৫ হাজার মণ ইলিশ। এর মধ্যে চাঁদপুর সি ফুড করপোরেশনে প্রায় ৩৫ হাজার মণ ও খন্দকার ফিশ প্রসেসিংয়ে প্রায় ২০ হাজার মণ ইলিশ মজুত রয়েছে। কিন্তু ক্রেতার অভাবে বড় ধরনের লোকসানের আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা।



চাঁদপুর সি ফুড করপোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহীদুর রহমান চৌধুরী বলেন, দেশ-বিদেশে রপ্তানি করা ছাড়াও প্রতিবছর বৈশাখে পান্তা-ইলিশের জন্য চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনার রুপালি ইলিশ তাঁরা হিমাগারে মজুত রাখেন। এ বছর মোট ৫০ হাজার মন ইলিশ মজুত করেছিলেন তাঁরা। হিমাগারে এখনো মজুত আছে ৩৫ হাজার মণ ইলিশ। এর মধ্যে ৮০০ থেকে ৯০০ গ্রাম আকারের ইলিশই বেশি মজুত আছে। যার মূল্য কেজি প্রতি ৭০০ টাকা। আর ৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম আকারের ইলিশের মূল্য কেজিপ্রতি ৫০০ টাকা।



শাহীদুর রহমান আশঙ্কা করছেন, এবার তিনি কেনা দামেও ইলিশ বিক্রি করতে পারবেন না। এর কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ঝড়-তুফান না হওয়ায় সাগর শান্ত ছিল। তাই জেলেরা সাগরে প্রচুর ইলিশ ধরেছেন। এ কারণে হিমাগারে সংরক্ষিত ইলিশের চাহিদা কমে গেছে। এ সময় ভারতেও ইলিশ রপ্তানি করা হতো। কিন্তু এবার তাও করা যাচ্ছে না।



চাঁদপুর খন্দকার ফিশ প্রসেসিংয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল মালেক খন্দকার জানান, তাঁর হিমাগারে এখনো প্রায় ২০ হাজার মন ইলিশ মজুত আছে। এর মধ্যে এক থেকে দেড় কেজি আকারের ইলিশ বেশি। তিনি দেড় কেজি আকারের ইলিশ এক হাজার ৫০০ টাকা করে ও এক কেজি আকারের ইলিশ এক হাজার টাকা করে বিক্রি করছেন। তবে বাজারে চাহিদা না থাকায় কেনা দামের থেকে কম মূল্যে খুচরা বাজারে এসব ইলিশ বিক্রি করতে হচ্ছে।



এদিকে গত ১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত টানা দুই মাস চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনা নদীর ১০০ কিলোমিটার এলাকায় ইলিশ রক্ষার্থে সরকার অভয়াশ্রম কর্মসূচী পালন করছে। এ কারণে নদীতে সব ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর