মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভারতের কাছ থেকে শেখার আছে অনেক কিছুই: মঈন

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে না উঠতে পারার ব্যর্থতা তো আছেই, পাকিস্তান সমর্থকদের বুকে শেল হয়ে বিঁধছে ভারতের কাছে হারের স্মৃতি। বিশ্বকাপের আসরে আরও একবার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে জয়টা যে অধরাই থেকে গেল পাকিস্তানের। বড় আসরে গিয়ে কেন বারবার হতাশ হতে হচ্ছে পাকিস্তানকে? মোক্ষম এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের সাফল্যসূত্রটাই পরীক্ষা করে দেখার কথা বলেছেন পাকিস্তানের নতুন কোচ মঈন খান। ভারতের কাছ থেকে অনেক কিছু শেখার আছে বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির সাবেক এই অধিনায়ক।

ক্রিকেট বিশ্বে ভারত-পাকিস্তানের ব্যবধান কখনোই খুব বেশি ছিল না। কিন্তু বিগত পাঁচ-ছয় বছরে বেশ খানিকটাই এগিয়ে গেছে ভারত। ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট দলের ওপরে সন্ত্রাসী হামলা আর পরের বছর স্পট ফিক্সিং কেলেঙ্কারির ফলে কিছুটা কোণঠাসাই হয়ে গেছে পাকিস্তান ক্রিকেট। অন্যদিকে ২০০৭ সালে প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শিরোপা জয়ের পর যেন নতুন যুগেরই সূচনা হয়েছে ভারতীয় ক্রিকেটে। পরের বছর থেকেই ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি লিগ আইপিএল আয়োজনের সিদ্ধান্তটা বদলে দিয়েছে পুরো ক্রিকেট বিশ্বকেই। আইপিএল ভারতীয় খেলোয়াড়দের সাফল্যের পেছনে অন্যতম প্রধান ভূমিকা পালন করছে বলেই মনে করছেন মঈন। তিনি বলেছেন, ‘ভারতীয় খেলোয়াড়রা আইপিএল খেলে অনেক সমৃদ্ধ হচ্ছে। সেখানে প্রতিযোগিতাটা খুবই কঠিন। যারা এর ভেতর দিয়ে আসছে তারা খুবই ভালো মানের খেলোয়াড়ে পরিণত হচ্ছে। শীর্ষ পর্যায়ে গিয়ে চাপ সামলিয়ে খেলার সামর্থ্য তৈরি হচ্ছে।’

ক্রিকেট বিশ্বের বেশির ভাগ তারকা খেলোয়াড়ই আইপিএলে ভিড় জমালেও পাকিস্তানের কোনো খেলোয়াড় এই ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি লিগে অংশগ্রহণের সুযোগ পাননি। পাকিস্তানের ক্রিকেটাররা এই জায়গাতে খানিকটা পিছিয়ে গেছেন বলে মত দিয়েছেন মঈন। তবে পাকিস্তানি সমর্থকদের জন্য সুখবর যে আগামী বছরের শুরুতেই নিজেদের টি-টোয়েন্টি লিগ চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে পিসিবি। এটাই পাকিস্তানের ঘুরে দাঁড়ানোর প্রথম ধাপ হতে পারে বলে মনে করছেন মঈন, ‘এটা সঠিক দিকে পাকিস্তানের প্রথম ধাপ। আমরা যদি সত্ থাকি আর একটা রূপকল্প নিয়ে কাজ করে যাই তাহলে অবশ্যই বড় আসরে আমরা ভারতকে হারাতে পারব।’—পিটিআই