সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিকেল কলেজে শিক্ষা কার্যক্রম সাময়িক স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের দাবীতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

প্রতিনিধি ॥ ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিকেল কলেজে শিক্ষা কার্যক্রম সাময়িক স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের দাবীতে  সোমবার কলেজের শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন করেছে। দুপুরে স্থানীয় ঘাটুরায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিকেল কলেজের সামনে কুমিল্লা – সিলেট মহাসড়কের পাশে এ মানববন্ধনে কলেজে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থী, অভিভাবক সহ কর্মকর্তা কর্মচারীরা অংশ নেয়। মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য রাখেন শিক্ষার্থী শায়লা আক্তার, তানজিনা, আল মাহমুদ রিফাত,আলী কাউসার বুলবুল, নূর জান্নাত, এস এম জুনায়েদ, আসাদুল্লাহ, প্রমুখ। শিক্ষার্থীরা জানায়, সরকার কতৃক নির্ধারিত সকল নীতিমালা অনুসরণ করে ২০১৩ সালের ২ অক্টোবর ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিকেল কলেজ অনুমোদন লাভ করে। একই বছরের ১১ নভেম্বর কলেজটি ৫০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির একাডেমিক অনুমোদন পায়। ৩০ ডিসেম্বর ২০১৩  থেকে ভর্তি পক্রিয়া শুরু হয় এবং ২০১৪ সালের ১৫ জানুয়ারী ভর্তি পক্রিয়া শেষ হয়। ৪৬ জন শিক্ষার্থী নিয়ে ১১ জানুয়ারী এ কলেজে প্রথম বর্র্ষের ক্লাশ শুরু হয়। এদিকে ক্লাশ শুরু হওয়ার পর ৩০ জানুয়ারী  ২০১৪ তারিখে স্বাস্থ্য পরিবার কল্যাণ মন্ত্রনালয় থেকে এক পত্রে  বিগত সরকারের আমলে ২০১৩-২০১৪ শিক্ষা বর্র্ষে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক অনুমোদনপ্রাপ্ত ১৩ টি বেসরকারী মেডিকেল কলেজ ও ১ টি ডেন্টাল কলেজের সাথে এ কলেজে শিক্ষা কার্যক্রম সাময়িক স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয়া হয়। এ নির্দেশ এর প্রেক্ষিতে কলেজে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীরা চরম বিপাকে পড়েছে। চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে এখানে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের ভবিষৎ এখন অনিশ্চতায়। শিক্ষার্থীরা তাদের শিক্ষা ও জীবন রক্ষার জন্য এ কলেজে শিক্ষা কার্যক্রম স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রী সহ সংশ্লিস্টদের প্রতি আকুল আবেদন জানিয়েছে। মানববন্ধনে “ ডোন্ট ডেসট্রয় আওয়ার স্টুডেন্ট লাইফ ” লিখা ফেস্টুন হাতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়া শিক্ষার্থী টাঙ্গাইল থেকে আসা শায়লা ও কুমিল্লা থেকে আসা তানজিনা জানায়, অনেক স্বপ্ন নিয়ে ডাক্তার হতে আমরা এখানে ভর্তি হয়েছি। অভিভাবকরা অনেক কস্ট করে আমাদের এখানে পাঠিয়েছেন। এখন আমরা চোখে মুখে অন্ধকার দেখছি। আমাদের শিক্ষাজীবন এখন অনিশ্চিত। শায়লা জানায় সেকেন্ড টাইম সুযোগ পেয়ে এখানে ভর্তি হয়ে নিয়মিত ক্লাশও করেছি। হঠাৎ করে সাময়িক স্থগিতাদেশে আমরা এখন মানসিক ভাবে বিপর্যস্থ। এখানে পড়ার সুযোগ না পেলে আমার ডাক্তার হওয়ার সুযোগ থাকবে না। স্থগিতাদেশের প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত না আসায় আমাদের শিক্ষা ব্যাহত হচ্ছে মূল্যবান সময় নস্ট হচ্ছে। সে জানায়, এই কলেজে শিক্ষা ব্যবস্থাপনার সকল উপকরণ, অবকাঠামোগত উন্নত পরিবেশ, ক্লাশ রুম শিক্ষক সবই আছে কিন্তু আমরা শিক্ষাগ্রহণ থেকে বঞ্চিত হচ্ছি এখন। যথারীতি ২০১৫ সালে জুলাই মাসে চট্রগাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে আমাদের প্রথম প্রফেশনাল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে,এ স্থগিতাদেশের কারণে এ পরীক্ষায় আমরা ক্ষতিগ্রস্থ হবো। আমরা অবিলম্বে কলেজে মিক্সা কার্যক্রম এর সাময়িক স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের জোর দাবী জানাচ্ছি। কলেজ এর অধ্যক্ষ বিগ্রেডিয়ার(অবঃ) প্রফেসর ডাঃ মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, ২০১১ সালের ১ লা জুলাই জয়েন্ট স্টক রেজিস্টাার্ড লিঃ কোম্পানী হিসেবে কলেজটি প্রতিষ্টার কার্যক্রম শুরু হয়। ২০১২ সালের ১ লা জানুয়ারী হাসপাতাল শুরু হয়। ২০১৩ সালের ২০ শে জুন ২৫০ শয্যা হাসপাতাল হিসেবে এটি রেজিস্ট্রেশন প্রাপ্ত হয়।২০১৩ সালের ২ অক্টোবর মেডিকেল কলেজ হিসেবে সরকার কতৃক নির্ধারিত নীতিমালা অনুযায়ী নীতিগত অনুমোদন লাভ করে। নিয়ম অনুযায়ী এখনে ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন সহ ক্লাশও শুরু হয়। শিক্ষার্থীরা ভর্তি হওয়ার পর স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় কতৃক ২০১৩-২০১৪ শিক্ষাবর্ষে অনুমোদন প্রাপ্ত ১৩ টি বেসরকারী মেডিকেল কলেজের সাথে এ কলেজে শিক্ষা কার্যক্রম সাময়িক স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয়। নির্দেশিত পত্রে মন্ত্রনালয়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর,বিএমডিসি ও সংশ্লিস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে পরিদর্শনের কথা উল্লেখ ছিল। পরে এ বছরের ১৮ ফেব্র“য়ারী স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের যুগ্ম সচিব ইফতেখার উদ্দিন, বিএমডিসির প্রতিনিধি ডাঃ বদিউজ্জামান,চট্রগাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন প্রফেসর সেলিম জাহাঙ্গীর ও স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব রেজুয়ানুর রহমান সমন্বয়ে পরিদর্শক টীম কলেজ পরিদর্শন করে গেছেন। এ পরিদর্শনের প্রতিবেদন নিয়ে সিদ্ধান্ত দেয়ার কথা থাকলেও পরিদর্শনের ২ মাস ৬ দিন  অতিবাহিত হয়েছে কোন সিদ্ধান্ত বা সাময়িক স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার হচ্ছে না। এতে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা ব্যাহত হচ্ছে। অনিশ্চয়তায় পতিত হয়ে মানসিক ভাবে সকলেই বিপর্যস্থ। কলেজের সেক্রেটারী এমএইচএম লিটন জানান, কলেজে ১৯ জন শিক্ষক সহ ২৬ জন স্টাফ রয়েছে। এই স্থগিতাদেশের জন্য সকলেই মানসিক ভাবে বিপর্যস্থ।